এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > আসছে লোকসভা ভোট – দুই হেভিওয়েট নেতার বৈঠক ঘিরে জল্পনা শাসকদলের অন্দরে

আসছে লোকসভা ভোট – দুই হেভিওয়েট নেতার বৈঠক ঘিরে জল্পনা শাসকদলের অন্দরে

মা দুর্গার বিদায় বেলায় যখন বাংলার আট থেকে আশির মন ভারাক্রান্ত ঠিক তখনই কিছুটা আনন্দের পরিবেশ দেখা গেল কোচবিহার জেলা তৃণমূলের অন্দরে। তারা দুজনেই একই দলের প্রতিনিধি। একজন সাংসদ আর অপরজন জেলা সভাপতি তথা মন্ত্রী। এক কালে কাকা রবীন্দ্রনাথ ঘোষের সাথে ভাইপো পার্থপ্রতিম রায়ের সম্পর্ক ছিল খুবই মধুর। কিন্তু বিভিন্ন কারণে গত চার মাস ধরে তাদের সেই সম্পর্কে ফাটল ধরতে শুরু করে।

এমনকি বেশ কদিন আগে তাকে যেন কেউ কাকা বলে আর না ডাকে সে ব্যাপারেও মন্তব্য করে পরোক্ষভাবে পার্থপ্রতিম রায়ের দিকেই ইঙ্গিত ছুড়ে দিয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। আর শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে এই দুই নেতাকে মেলানোর হাজার চেষ্টা করলেও কোনো পরিবর্তন হয়নি অবস্থার। প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো কারণে একে অপরের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে ব্যস্ত থাকতেন তারা। কিন্তু অবশেষে মা দুর্গার বিদায় বেলায় সেই তারাই একে অপরের সাথে করলেন বিজয়া, হলো মিষ্টিমুখ।

সূত্রের খবর, গত সোমবারই কোচবিহার জেলা তৃণমূলের সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষের বাড়িতে মিষ্টি হাতে বিজয়ার প্রণাম সারতে যান জেলা যুব তৃনমূলের সভাপতি তথা সাংসদ পার্থপ্রতিম রায়। জানা গেছে, এদিন রাজনৈতিক দীক্ষাগুরু তথা কাকা রবীন্দ্রনাথ ঘোষের পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করেন ভাইপো পার্থপ্রতিম রায়। পাল্টা হাই রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ও অভিভাবকের মতো সেই পার্থপ্রতিম রায়ের মাথায় আশীর্বাদের হাত রেখে বলেন, “ভালো থেকো। সুস্থ থেকো। ভালো করে কাজ কর।”

আর বিপরীত দুই মেরুর দুই নেতার এহেন মিলনে অনেকেই লোকসভা ভোটকেই বড় করে দেখছেন। কেননা এখনই যদি নিজেদের মধ্যে সমস্ত বিবাদ মিটিয়ে না মানা যায় তাহলে অচিরেই যে জেলায় শাসক শিবিরে ভাঙ্গন ধরবে তা বুঝতে পেরেই এদিন কাকার বাড়িতে বিজয়া সারতে আসলেন সাংসদ তথা ভাইপো পার্থপ্রতিম রায়। তবে নিজেদের মধ্যে কোনদিনই যে কোনো দূরত্বই ছিল না এদিন সেই কথাই শোনা গেল জেলার দুই হেভিওয়েট নেতার গলায়। কাকার সাথে বিজয়া করার পর জেলা যুব তৃনমূলের সভাপতি তথা সাংসদ পার্থপ্রতিম রায় বলেন, “রবীন্দ্রনাথ ঘোষ আমার রাজনৈতিক দীক্ষাগুরু। আমার জীবনে তার অনেক অবদান রয়েছে। তাই প্রতিবারের মতো এবারও বিজয়ায় তার আশীর্বাদ নিতে এসেছি।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো  করুন এই লিঙ্কেখবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক

অন্যদিকে ভাইপোর প্রতি স্নেহমর্মিতা দেখিয়ে জেলা তৃণমূলের সভাপতি তথা রাজ্যের উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, “আমাদের মধ্যে কোনো দিনই দূরত্ব ছিল না পার্থ বিজয়া দশমীর প্রণাম করতে বাড়িতে আসে। এটাই তো আমাদের রীতি।” সব মিলিয়ে বিজয়া কে কেন্দ্র করে এবার কাছাকাছি আসলেন কোচবিহারের শাসকদলের দুই হেভিওয়েট নেতা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!