এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মমতার বাড়িতে শোভন বৈশাখীর আসা নিয়ে মুখ খুললেন রত্না চ্যাটার্জী, তৃণমূলে ফেরা নিয়ে বাড়লো জল্পনা

মমতার বাড়িতে শোভন বৈশাখীর আসা নিয়ে মুখ খুললেন রত্না চ্যাটার্জী, তৃণমূলে ফেরা নিয়ে বাড়লো জল্পনা

দল ছেড়েছেন অনেক দিন তবুও দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সম্পর্ক ছেড়ে দেননি। আর ভাইফোঁটা উপলক্ষে বিশেষ বান্ধবী বৈশাখী বান্দ্যোপাধ্যাকে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে হাজির হয়েছিলেন দিদির প্রিয়ভাই কানন। যা নিয়েই ঝড় উঠেছিল রাজনৈতিকমহলে।

শোভনের ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রের খবর, ভাইফোঁটা উপলক্ষেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে এ দিন গিয়েছিলেন তাঁরা।প্রতি বছরই ভাইফোঁটার দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে শোভন বাবু থাকলেও গত বছর মন্ত্রিসভা থেকে বা কলকাতার মেয়র পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর তাঁকে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির কালীপুজোয় ও ভাইফোঁটাতেও দেখা যায় নি।

বান্ধবী বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূল দলের একাংশের আপত্তির জন্য মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিয়েছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়।পরবর্তীতে দীর্ঘদিন বাড়িতে বসে থাকলেও গত 14 আগস্ট বিজেপির দিল্লির দপ্তরে গিয়ে বান্ধবীকে সাথে নিয়েই পদ্মফুল শিবিরে নাম লেখাতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। কিন্তু বিজেপিতে গিয়েও সেই বৈশাখীদেবীকে নিয়ে শোভনবাবু। নানা সময় বিজেপির অনেক নেতৃত্বের তরফে বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে কটাক্ষও তাকে হজম করতে হয়েছে বলে দাবি একাংশের।দল ছাড়বেন বলে স্থির করে ফেলেছিলেন প্রাক্তন মেয়র ও তাঁর বান্ধবী।

পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গিয়েছিল যে দিল্লিতে গিয়ে মুকুল রায়ের সঙ্গে সেই বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শোভন চট্টোপাধ্যায় দেখা করেছিলেন। কিন্তু তার পর থেকে বিজেপির আর কোনো কর্মসূচিতে দেখা যায়নি শোভনবাবুকে। মাঝে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ কলকাতায় আসলেও সেই সমাবেশে উপস্থিত থাকতে দেখা যায়নি শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং তার বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এরই মাঝে পার্থ চট্ট্যোপাধ্যায়ের সাথে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় কথাও বলেন। এমনকি বর্তমানে বিজেপির যে গান্ধীর সংকল্প যাত্রা চলছে, তার নাগপাশেও দেখা যায়নি এই প্রাক্তন মন্ত্রীকে।ফলে স্বাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছিল তবে কি ফের ফিরছেন শোভনবাবু তৃণমূলে? আর তার থেকেও বড় ছিল শোভনবাবুর এই আসা নিয়ে তাঁর স্ত্রী রত্না চট্ট্যোপাধ্যায়ের প্রতিক্রিয়া কি? কিন্তু তাঁর ফোন বন্ধ থাকায় তাঁর প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি তখন।

কিন্তু এদিন এই প্রসঙ্গে এদিন রত্না চট্টোপাধ্যায় মুখ খোলেন। তিনি বলেন, ”ভাইফোঁটায় মমতাদির বাড়িতে গিয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। সবথেকে ভাল খবর এটা। গত বছর ফোঁটা নিতে পারেননি। শুভবুদ্ধির উদয় ঘটেছে। এই শুভবুদ্ধি যেন উনি ধরে রাখতে পারেন। মমতাদির হাত ধরেই তো ওঁর (শোভন) সব উন্নতি হয়েছে। শোভনকে ছোট ভাই হিসেবেই দেখেন মমতাদি। দিদি মায়ের মতো হয়। ছোট ভাইরা দিদির কাছে মায়ের স্নেহ পান”।

প্রসঙ্গত, শোভন-বৈশাখীর বিজেপিতে যোগ দেবার দিন রত্না দেবী ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন ‘মমতার কাছেই ফিরতে হবে শোভনকে’ আর এদিন শোভনবাবু ও বৈশাখী দেবীর ফের মমতার বাড়িতে আসা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে জোর জল্পনা, তবে কি রত্নার দেবী ভবিষ্যদ্বাণী ঠিক হতে চলেছে ? আর সেই জল্পনাকেই অনেকগুন বাড়িয়ে রত্না দেবী ”শোভনের শুভবুদ্ধির উদয় ঘটেছে”বলে জল্পনা আরো বাড়লো বই কমল না বলেই মত রাজনৈতিকমহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!