এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মমতাকে বড় ধাক্কা দিয়ে রাহুলকে প্রধানমন্ত্রী করার ডাক এই হেভিওয়েট বিজেপি বিরোধীর

মমতাকে বড় ধাক্কা দিয়ে রাহুলকে প্রধানমন্ত্রী করার ডাক এই হেভিওয়েট বিজেপি বিরোধীর

বিজেপিকে ঠেকাতে দেশে বিজেপি বিরোধী দলগুলোকে নিয়ে তৈরি হয়েছে বিরোধী মহাজোট। তবে এই মহাজোট যদি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে জয়লাভ করে তাহলে প্রধানমন্ত্রী ঠিক কে হবেন তা নিয়ে ইতিমধ্যেই তৈরি হয়েছে নানা জল্পনা। অনেকেই চাইছেন, প্রধানমন্ত্রী হোক তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আবার অনেকে চাইছেন ঐকমত্যের ভিত্তিতে জয়লাভের পরি ঠিক হবে কে হবেন এই বিরোধী জোটের প্রধানমন্ত্রী!

কিন্তু এবারে সেই বিরোধী জোটের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল গান্ধীর নামকেই প্রস্তাব করলেন করুণানিধি পুত্র এম কে স্ট্যালিন। আর তাতেই প্রবল জল্পনা তৈরি হয়েছে জাতীয় রাজনীতিতে। সূত্রের খবর, গতকাল করুণানিধির আবক্ষ মূর্তির উন্মোচন করেন কংগ্রেসের সোনিয়া গান্ধী।

যেখানে উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল গান্ধী, চন্দ্রবাবু নাইডু, পিনারাই বিজয়ন সহ একাধিক বিরোধী দলের নেতারা। আর একের পর এক বিরোধী দলের নেতারা যখন এই অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে উৎখাতের ডাক দিচ্ছেন, ঠিক তখনই সেই করুনানিধি পুত্র এম কে স্ট্যালিন আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিরোধী মহাজোটের তরফ থেকে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী কে হবেন তা প্রকাশ করলেন।

এই অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে এম কে স্ট্যালিন বলেন, “মোদি সরকারের ফ্যাসিস্ট শক্তিকে পরাস্ত করার ক্ষমতা রাহুল গান্ধীরই রয়েছে। আসুন সকলে মিলে আমরা রাহুল গান্ধীর হাত শক্ত করি। এই দেশকে রক্ষা করি।” এদিকে স্ট্যালিনের এহেন মন্তব্যের প্রবল বিরোধিতা করেছেন সেই বিরোধী মহাজোটেরই শরিক সপা, বসপার মতো একাধিক রাজনৈতিক দলগুলো।

একাংশের মতে, কে প্রধানমন্ত্রী হবেন তা ঠিক হবে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের পরই। এদিন এই প্রসঙ্গে সিপিআই নেতা ডি রাজা বলেন, “স্ট্যালিন রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী করার প্রস্তাব দিয়েছেন। তবে এই ইস্যুতে সব ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলিকে একমত হতে হবে।”

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

 

এদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাহুল গান্ধীকে তেমন গুরুত্ত্বপূর্ণ নেতা মানতে নারাজ। প্রসঙ্গত, করুণানিধি মারা যাবার সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গিয়ে তাঁর পরিবারের পাশেও দাঁড়িয়েছিলেন। ফলে মনে করা হয়েছিল যে তিনিও চাইছেন যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ই বিজেপি বিরোধী জোটের প্রধান মন্ত্রী মুখ হোক। এদিন স্বলিনের কথায় কিছুটা হলেও ধাক্কা পেলেন তৃণমূল নেত্রী বলেই মত রাজৈতিকমহলের।

অন্যদিকে, রাজনৈতিক মহলের মতে, এইখানেই নিজেদের ঝুলিতে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে পারে বিজেপি। কেননা বিরোধী মহাজোটের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের আগেই কারো নাম প্রকাশ করে দিলে তা যে সেই বিরোধী মহাজোটকে ধ্বংসের মুখে নিয়ে যাবে তা উপলব্ধি করতে শুরু করেছে প্রায় প্রতিটি রাজনৈতিক দলই।

আর তাইতো স্ট্যালিন সেই বিরোধী মহাজোটের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে কংগ্রেসের রাহুল গান্ধীর নাম প্রস্তাব করায় এখন সেই ইস্যুকে খাঁড়া করে রাহুল গান্ধী বিরোধী দলগুলিকে নিজেদের কাছে টানতে মরিয়া চেষ্টা চালাতে পারে গেরুয়া শিবির। তবে শেষ পর্যন্ত ঠিক কি হয় এখন তার দিকেই তাকিয়ে সকলে।

Top
error: Content is protected !!