এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > এবার মাদ্রাসার দখল নিতেও তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে ব্যাপক বোমাবাজির অভিযোগ

এবার মাদ্রাসার দখল নিতেও তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে ব্যাপক বোমাবাজির অভিযোগ

বর্তমানে প্রায় যে কোনো নির্বাচনেই গোষ্টীদ্বন্দ্ব কাল হিসাবে দেখা গেছে শাসক তৃনমূলের অন্দরে। বুধবার মাদ্রাসার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রতুয়ায় ভগবানপুরে তৃনমূলের দুই গোষ্টীর বিবাদে চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হল এলাকায়। জানা যায়, রতুয়া 1 ব্লক তৃনমূল সভাপতি ফজজুল হকের সাথে সেই ব্লকেরই তৃনমূল চেয়ারম্যান মহম্মদ হেশামুদ্দিনের বিবাদ দীর্ঘদিনের। সম্প্রতি এই ভগবানপুর মাদ্রাসার নির্বাচনের  ঘোষনা হতেই দুই নেতার মধ্যে সেই লড়াই আরও চরমে ওঠে। ছটি আসনে তৃনমূলের দুই গোষ্টীর দুই নেতা নিজেদের অনুগামীকে দাড় করানোয় মনোনয়ন পর্বের দিন শুরু হয় চরম বোমাবাজি।

যার জেরে এক শিক্ষক এবং দুই গোষ্টীর 10 জন জখম হয়ে হাসপাতৃলে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। অন্যদিকে একজন শিক্ষিকাও এই বোমার শব্দ শুনে চরম অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে চাঁচল মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সজলকান্তি বিশ্বাস এসে দুপক্ষকেই শান্ত করে। এদিকে এই ঘটনায় একে অপরের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন শাসকদলের দুই গোষ্টীর দুই নেতা। এ প্রসঙ্গে রতুয়া 1 ব্লক তৃনমূলের সভাপতি ফজজুল হক বলেন, “আলোচনার মাধ্যমে প্রার্থী ঠিক করার চেষ্টা হলেও তা সফল হয়নি। আর এদিন কেউ বোমাবাজিও করেনি।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে অপরে গোষ্টী রতুয়া ব্লক তৃনমূলের চেয়ারম্যান মহম্মদ হেশামুদ্দিন বলেন, “আমি অসুস্থ। কি হয়েছে জানি না।” অন্যদিকে মাদ্রাসার বোর্ড গঠনে দুই গোষ্টীর নেতার গন্ডগোল প্রসঙ্গে মালদহ জেলা তৃনমূল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, “তৃনমূলের নামে দুটো প্যানেল পড়বে না। আর ঠিক কী হয়েছে তা স্থানীয় নেতৃত্বের কাছে রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে। যেই অশান্তি করুক, আইন অনুযায়ী ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।” সব মিলিয়ে এবার মালদহের মাদ্রাসার নির্বাচন ঘিরে তৃনমূলের দুই গোষ্টীর বিবাদে সরগরম জেলার রাজনীতি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!