এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মুখ্যমন্ত্রী আর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে টাকা পাচারের বিস্ফোরক অভিযোগ নিয়ে নির্বাচন কমিশনে মুকুল রায়

মুখ্যমন্ত্রী আর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে টাকা পাচারের বিস্ফোরক অভিযোগ নিয়ে নির্বাচন কমিশনে মুকুল রায়

রবিবার কলকাতা বিমান বন্দর থেকে গন্তব্য স্থল পর্যন্ত তিন বার পুলিশ মুকুল রায়ের গাড়ি তল্লাশি করে। শেষে গাড়ি থেকে মুড়ি আর বিস্কুট পাওয়া যায়। কিন্তু এই নিয়ে ক্ষুব্ধ মুকুলবাবু অভিযোগ করেন যে তাঁকে ইচ্ছা করে হেনস্থা করছে রাজ্য সরকার। আর এর পরেই সরব হন তিন। তিনি সেদিনই দাবি করেছিলেন যে মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় গাড়ি করে টাকা নিয়ে যান রাজ্য পুলিশের ক্ষমতা থাকলে তাঁর গাড়িতে তল্লাশি করে দেখাক।

সেদিনের পর ফের আবার এদিন বাংলায় টাকা পাচার নিয়ে মুখ খুললেন মুকুল রায়।নির্বাচনী আধিকারিকের সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে টাকা নিয়ে যাচ্ছে তৃণমূল এমনটাই বিস্ফোরক দাবি করেন তিনি। আর এই অভিযোগ করেছেন মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের অফিসে গিয়ে। এখানেই শেষ নয়, জানা যাচ্ছে যে, এদিন মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের অফিসে গিয়ে তিনি আরো অভিযোগ জানিয়েছেন যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কনভয়ে যে ২৬ টি মতো গাড়ি থাকে তাতে করে টাকা নিয়ে যাওয়া হয়। আর যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কনভয়ে থাকে যে ১৬ টি গাড়ি থাকে তাতে করেও টাকা নিয়ে যাওয়া হয়। আর তা বিলি করা হয় তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

এদিন মুকুল রায়ের সঙ্গে ছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা সুনীল দেওধর। মুকুলবাবু জানান যে, নির্বাচন কমিশনের কাছেমময় এবং অভিষেতা বন্দ্যোপাধ্যাক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কনভয়ে থাকা প্রত্যেক গাড়িতে তল্লাশির দাবি জানিয়েছেন মুকুল রায়। পাশাপাশি এই নিয়ে দিল্লিতে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের দফতরের চিঠি দেওয়া হচ্ছে।
অবশ্য মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছেন যে প্রয়োজন পড়লে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িতেও তল্লাশি করা হবে। আইনের বাইরে কেউ নন। আর এদিন মুকুলবাবুর এই অভিযোগের ভিত্তিতে পাল্টা তৃণমূলের তরফ থেকে এখনো পর্যন্ত কোনো পতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

Top
error: Content is protected !!