এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > লড়াই করতে না পারলে সমালোচনা না করে মানে মানে সরে পড়াই উচিত: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

লড়াই করতে না পারলে সমালোচনা না করে মানে মানে সরে পড়াই উচিত: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

সারা ভারতবর্ষের মধ্যে এই বাংলাই যে সকলকে পথ দেখাতে পারে তা ফের 24 তম আন্তর্জাতিক কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের মঞ্চ থেকে প্রমাণ করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্যের কোষাগারে অর্থ না থাকা সত্ত্বেও কেন সরকার এহেন উৎসব করছে তা নিয়ে বারে বারে রাজ্যের শাসকদলের দিকে কটাক্ষ ছুঁড়ে দিয়েছে বিরোধীরা।

গতকাল এই চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনী মঞ্চ থেকেই সেই বিরোধীদের সমস্ত কটাক্ষের জবাব দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্টানকে নন্দনের ঘেরাটোপে না রেখে সকলকে চাক্ষুষ করাতে তা নেতাজি ইন্ডোরে নিয়ে এসেছেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রতিবারের মতো গতকাল এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিল চাঁদের হাট।

উপস্থিত ছিলেন সস্ত্রীক অমিতাভ বচ্চন, বাদশা শাহরুখ খান, ওয়াহিদা রহমান, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, মাধবী মুখোপাধ্যায়, সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের মতো দেশি-বিদেশী অতিথিরা। প্রথমেই স্বাগত ভাষণ জানিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করেন এই উৎসব কমিটির অধিকর্তা অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। আর এরপরেই অমিতাভ জায়া জয়া বচ্চনকে কিছু বলার অনুরোধ করা হলেও “যা বলার আমার কর্তাই বলবেন” বলে পাল্টা অমিতাভ বচ্চনের ঘাড়ে বলার দায়িত্ব চাপিয়ে দিলেন জয়া বচ্চন।

এদিকে জয়া বচ্চনের পর বক্তব্য রাখতে গিয়ে বাংলার ব্যান্ড অ্যাম্বাসেডর শাহরুখ খানের সিংহগর্জনে মুহুর্মুহু হাততালি পরে গোটা নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে। অবশেষে প্রতীক্ষার সমস্ত অবসান ঘটিয়ে বাংলার জামাই বাবু বলে পরিচিত অমিতাভ বচ্চন বক্তব্য রাখতে উঠে বাংলাতেই বলে ফেলেন, “আবার চলে এসেছি। মমতাজি কোন কথাই শুনতে চাইলেন না। তাই আবার এলাম।” তবে বক্তব্য রাখতে রাখতে হঠাৎ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মা বলেও সম্বোধন করলেন এই কিংবদন্তি অভিনেতা।

দিদির দিকে তাকিয়ে অমিতাভ বচ্চনের অনুরোধ, “ছেড়ে দাও মা পরেরবার থেকে আর আসতে পারব না।” তবে কারো কথা শোনার যে পাত্রী নন বাংলার অগ্নিকন্যা, তাপ এর বক্তব্য রাখতে উঠে প্রমাণ করে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, আগামী বছর এই কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের 25 বছর পূর্তি হবে। আর তাই এখন থেকেই সকলকে সেই অনুষ্ঠানের আগাম আমন্ত্রণ জানিয়ে রাখেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন তিনি বলেন, “25 বছরের উৎসবে অমিতজি আর শাহরুখ আমাদের পথপদর্শক হবে, কোনোও কথা আমি শুনবো না। অমিতজি আর জয়াজিকে আসতেই হবে। আর শাহরুখ ভাইদুজে (ভাইফোঁটা) কথা দিয়েছে তা রাখতেই হবে কিন্তু।”

এদিকে দিদির আহবানে সাড়া দিয়ে পাল্টা মমতা বন্দোপাধ্যায়ের দিকে তাকিয়ে থামস আপ ইঙ্গিত দেন শাহরুখ খান। পাশাপাশি এদিনের এই অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে বাংলার সংস্কৃতি কৃষ্টি সভ্যতাকে তুলে ধরে বিভাজনকারীদের উদ্দেশ্যেও কড়া সতর্কবার্তা দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, লড়াই করতে না পারলে কেন শুধু সমালোচনা করবেন! উৎসবের মরসুমে মানুষ তো আনন্দ করবেই। যারা সমালোচনা করে তাদের মানে মানে সরে পড়াই উচিত।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

রাজনৈতিক মহলের মতে, এতদিন এই উৎসবকে নিয়ে কটাক্ষ করা বাংলার বিরোধীদের এদিনের আন্তর্জাতিক কোলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের মঞ্চ থেকে খোঁচা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রমাণ করে দিলেন, বিরোধীরা না এই উৎসবকে নিয়ে যতই কটাক্ষ করুন না কেন বাংলায় এই উৎসব চলবেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!