এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মমতা ব্যানার্জির মাস্টারস্ট্রোকেই কি উল্টো সুর অমিত শাহের গলায়

মমতা ব্যানার্জির মাস্টারস্ট্রোকেই কি উল্টো সুর অমিত শাহের গলায়

ইউপিএ জোটকে পরাস্ত করে কেন্দ্রে শাসন ক্ষমতায় আসার পরেই বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ এবং এনডিএ জোটের বিজপি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উভয়ের মূল লক্ষ্যই ছিলো কংগ্রেস মুক্ত ভারত গঠন করা। অর্থাৎ কি না ঐতিহাসিক দল জাতীয় কংগ্রেসের স্বমূলে উৎপাটন চেয়েছিলেন তাঁরা। সেই লক্ষ্যে জন সাধারণের সামনের নিজেদের প্রকাশ্য বক্তৃতার সময়েও তাঁরা এই কংগ্রেস মুক্ত ভারতের স্বপ্ন এবং তার ভবিষ্যত বিষয়ের উল্লেখ করেছেন। সম্প্রতি কর্নাটকে সরকার গড়েও মমতা ব্যানার্জীর পরামর্শে রাহুল গান্ধীর মাস্টারস্ট্রোকে রাঢ়ভূমি হাত ছাড়া হয়েছে বিজেপির, পাশাপাশি কয়েকটি উপ নির্বাচন , বিধানসভা নির্বাচনে গেরুয়া শিবিরের শোচনীয় পরাজয়ের পরে অমিত শাহ সহ প্রায় সকল শীর্ষ সারির বিজেপি নেতার বক্তব্যে পাওয়া যাচ্ছে অন্য সুর। এদিন ছত্তিশগড়ের সরগুজা জেলার অম্বিকাপুর শহরে সাংবাদিক বৈঠক করলেন দলীয় জাতীয় সভাপতি অমিত শাহ। প্রকাশ্য সাংবাদিক বৈঠক থেকে তিনি বললেন , “গণতন্ত্রে বিরোধীদের মুখ্য ভূমিকা রয়েছে। কংগ্রেস মুক্ত ভারত বলার অর্থ দলতন্ত্র মুক্ত রাজনৈতিক সংস্কৃতি। তবে বিরোধিদের ছাড়া গণতন্ত্র কখনও সম্ভব নয়। কিন্তু এটা অন্য বিষয় যে গোটা দেশে কংগ্রেস ক্ষীণ হয়ে আসছে। কংগ্রেসকে বাঁচিয়ে রাখাটা রাহুল গান্ধীর দায়িত্ব, আমার নয়।’‌’

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

রাজনৈতিক মহলের মতে অমিত শাহের এই মন্তব্য আদতেও বিরোধী হিসেবে কংগ্রেসের অস্তিত্বকে সম্মান জানানো নয়। তিনি আসলে কংগ্রেসের পৌরহিত্যে আঞ্চলিক দলগুলির যৌথ সমন্বয়ে বিজেপি বিরোধী ফ্রন্ট গঠনের সম্ভবনায় আতঙ্কিত। একই সাথে তিনি নিজের দলের পিঠ নিজেই চাপড়ে বললেন , ” বিজেপি ভাল কাজ করেছে বলেই মানুষের সমর্থন পেয়েছে। এই ভাল কাজ করে গেলে ফের মানুষ আমাদের সমর্থন করবেন। কংগ্রেস সভাপতি হিসাবে রাহুল গান্ধীকেই বলতে হবে কংগ্রেসের ঐতিহ্য নিয়ে। আর বিজেপির সভাপতি হিসাবে আমি বলব বিজেপির ঐতিহ্য নিয়ে। সেখানে কোনও ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে না। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং যখন বিদেশ সফরে যেতেন তখন কেউ কিছু জানতে পারতেন না। কিন্তু এখন প্রধানমন্ত্রী যখন বিদেশ সফরে যান তখন অন্যান্য দেশের মানুষ তাঁকে স্বাগত জানান।’‌’ বিজেপি সভাপতির বিরোধী শিবিরের প্রতি এহেন আচরণ বিজেপির শাসন কালে এই প্রথম লক্ষ্য করা গেলো। যা কীনা নিঃসন্দেহেই রাজনৈতিক মহলের ভাবনা চিন্তা কে যে উস্কে দিচ্ছে তা আলাদা করে বলার অপেক্ষা রাখেনা। তাই রাজনৈতিকমহলের মতে মমতা ব্যানার্জীর ফেডারেল ফ্রন্টের মাস্টারস্ট্রোকই কি উল্টো সুরে গান গাওয়াচ্ছে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহকে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!