এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > লোকসভার লক্ষ্যে শুরু ঘুঁটি সাজানো – শাসকদলের অন্দরে বুথ কমিটির সম্প্রসারণের নির্দেশ

লোকসভার লক্ষ্যে শুরু ঘুঁটি সাজানো – শাসকদলের অন্দরে বুথ কমিটির সম্প্রসারণের নির্দেশ

১৯’ এর লোকসভা ভোটে বিজেপি হটাও কর্মসূচিতে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা অনেক দিন আগেই স্থির করে ফেলেছে শাসকদল। প্রস্তুতি পর্বও শুরু করা হয়েছে জোর কদমে। বিজেপিকে পদানত করার একেরপর এক রণকৌশল সহযোদ্ধাদের শিখিয়ে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই উদ্দেশ্যেই শাসকদলের অঞ্চল তথা বুথ কমিটি গুলোকে সম্প্রসারণের কাজে হাত দিয়েছে তৃণমূল।

বর্তমানে লাভপুরে তৃণমূলের আওতাধীন অঞ্চল এবং বুথ কমিটিগুলোকে সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। এমনটাই জানা গেল তৃণমূল ব্লক সভাপতি তরুণ চক্রবর্তীর তরফ থেকে। জানালেন,তৃণমূলের সংগঠনকে লোকসভা ভোটের আগে আরো পোক্ত করতে এবং সাধারণ মানুষ যাতে তৃণমূলের উন্নয়ণমূলক কর্মসূচিতে আরো বেশি করে যোগদান করতে পারে তার জন্যেই জেলা নেতৃত্বের নির্দেশ মেনেই অঞ্চল এবং বুথ কমিটিগুলল সম্প্রসারণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে কোনো একজন না দুজন নয়,সমবেতভাবে যৌথ উদ্যোগেই এই বুথ অঞ্চল সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তৃণমূল আসলে মা মাটি মানুষের সরকার,তাই মানুষের কথা ভেবেই মানুষের স্বার্থেই জনসংযোগ বৃদ্ধি করার পক্ষে সওয়াল তুললেন তিনি।

প্রসঙ্গত,জ্ঞানপীঠ সম্মানে ভূষিত প্রখ্যাত কথা সাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্মস্থান হিসাবেই বেশি পরিচিতি রয়েছে লাভপুর। রাজনৈতিক সক্রিয়তা এখানে তেমন ভাবে দেখা যায়নি। যখন বাম আমল ছিল,তখন তৎকালীন বিরোধী তৃণমূল কংগ্রেস অভিযোগ তুলেছিল শাসকদল সন্ত্রাসের রাজনীতি করছে। পরে রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের ফলে বামেদের অবসান ঘটিয়ে ক্ষমতা এসেছে তৃণমূল। রাজ্যের ক্ষমতা পরিবর্তনের সূত্র ধরে অনেক বাম নেতারাই তৃণমূলে নাম লিখিয়েছেন। এরপর ভুরি ভুরি অভিযোগও উঠেছিল দফায় দফায় অধুনা শাসকদলের বিরুদ্ধে। বিভিন্ন উন্নয়ণমূলক কাজকর্ম করলেও সন্ত্রাসমূলক কর্মকান্ডে নাম জড়ায় তৃণমূলেরও।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো  করুন এই লিঙ্কেখবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক

অভিযোগ,ভোট এল প্রচার কর্মসূচিতে তৃণমূল বাইক বাহিনী ছোটায় রাস্তায়,অগনতান্ত্রিক কাজকর্ম করে,এমনকি বিরোধী প্রার্থীদের ভয় এবং প্রলোভন দেখিয়ে দলত্যাগ করতেও বাধ্য করে তৃণমূল। সাধারণ মানুষকে আতঙ্কগ্রস্ত করে তোলে তৃণমূলের কার্যক্রম। কাজেই তৃণমূল উন্নয়ণের ঝান্ডা ওড়ালেও জনসংযোগ তৈরি করতে ব্যর্থ, এমনটাই বারবার অভিযোগ তুলে সমালোচনায় মুখর হয়েছে বিরোধীরা। তাই লোকসভা ভোটের আগেই বিরোধীদের যোগ্য জবাব দিতে আরো বেশি করে জনসংযোগ বাড়াতে শাসকদলের অঞ্চল এবং কমিটিগুলোকে সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তৃণমূল।

জনসংযোগ তৈরি করার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেই রণকৌশলে পরিবর্তন এনেছে তৃনমূল। তবে জেলা নেতৃত্ব এই দায়িত্ব কোনো নির্দিষ্ট একজনের হাতে না দিয়ে তিন সদস্যের এক কমিটি তৈরি করেছেন দায়িত্বটি কোনো ত্রুটি ছাড়াই সম্পন্ন করার লক্ষ্যে। এই কমিটিতে রয়েছেন ব্লক সভাপতি তরুণ চক্রবর্তী,জেলা সহাসভাপতি আব্দুল মান্নান এবং পঞ্চায়েত সমিতির সহসভাপতি শোভন চৌধুরী। আপাতত অঞ্চল এবং বুথ কমিটিগুলির সম্প্রসারণের কাজ নিয়েই চূড়ান্ত ব্যস্ততা রয়েছে লাভপুরের শাসকদলের শিবিরে,এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

Top
error: Content is protected !!