এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > নিজে সমস্ত কৃতিত্ব নিতে গিয়েই বিপদ ডেকে এনেছেন মমতা? তৃণমূল আর ঘুরে দাঁড়াতে পারবে না?

নিজে সমস্ত কৃতিত্ব নিতে গিয়েই বিপদ ডেকে এনেছেন মমতা? তৃণমূল আর ঘুরে দাঁড়াতে পারবে না?


লোকসভা নির্বাচনের পরেই কার্যত নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল আগামী ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে কড়া টক্কর হতে চলেছে বর্তমান শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস ও কেন্দ্রের শাসকদল ভারতীয় জনতা পার্টির মধ্যে। অনেকে তো আবার আগ বাড়িয়ে বলেই দিচ্ছিলেন – তৃণমূল কংগ্রেসের পতন কার্যত নিশ্চিত, নবান্নের কুর্সিতে বিজেপির বসা নাকি শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। কিন্তু এরপরেই এক মাস্টারস্ট্রোক দেয় ঘাসফুল শিবির।

নিজেদের রণনীতিকার হিসাবে নিয়ে আসে প্রশান্ত কিশোরকে। আর তিনি দায়িত্ব নিতেই কামাল – লোকসভার অল্পদিনের মধ্যেই রাজ্যে হওয়া ৩ উপনির্বাচনে জয় ছিনিয়ে নেয় তৃণমূল কংগ্রেস। আর তারপরেই ঘাসফুল শিবিরের সমর্থকরা বলতে শুরু করেন – লোকসভা ও বিধানসভা সম্পূর্ণ আলাদা। লোকসভায় মোদী-হাওয়ায় উৎরে গেলে বাংলায় দিদির মোকাবিলা করার মত নেতা বিজেপির কোথায়? তাই নবান্নের দখল থাকবে তাদের হাতেই।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর এবার, সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্যই তৃণমূল কংগ্রেস ডুবতে চলেছে বলে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাসগুপ্ত। স্বয়ং নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ স্বপনবাবু অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেভেলপমেন্ট অফ বেঙ্গল সংস্থার আয়োজিত করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ও রাজ্যের ভবিষ্যৎ শীর্ষক এক আলোচনায় অংশ নিয়ে কার্যত এদিন ঝড় তুলে দিলেন।

প্রখ্যাত সাংবাদিক হিসাবে পরিচিত স্বপন দাসগুপ্ত এদিন রীতিমত আক্রমণাত্মক মেজাজে বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধীদের কোণঠাসা করে নিজে সমস্ত কৃতিত্ব নিতে গিয়েই বিপদ ডেকে এনেছেন দলের এবং নিজের। তিনি কোণঠাসা হয়ে গিয়েছেন, বাংলা সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে করোনা মোকাবিলায়। আসলে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এটাকে সাইক্লোন বা বন্যা বিপর্যয় ভেবেছিলেন!

এখানেই শেষ নয়, স্বপনবাবু আরও বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে তৃণমূল আর কোনওভাবেই ঘুরে দাঁড়াতে পারবে না, জোড়া ফলায় বিপর্যস্ত শাসকদল। একদিকে রেশন দুর্নীতি, অন্যদিকে করোনায় তথ্য গোপন। ফলে মানুষ তৃণমূল সরকারের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। এসব মানুষ কিছুতেই মেনে নেবে না। তৃণমূলের এই ভুলই বিজেপিকে রাজ্যে ফের উঠে দাঁড়ানোর জায়গা করে দিয়েছে। বিজেপির কাছে নতুন করে সুযোগ এসে গিয়েছে।

আর এরপরেই অত্যন্ত তৎপূর্যপূর্ণভাবে স্বপন দাসগুপ্ত বঙ্গ বিজেপির উদ্দেশ্যেও বড়সড় বার্তা দেন। তিনি বলেন, বিজেপির কাছে নিজেদের প্রমাণ করার সুযোগ চলে এসেছে। এখন আমাদের সঠিক বিকল্প হয়ে উঠতে হবে। মানুষ কী ধরনের বিকল্প চায় তা জানতে হবে। আর আমাদের সেটাই হয়ে উঠতে হবে। তাহলেই তৃণমূলের দিন শেষ। বাংলায় তৃণমূলের আর ফেরা হবে না!

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!