এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > নোটবাতিল নিয়ে তিনিই যে ‘সঠিক’ ছিলেন আবার মনে করিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

নোটবাতিল নিয়ে তিনিই যে ‘সঠিক’ ছিলেন আবার মনে করিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই মুহূর্তে জাতীয় রাজনীতিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সবথেকে বড় ঘোষিত প্রতিপক্ষ। ফলে নরেন্দ্র মোদির সরকারের নেওয়া প্রায় সব সিদ্ধান্তেরই তীব্র বিরোধিতায় দেখা গেছে বাংলার অগ্নিকন্যাকে। তার মধ্যে সব থেকে বেশি তিনি সুর চড়িয়েছিলেন নোটবাতিল কাণ্ডে। তখন তিনি স্পষ্ট ভাষায় জানিয়েছিলেন, নোটবাতিল করে কালো টাকা তো ফেরত আসবেই না, উল্টে এই পদক্ষেপ শুধুশুধু হয়রানি বাড়াবে সাধারণ মানুষের।

আর এবার ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক যেন সেই প্রসঙ্গে নতুন করে অস্ত্র তুলে দিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে। সম্প্রতি আরবিআইয়ের ২০১৭-১৮ সালের বার্ষিক রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। সেই রিপোর্টে বলা হয় বাতিল হয়ে যাওয়া নোটের প্রায় ৯৯.৩% টাকাই ফেরত এসেছে। সেই তথ্যের সূত্র ধরেই মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় সওয়াল করে ট্যুইটে লিখলেন – কালো টাকা কোথায় গেলো? কালো টাকার মালিকদের টাকা পরিবর্তনের কারণেই কী এই নোটবাতিলের প্রকল্পের সূচনা করা হয়েছিলো?

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৮ ই নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নোট বাতিলের কথা ঘোষণা করেন। তখনকার আর্থিক মূল্য অনুসারে ৫০০ ও ১,০০০ টাকার নোট মিলিয়ে মোট ১৫.৪১ লক্ষ কোটি টাকা মূল্যের নোট বাতিল করা হয়। যার মধ্যে ১৫.৩১ লক্ষ কোটি অর্থমূল্যের নোট ফেরত এসেছে। অর্থাৎ অবশিষ্ট ১০,৭২০ কোটি অর্থমূল্যের নোটের কোনো হিসেব পাওয়া যায়নি। এই অর্থমূল্যের নোট ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থার বাইরে চলে গিয়েছে।

এই নোট বাতিলের সময়ে কেন্দ্রীয় সরকার দাবি করেছিলো যে বাজারে নতুন নোটের প্রচলনের ফলে কালো টাকার কোনো অস্তিত্ব থাকবেনা। তবে নিয়মের শিথিলতার কারণে কালো টাকা যে বদল হয়ে গিয়েছে বলে এতদিন অনেক রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ যে দাবি করছিলেন, এখন তা একপ্রকার ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের পরিসংখ্যানেই স্পষ্ট। এদিকে নতুন নোটের ছাপার খাতেও বিশাল অঙ্কের টাকা ব্যয় হয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের।

তাই সব মিলিয়ে নোট বাতিলের সময়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্য ছিল, ‘নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত অত্যন্ত লজ্জাজনক ও দুর্ভাগ্যপূর্ণ’। আর তা যে কতটা সঠিক খোদ কেন্দ্রীয় সরকার পরিচালিত রিজার্ভ ব্যাঙ্কের রিপোর্ট প্রকাশের পরে তা আরও একবার প্রমাণ হয়ে গেলো বলে এবার দাবি করলেন তৃণমূল নেত্রী। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা আগামী লোকসভা নির্বাচনে এই নিয়ে নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে আরো সুর চড়াবেন তৃণমূল নেত্রী।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!