এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মহারাষ্ট্রে বিজেপি সরকার গড়তে মোদীর ‘টোপের’ কথা ফাঁস করে দিলেন শরদ পাওয়ার

মহারাষ্ট্রে বিজেপি সরকার গড়তে মোদীর ‘টোপের’ কথা ফাঁস করে দিলেন শরদ পাওয়ার

সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে বড়সড় পরিবর্তন ঘটে যায়। এক রাতের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদারের মুখ বদলে যায়। পরবর্তীতে সুপ্রিমকোর্ট সম্পূর্ণ পরিস্থিতির হাল ধরে এবং মাত্র 80 ঘণ্টার মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ এবং উপমুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ারকে ইস্তফা দিতে হয়। পরবর্তীতে মুখ্যমন্ত্রীর পদ গ্রহণ করেন উদ্ধব ঠাকরে। শিবসেনা, এনসিপি ও কংগ্রেস এই তিন দল মিলে মহারাষ্ট্রে আগাড়ী সরকার গঠন করেছেন। তবে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর কুর্শি নিয়ে টানাটানির সময়ের বেশ কিছু কথা এবার এনসিপি সুপ্রিমো শরদ পাওয়ার সংবাদমাধ্যমের সামনে ফাঁস করে দিলেন। ক্ষমতা পেতে বিজেপি সরকার কি ধরনের টোপ দেয় তা অনেকাংশেই পরিষ্কার করে দিতে চাইলেন তিনি।

সোমবার সংবাদমাধ্যমের সামনে শরদ পাওয়ার বিস্ফোরক উক্তি করলেন। বিজেপি সম্পর্কে তিনি পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন ক্ষমতা পেতে গেলে তাঁরা কতদূর যেতে পারে শরদ পাওয়ার এদিন পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন। সরকার গড়ার জন্য এনসিপিকে সাথে থাকার প্রস্তাব দিয়েছিলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শুধু তাই নয়, শরদ পাওয়ারের মেয়ে সুপ্রিইয়া সুলেকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী করার টোপ দেওয়া হয়েছিল বলেও জানান তিনি। এই ঘটনা সামনে আসার পরেই রাজনৈতিক মহলের তীব্র আলোচনা শুরু হয়েছে।

এদিন মহারাষ্ট্রের একটি টিভি চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শরদ পাওয়ার জানিয়েছেন, ‘মোদি আমাকে বলেছিলেন, চলো একসঙ্গে কাজ করি। কিন্তু আমি তাঁকে বলি না সেটা সম্ভব নয়। তোমার সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভালো। তা যেমন রয়েছে তেমনই থাকবে। কিন্তু তোমার সঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয়।’ এমনিতে প্রত্যেকেরই জানা মহারাষ্ট্রের সরকার গঠনের দোলাচলের মাঝেই শরদ পাওয়ারের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীর একটি বৈঠক হয়। কিন্তু বৈঠকের কী আলোচনা হয়েছে সে সম্পর্কে স্পষ্ট কিছু জানা যায়নি আগে। সেসময়ে শরদ পাওয়ার জানিয়েছিলেন, কৃষকদের দুর্দশা সংক্রান্ত ব্যাপারে আলোচনার জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন।

সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক দোলাচলের মধ্যে একটি জল্পনা ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। শোনা যায়, বিজেপির তরফ থেকে শরদ পাওয়ারকে রাষ্ট্রপতি হওয়ার জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এদিন শরদ পাওয়ার সেই বিষয়েও পর্দা ফাঁস করলেন। তিনি জানিয়েছেন, ‘রাষ্ট্রপতি করার প্রস্তাব মোদি দেননি। তবে হ্যাঁ সুপ্রিয়াকে (শরদ পাওয়ারের মেয়ে সুপ্রিয়া সুলে) কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার শামিল করার প্রস্তাব অবশ্যই দিয়েছিলেন।’ তবে রাজনৈতিক মহলে একটি প্রশ্ন উঠেছে। তা হলো, শরদ পাওয়ার হঠাৎ করে সব কথা সংবাদমাধ্যমে ফাঁস করে দিলেন কেন? এর উত্তরে শরদ পাওয়ারের ঘনিষ্ট নেতারা জানিয়েছেন, পাওয়ার বরাবরই স্পষ্ট ভাষায় কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীকে স্পষ্ট ভাষায় উত্তর দেওয়ার পরেও বিজেপির পক্ষ থেকে অজিত পাওয়ারকে ভাঙিয়ে নিয়ে গিয়ে যে ধরনের রাজনৈতিক নাটকীয়তা তৈরি করেছে মহারাষ্ট্রে তা ভালো চোখে নেননি মারাঠা ভূমির স্ট্রং ম্যান শরদ পাওয়ার। হতে পারে সেই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শরদ পাওয়ার সবাইকে নরেন্দ্র মোদির প্রস্তাবের কথা জানিয়ে দিলেন। তবে রাজনীতিতে পোড় খাওয়া অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ বলেই পরিচিত শরদ পাওয়ার। তাই তাঁর কথা খুব সহজভাবে কেউ নেননা। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এই কথা বলে হয়তো উদ্ধব ঠাকরেকে পাওয়ার জানিয়ে দিলেন বিজেপির দরজা এনসিপি’র জন্য খোলা। রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে, উদ্ধব ঠাকরে মুখ্যমন্ত্রী হলেও মহারাষ্ট্রের চাবিকাঠি শরদ পাওয়ার নিজের হাতেই রাখতে চান।

তবে এই ঘটনায় চূড়ান্ত চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক মহলে। এমনিতেই মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক মহল পরপর রাজনৈতিক নাটকীয়তার ধাক্কায় পর্যুদস্ত। নতুন করে বিতর্ক তৈরি করলেন এবার শরদ পাওয়ার। ইতিমধ্যে অজিত পাওয়ার আবার এনসিপি দলে প্রবেশ করেছেন। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, অজিত পাওয়ার খুব সুচারুভাবে তাঁর ওপর ঝুলতে থাকা দুর্নীতির মামলাগুলিকে তিনি রাতারাতি সরিয়ে দিলেন। এবং রাজনৈতিক মহলের নিশ্চিত ধারণা এই ঘটনার পেছনে শরদ পাওয়ারের পরিকল্পনা থাকা কোনরকম আশ্চর্যের নয়। আপাতত মহারাষ্ট্রের পরিস্থিতি নতুন কোন আঙ্গিকে মোড় নিতে চলেছে সেদিকে লক্ষ্য রাখবে ওয়াকিবহাল মহল।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!