এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > অপারেশন মুসকানের উত্তরসূরি হয়ে ‘আনন্দ’ আসছে, মুখ্যমন্ত্রীর পদক্ষেপে স্যালুট জানাবেনই

অপারেশন মুসকানের উত্তরসূরি হয়ে ‘আনন্দ’ আসছে, মুখ্যমন্ত্রীর পদক্ষেপে স্যালুট জানাবেনই

কেন্দ্র নয়, রাজ্যও পারে, ফের তা হাতেনাতে দেখিয়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার ” অপারেশন মুসকান” নামে একটি প্রকল্প চালু করলে রবিবার থেকে রাজ্যের পূর্ব বর্ধমান জেলায় রাজ্য সরকারের উদ্যোগে চালু হল “অপারেশন আনন্দ।” কিন্তু কি এই প্রকল্প! কারা কারা উপকৃত হবেন এতে!  জানা গেছে, রাজ্যের উদ্যোগে তৈরি এই ” অপারেশন আনন্দ” র মূল লক্ষই হল বিভিন্ন সময় পরিবারের অত্যাচারে পালিয়ে যাওয়া শিশুদের খুজে বের করে তাঁরা ঠিক কি কারনে বাড়ি থেকে বিতারিত হল সেই ব্যাপারে সঠিক তথ্য অনুসন্ধানের চেষ্টা করা। আর রাজ্যে এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন চরতে মাঠে নেমে পড়েছে পূর্ব বর্ধমান জেলার পুলিশ প্রশাসন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

সূত্রের খবর, 2014 সাল থেকে 2018 সালের জুন মাস পর্যন্ত এই জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে মোট 63 জন অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলে ও মেয়ে নিঁখোজ রয়েছে বলে খবর। আর জুলাই মাসে এই সমস্ত শিশুদের খুজে বের করে হয় পরিবারের হাতে না হলে সরকারি হোমে পাঠানোর ব্যাবস্থা করে জেলা প্রশাসন। জানা গেছে, এব্যাপারে বিভিন্ন জায়গায় মাইকিং করছে প্রশাসন। এমনকী নিখোজ শিশুদের খুজে বের করার ক্ষেত্রে সঠিক দ্বায়িত্ব পালন করা থানাকে পুরস্কার দেওয়ার কথাও ঘোষনা করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় বলেন, “জেলার সমস্ত থানার আধিকারিকদের সাথে বৈঠক করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে নিঁখোজের সংখ্যাকে একবারে শূন্য করার।” প্রশাসনিক মহলের একাংশের মতে, কয়েক বছর আগে কেন্দ্রীয় সরকার ” অপারেশন মুসকান” নামে নিখোঁজ বাচ্চাদের খোজে একটি কর্মসূচী পালন করলেও সেইরকম কোনোও নির্দেশিকা এরাজ্যে আসেনি। তাই কেন্দ্রের ওপর ভরসা না করে “অপারেশন আনন্দ” নামে এক প্রকল্প গড়ে তা বাস্তবায়ন প্রক্রিয়াও শুরু করে ফের এ রাজ্য প্রমান করল “বাংলাই বিশ্বসেরা”।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!