এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মোদীকে চিঠি লিখলেন মমতা, বিষয়বস্তু নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে!

মোদীকে চিঠি লিখলেন মমতা, বিষয়বস্তু নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে!


2011 সালে ক্ষমতায় এসেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর থেকেই উন্নয়নের কাজ করতে গিয়ে মাঝেমধ্যেই বাম সরকারের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা যায় সরব হতে দেখা গেছে তাকে। যেখানে তিনি অভিযোগ করেছেন, বামেরা লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা দেনা করে গেছে। আর তা শোধ করতে হচ্ছে আমাকে। এমনকি সেই দেনা শোধ করবার জন্য, কেন্দ্রের কাছে দাবি জানালেও কেন্দ্র তাতে সাড়া দেননি বলেও বারবার অভিযোগ করেছেন বাংলার প্রশাসনিক প্রধান।

ইউপিএ হোক বা এনডিএ, কেন্দ্রের ক্ষমতায় যেই আসুক না কেন, রাজ্যের বকেয়া অর্থ কেউ দেয়নি বলে বহুবার সরব হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মা-মাটি-মানুষের সরকার। তবে বর্তমানে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের সঙ্গে যখন রাজ্যের তৃণমূল সরকারের আদায়-কাঁচকলায় সম্পর্ক, ঠিক তখনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে এবার চিঠি লিখলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রীকে একটি চিঠি লিখে জানিয়েছেন, “অত্যন্ত উদ্বেগের সঙ্গে আপনাদের কেন্দ্রের দেওয়া টাকার পরিমাণ দিন দিন কমছে, যা পাওয়া যাচ্ছে, তাও আসছে অনেক দেরি করে। এর ফলে নানা জনকল্যাণমূলক কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে।” অন্যদিকে জিএসটি চালু হওয়ার পর থেকে রাজ্যের যে লোকসান হয়েছে, তা কেন্দ্রের কাছ থেকে পাওয়ার কথা থাকলেও, সেই টাকা পেতে অনেকটাই দেরি হচ্ছে বলেও এদিনের চিঠিতে প্রধানমন্ত্রীকে অনুযোগ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি, 2019-20 আর্থিক বছরে পশ্চিমবঙ্গের 11,212 কোটি টাকা পাওয়ার কথা থাকলেও, তারা সেই টাকা পায়নি।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

শুধু তাই নয়, বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রকল্পে রাজ্যের এখনো পর্যন্ত 36 হাজার কোটি টাকা প্রাপ্য রয়েছে বলেও এদিন সেই চিঠিতে উল্লেখ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চিঠিতে তিনি লেখেন, “কেন্দ্রের সাহায্য ছাড়া এই প্রকল্পগুলো চালানো যে কঠিন, তা আপনি নিশ্চয়ই বুঝবেন।”

অন্যদিকে 2014-15 সালে কেন্দ্রীয় সরকারের মোট রাজস্বের 6.17 শতাংশ সেস থেকে আসলেও, বর্তমানে রাজ্য সরকার সেই সেস বাবদ আদায় করা অর্থের কোনও ভাগ পায় না বলেও উষ্মা প্রকাশ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এরপরই কেন্দ্রের সঙ্গে নিজেদের তুলনা করে পশ্চিমবঙ্গ অনেক দিক থেকে এগিয়ে যাচ্ছে বলে প্রধানমন্ত্রীকে জানান বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “কেন্দ্র প্রাপ্য না দেওয়া সত্ত্বেও পশ্চিমবঙ্গ সারা দেশের তুলনায় উচ্চহারে আর্থিক উন্নতি করেছে।”

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বর্তমানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্পর্ক খুব একটা ভালো নয়। প্রায় প্রতিটা সভা থেকেই এনআরসি থেকে শুরু করে বিভিন্ন ইস্যুতে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এবং নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক বাক্য প্রয়োগ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে বাংলার প্রতি বঞ্চনা করা হচ্ছে বলে কেন্দ্রের কাছ থেকে প্রাপ্য অর্থ দাবি করে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যাতে বিরোধীরা রাজ্যের উন্নয়ন কেন্দ্রের কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনো সহযোগিতা চাইছে না, এই কথা বলে তৃণমূলকে অস্বস্তিতে ফেলতে না পারে, তার জন্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তরফে কেন্দ্রের প্রধানমন্ত্রীকে এই চিঠি দেওয়া হল বলে মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!