এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কোন পথে ৪২ এ ৪২ – আজ জানিয়ে দেবেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় – তাকিয়ে আপামর তৃণমূল কর্মী-সমর্থক

কোন পথে ৪২ এ ৪২ – আজ জানিয়ে দেবেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় – তাকিয়ে আপামর তৃণমূল কর্মী-সমর্থক

ঘাড়ের কাছে নিঃশ্বাস ফেলছে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন। মার্চের প্রথম সপ্তাহেই ভোটের দিনক্ষণ জানিয়ে দেবে নির্বাচন কমিশন,এমন সম্ভাবনাই প্রবল। ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশিত হওয়ার আগে শেষবারের মতো নির্বাচনী লক্ষ্যে আরো একবার দিশা দিতে দলের রাজ্য এবং জেলা স্তরের নেতা-মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নেত্রী ৪২ টি আসনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা স্থির করে দিয়েছিলেন গত বছর ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে। সেই লক্ষ্যে পৌছানোর কর্মসূচিতে কীভাবে এগোচ্ছে দল,তা যেমন তিনি আরো একবার খতিয়ে দেখে নিতে চান সেরকম ভোটের দিনক্ষণ প্রকাশের আগে শেষবারের মতো কর্মীদের জয়ের মন্ত্রে দিক্ষীত করতে চান নেত্রী। আজ,সোমবার দুপুর ১২ টায় দক্ষিণ কোলকাতার নজরুল মঞ্চে তৃণমূলের বর্ধিত কোর কমিটির বৈঠক রয়েছে।

গত কয়েকমাসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জাতীয় রাজনীতির অঙ্গনে বিজেপি বিরোধী অন্যতম প্রধাণ মুখ হয়ে উঠেছেন,এতে সন্দেহ নেই কোনো। তাছাড়া এ কয়েকমাসে রাজ্যেও বিজেপি বিরোধী ঝড় তুলতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। কাজেই আসন্ন ভোটে রাজ্যে তৃণমূলের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা দিল্লি অভিমুখী রাজনীতির পথ মসৃণ করবে,তা বলাবাহুল্য। তাই আজ দলীয় কোর কমিটির বৈঠকে সহযোদ্ধাদের নির্বাচনী রণকৌশল সংক্রান্ত কী বার্তা দেন নেত্রী তা নিয়ে সকাল থেকেই টানটান উত্তেজনা রয়েছে তৃণমূল শিবিরে।

গত লোকসভা ভোটে যখন মোদী ঝড়ে কংগ্রেস সহ বিভিন্ন আঞ্চলিক দলগুলো মেরুদণ্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারেনি,তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব একমাত্র বাংলাতেই তৃণমূল ৩৪ টি আসন দখল করে থামিয়ে দিয়েছিল গেরুয়া রথের চাকা। এর জেরে কংগ্রেস ও তামিলনাড়ুর এআইএডিএমকে বাদ দিয়ে ৫৪৩ আসনের নিম্নকক্ষে বিরোধী শিবিরে তৃতীয় বৃহত্তর দল হিসাবে উঠে এসেছিল তৃণমূল।

এবারের লোকসভা ভোটে আরো শক্তিশালী হতে চাইছে তৃণমূল আর সেজন্যেই রাজ্যের ৪২ টি আসন জয়ের লক্ষ্যমাত্রা অনেক আগেই স্থির করে দিয়েছেন নেত্রী। গত মাসেই কংগ্রেস সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের অবিজেপি রাজনৈতিক দলের কর্তাব্যক্তিদের এক মঞ্চে নিয়ে এসে বিজেপি বিরোধী ঐক্যবদ্ধ ভারত গড়ার ডাক দিয়েছিলেন তিনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপি বিরোধী জোটের মুখ হিসাবে এতোটাই জনপ্রিয় হয়েছেন যে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে অনেকেই তাকে দেখতে চাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এরকম অবস্থায় বাংলার বুক থেকে থেকে ৪২ টি আসনেই জয় ছিনিয়ে নিতে পারে তৃণমূল,তাহলে দিল্লিতে মোদী সাম্রাজ্যের ভীত নড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হবে। তৃণমূলের একাংশের মতে,বাংলায় বিরোধীরা জোট গড়তে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে টক্কর দিতে পারবে না। কাজেই আগামী লোকসভা ভোটে ৪২ টি আসনেই নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী জোড়াফুল শিবির। এই অবস্থায় বিরোধীদের একটা আসনও না ছাড়ার লক্ষ্যে ফের একবার নির্বাচনী লড়াইয়ে ঝাঁপ দেওয়ার ডাক দেবেন দলের সুপ্রিমো,এমনটাই মনে করছেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা।

আসন্ন নির্বাচনের সঙ্গে যেহেতু রাজ্যে ক্ষমতার পটপরিবর্তনের কোনো সম্পর্ক নেই তাই বাংলার স্বার্থ রাজ্যবাসীর কাছে তুলে ধরাকেই গুরুত্ব দিতপ চায় তৃণমূল। দলের রাজ্যসভার এক সদস্যের দাবী,বর্তমান বিজেপি সরকারের বিভাজনের রাজনীতি,দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টা বুঝতে বাকি নেই দেশবাসীর।

কাজেই এবারের লোকসভা ভোটের আগে মোদীর ভাবমূর্তি বিজেপির জয়ের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়াবে। অন্যদিকে,বিরোধী জোটের মধ্যমনি হয়ে উঠেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাছাড়া আর্থ সামাজিক উন্নয়নের মাপকাঠিতেও গোটা দেশের কাছে মডেল হয়ে উঠেছে বাংলা। কন্যাশ্রী থেকে শুরু করে উৎকর্ষ বাংলা,সবুজ সাথী বিশ্বের দরবারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম উজ্জ্বল করেছে। এসবের সূত্র ধরেই তৃণমূলের জয়ের পথ প্রশস্ত হবে। এমনটাই বিশ্বাস জোড়াফুল শিবিরের।

উল্লেখ্য,রাজ্যে বাম,কংগ্রেসের দূর্বলতার সুযোগে বিরোধীদর তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে বিজেপি। সেই বিজেপিকে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে প্রতিহত করতে আজকের কোর কমিটির বৈঠকে কোন রণকৌশল বাতলে দেন নেত্রী সেদিকেই চোখ থাকবে রাজ্য রাজনৈতিকমহলের,এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!