এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > প্রশাসনিক বৈঠকে আমন্ত্রণ পেলেন না দলীয় কাউন্সিলররা, জোর গুঞ্জন

প্রশাসনিক বৈঠকে আমন্ত্রণ পেলেন না দলীয় কাউন্সিলররা, জোর গুঞ্জন

2011 সালে রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পরই সাধারণ মানুষের কাছে যাতে প্রশাসন পৌঁছে যায় তার জন্য জেলায় জেলায় প্রশাসনিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে তার দলের জনপ্রতিনিধিদের ডাকা হলেও বিরোধী দলের জনপ্রতিনিধিদের ডাকা হয় না বলে বিভিন্ন সময় অভিযোগ করতে দেখা যেত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে।

কিন্তু এবার মুখ্যমন্ত্রীর প্রশাসনিক বৈঠকে বিধাননগর পৌরসভার ডেপুটি মেয়র থেকে শুরু করে কাউন্সিলরদের আমন্ত্রণ না পাওয়ার ঘটনা প্রকাশ্যে আশায় তীব্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হল।কিন্তু কেন তৃণমূল পরিচালিত বিধাননগর পৌরসভার ডেপুটি মেয়র এবং কাউন্সিলররা মুখ্যমন্ত্রীর প্রশাসনিক বৈঠকে আমন্ত্রণ পাচ্ছেন না!

সূত্রের খবর, আগামী শুক্রবার মধ্যমগ্রামে উত্তর 24 পরগনা জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে হাজির হচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে সকল জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে জেলার প্রশাসনিক আধিকারিকদের থাকার কথা। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে বিধাননগর পৌরসভার কাউন্সিলরদের সেখানে ডাকা হয়নি। যেখানে শুধু আমন্ত্রণ থাকার জন্য জানানো হয়েছে সেই বিধাননগর পৌরসভার কমিশনার পৃথা সরকারকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, বর্তমানে এই বিধাননগর পৌরসভা নিয়ে তীব্র ডামাডোল শুরু হয়েছে।সম্প্রতি মেয়র পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন সব্যসাচী দত্ত। আর এরপরই বিধাননগর পৌরসভার নতুন মেয়র কে হবেন, তা নিয়ে তীব্র জল্পনা শুরু হয়েছে। আর এরই মাঝে সেই বিধাননগর পৌরসভার কোনো কাউন্সিলরকে মুখ্যমন্ত্রীর প্রশাসনিক বৈঠকে আমন্ত্রণ না জানানোয় তৈরি হয়েছে জল্পনা।

অনেকে বলছেন, সব্যসাচী দত্ত মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করার পর অনেকের নামই এই মেয়র পদে উঠে আসছে। ফলে প্রশাসনিক বৈঠকে উপস্থিত হয়ে কাউন্সিলররা এই ব্যাপারে বেফাঁস মন্তব্য করে দিতে পারেন। তাই সেদিকে সতর্কতামূলক দৃষ্টি রেখেই কোনো কাউন্সিলারকেই বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

এদিন এই প্রসঙ্গে বিধান নগর পৌরসভার এক মেয়র পারিষদ বলেন, “এর আগে বারাসাতের বৈঠকেও আমাদের ডাকা হয়েছিল। কিন্তু এবারের বৈঠকে ডাকা হবে বলে আমরা জানতে পেরেছিলাম। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোন চিঠি পাইনি।” কিন্তু মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করলেও এখনও পর্যন্ত রাজারহাট নিউটাউনের তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। ফলে তাকে কি মধ্যমগ্রামে অনুষ্ঠিত হওয়া মুখ্যমন্ত্রীর প্রশাসনিক বৈঠক আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে!

এদিন এই প্রসঙ্গে সব্যসাচীবাবু বলেন, “আমি এখনো কোনো আমন্ত্রণ পাইনি। যদি পাই তাহলে অবশ্যই যাব।” রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, মুখ্যমন্ত্রী নিজের প্রশাসনিক বৈঠকে বিধান নগর পৌরসভায় যে ডামাডোল চলছে সেই ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি নন। আর তাই তো শুধুমাত্র কমিশনারকে সেই প্রশাসনিক বৈঠকে আমন্ত্রণ জানিয়ে দায় সারতে চাইছে প্রশাসন। তবে প্রশাসনিক বৈঠকে জনপ্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ না জানানো নিয়ে প্রশ্ন কিন্তু থেকেই যাচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!