এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবিতে মাখানো হলো কাদা, এলাকায় তুমুল শোরগোল

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবিতে মাখানো হলো কাদা, এলাকায় তুমুল শোরগোল

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় -এর ছবিতে কাদা মাখানোর মতো ঘৃণ্য ঘটলো পূর্ব বর্ধমানের কালনার সাতগাছিতে। জানা যাচ্ছে আলাদা কোথাও নয়। তৃণমূল পার্টি অফিসের দেওয়ালে আঁকা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবিতে কাদা মাখানো হয়েছে যা ঘিরে তুমুল শোরগোল পরে গেছে রাজ্য রাজনীতিতে। এই নিয়ে তৃণমূলের দাবি বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই মুখ্যমন্ত্রীর ছবিতে কাদা মাখিয়েছে।

জানা যাচ্ছে শুধু অভিযোগ করেই ক্ষান্ত হননি তৃণমূলের নেতা কর্মীরা। খবর দেওয়া হয় থানায়। পাশাপাশি সাতগাছির তৃণমূল অঞ্চল সভাপতি বলাই উপাধ্যায় এই ঘটনার সাথে যুক্ত থাকার সন্দেহে ইতিমধ্যেই ১৩ জন বিজেপি কর্মীর নামে থানায় অভিযোগ করেছেন। ঘটনার খবর পেয়েই পুলিশ উপস্থিত হন ও পুলিশ ঘটনার তদন্ত করতেছে বলে জানা যাচ্ছে। বিজেপির বিরুদ্ধে করা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। তাদের দাবি নিজেরা এই কাজ করে আমাদের কর্মীদের ফাঁসাচ্ছে।

এই নিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিজেপি নেতা প্রশ্ন তোলেন যে ওদের পার্টি অফিসের দেওয়ালে আঁকা মুখ্যমন্ত্রীর ছবিতে কেউ এসে কাদা মাখালো আর ওরা কেউ টের পেলো না এটা কি করে সম্ভব ? নিজেরাই নিজেদের নেত্রীর মুখে এই ভাবে কাদা মাখাচ্ছে। আর তার দোষ আমাদের ঘাড়ে চাপাচ্ছে। এই তো অবস্থা এখনকার তৃণমূলের বলেও কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না তিনি।

অবশ্য এই নিয়ে পিছিয়ে নেই তৃণমূল। স্থানীয় এক তৃণমূলের নেতা জানান যে আমরা নেত্রীকে দিদি বলে ডাকলেও মা বলেই মানি। তাই তাঁকে এই ভাবে অসম্মান করার কথা আমরা কেউ স্বপ্নেও ভাবতে পারবো না। বিজেপির কাজ হলো এইসব নোংরামি করা। ওরাই করেছে এইসব।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিকে এই নিয়ে রাজনৈতিকমহলে উঠেছে জোর জল্পনা। তাদের মতে যেই এই কাজ করে থাকুক তা অত্যান্ত ঘৃণ্য অপরাধ। বিজেপির দাবি অনুযায়ী যদি তৃণমূল বিজেপিকে ফাঁসাতে এই কাজ করে তবে তা মোটেও সমীচীন নয়। অন্যদিকে বিজেপি যদি এই কাজ করে তা অত্যান্ত অশোভন। কেননা তিনি একজন নেত্রীর পাশাপাশি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও বটে। তাঁর বিরুদ্ধে বিরোধী মতামত থাকতেই পারে কিন্তু এটা করা উচিত নয়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!