এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রধানমন্ত্রী চাইছেন খোদ বিজেপি শাসিত রাজ্যের মন্ত্রী, অস্বস্তি বাড়লো মোদী শাহের

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রধানমন্ত্রী চাইছেন খোদ বিজেপি শাসিত রাজ্যের মন্ত্রী, অস্বস্তি বাড়লো মোদী শাহের

কংগ্রেসের পর দেশে কেন্দ্র বিরোধী অন্যতম প্রধান মুখ হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার সাথে রাজ্যে হোক বা কেন্দ্রেই হোক বিজেপির সাথে সংঘাত লেগেই আছে। বিজেপির একগুচ্ছ অভিযোগ রয়েছে মমতা সরকারের বিরুদ্ধে অন্যদিকে মোদী সরকারের বিরুদ্ধেও নিত্য নতুন অভিযোগের ডালা সাজিয়ে হাজির হচ্ছে বাংলার শাসকদল।

সম্প্রতি জিতে যাওয়া তৃণমূলের বিধায়ককে গুলি করে খুনের ঘটনাতেও বিজেপির দিকেই আঙ্গুল তুলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী থেকে শুরু করে দলের নেতা নেত্রীরা। যদিও সেই অভিযোগকে কান্দন করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব। তবুও রাজনৈতিক চাপানউতোর শেষ হয়নি। এককালের তৃণমূলের ২ নম্বর তথা বর্তমান বিজেপি নেতা মুকুল রায় সহ আরো ৪ জনের নাম এফআইআর দায়ের করেছে তৃণমূল। আর এই পরিস্থিতিতে যোগী রাজ্যের মন্ত্রী ওমপ্রকাশ রাজভরের মন্তব্য গোটা দেশে আলোড়ন ফেলে দিয়েছে।

এদিন মন্ত্রী ওমপ্রকাশ রাজভর প্রধানমন্ত্রী ইস্যু নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেন যে ‘ সকলেই প্রধানমন্ত্রিত্বের জন্য ফিট আমার মতে। তবে মমতাজি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে সেরা দাবিদারি এই মুহূর্তে।’আর এই নিয়েই ছড়িয়েছে জোর বিতর্ক। কেননা কয়েকদিন আগেই , উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা যোগী আদিত্যনাথের হেলিকপ্টার অবতরণ নিয়ে বিজেপি -তৃণমূল সংঘাত চরম পর্যায়ে পৌঁছে যায়। যার জেরে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীকে ঝাড়খণ্ডে হেলিকপ্টার নামিয়ে গাড়িতে চড়ে পুরুলিয়ায় বিজেপি-র সভায় যোগ দিতে হয়। যা নিয়ে পুরুলিয়ার সভায় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা সরকারের বিরুদ্ধে তোপও দাগেন তিনি। কিন্তু সেই বিতর্ক মিটতে না মিটতেই সেই যোগীর মন্ত্রিসভার মন্ত্রীর এহেন আচরণে স্বাভাবিকভাবেই জলঘোলা হয়েছে।

তবে যোগী রাজ্যে বিজেপি শাসিত সরকারের শরিক দল সুহেলদেব ভারতীয় সমাজ পার্টির এই নেতা যে খুব একটা সুপ্রসন্ন্য বিজেপি সরকারের উপর তা কিন্তু নয় ,কেননা এর আগেও বিজেপি সরকারের উপর বহুবার তোপ দেগেছেন। কিছুদিন আগেই পশ্চিমবঙ্গে আদিত্যনাথের হেলিকপ্টার নামা বিতর্ক নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ওম প্রকাশ রাজভর বলেন যে, ‘পশ্চিমবঙ্গের আইন শৃঙ্খলার পরিস্থিতি সামলানো মমতাজির দায়িত্ব, যোগীজির নয়। ২০১৭ সালে উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী আমার সভাও বাতিল করেছিলেন আইন শৃঙ্খলার কারণ দেখিয়ে।’ ফলে বিজেপির এই শরিক দলের নেতার এহেন মন্তব্যে জল কতদূর গড়ায় তা এখন দেখার।

Top
Close
error: Content is protected !!