এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদহে ক্রমশ বাড়ছে পদ্ম-শিবির, নদী-ঘাট লিজ বিতর্কে তৃণমূলকে পাল্টা মারল গেরুয়া শিবির

মালদহে ক্রমশ বাড়ছে পদ্ম-শিবির, নদী-ঘাট লিজ বিতর্কে তৃণমূলকে পাল্টা মারল গেরুয়া শিবির

দিনে দিনে জেলায় সক্রিয় হয়ে উঠছে গেরুয়া শিবির আর সেই নিয়ে যথেষ্ট প্রমাণও মিলছে। পঞ্চায়েতে শাসকদলের সাথে বিরোধের ঘটনা ঘোরতেছে। এবার মালদহ জেলায় শাসক দল এবং বিরোধী দলের বিরোধের ঘটনায় জেলায় গেরুয়া শিবিরের সক্রিয়তার কথা আবারও প্রকাশ্যে এলো। মালদহের টাঙ্গন নদীর ঘাট লিজ নেওয়াকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেস এবং বিজেপি দলের মধ্যে বিরোধ বাঁধে। এদিন রাতে মালদহের হবিবপুর থানার অন্তর্গত রানিগঞ্জ এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের ওপরে বিজেপি কর্মীদের আক্রমন করার অভিযোগ ওঠে। স্থানীয় বাসিন্দাদের সূত্রে পাওয়া খবর অনুসারে জানা যাচ্ছে, বেশ কয়েকদিন যাবত এলাকার তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক ধনঞ্জয় সরকার রানিগঞ্জ এলাকার ঘাটের লিজ পেয়েছেন। তাঁকে পঞ্চায়েত সমিতির পক্ষ থেকে ঘাটের লিজ দেওয়ার জন্য ডাকা হলে সেই স্থানে তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক ধনঞ্জয় সরকার ও এলাকার বিজেপি সমর্থক শিবা বিশ্বাসের মধ্যে বিরোধ বাঁধে। জানা যাচ্ছে ধনঞ্জয়বাবু প্রতি বছর ২ লক্ষ ৪১ হাজার টাকার বিনিময়ে ওই ঘাটের লিজ পেতেন ।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

তবে এই বছরে শুরু থেকই এই ঘাট লিজ নেওয়াকে কেন্দ্র করে এই দুই দলের মধ্যে ঠান্ডা লড়াই শুরু হয়েছিল। তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ এদিন রাতে দলের কর্মী সমর্থকেরা নদীর ধারে বসে ছিলেন। সেই সময় শিবা বিশ্বাসের নেতৃত্বে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা তাঁদের উপর লাঠি নিয়ে হামলা করে। এতেই থেমে থাকেনি ঘটনাটা, জানা যাচ্ছে আক্রমন করার পরে শিবা বিশ্বাসের নেতৃত্বে ঐ আততায়ীরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত সকলকে ব্যাপক শারীরিক নির্যাতন করে। এর ফলে নঞ্জয় সরকার – সহ মোট তিনজন তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী আহত হন। বর্তমানে তাঁরা মালদহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে মালদহ জেলা যুব তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অম্লান ভাদুড়ি ব্লেলন, ”ওই এলাকায় বিজেপি জয়লাভের পর থেকে আমাদের কর্মীদের উপর অত্যাচার করছে বিজেপি। এদিনও আমাদের কর্মীদের মারধর করা হয়েছে। আমরা পুলিশকে জানিয়েছি। আইনের উপর আমাদের আস্থা আছে।” অন্যদিকে এই ঘটনার সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে জেলার বিজেপির সাধারণ সম্পাদক অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বললেন, ”বিজেপি মারধরের রাজনীতি করে না। শাসকদল এলাকা জুড়ে সন্ত্রাস করছে। এই ধরনের অভিযোগ ভিত্তিহীন।” উভয়পক্ষের কথা বার্তা শুনে মালদহের হবিবপুর থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!