এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে আরো বড় অস্বস্তিতে বিজেপি? শরিক ‘বিদ্রোহে’ জল্পনা চূড়ান্ত

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে আরো বড় অস্বস্তিতে বিজেপি? শরিক ‘বিদ্রোহে’ জল্পনা চূড়ান্ত

আগামী বৃহস্পতিবার রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারপার্সন নির্বাচনে ফের সমস্যা মুখোমুখি বিজেপি দল। প্রসঙ্গত আকালি দলের এনডিএ জোট শরিকের পদ থেকে সদস্যপদ প্রত্যাহারের সম্ভবনা তৈরী হয়েছে। অন্তত এইরকমই আশঙ্কা করছে গেরুয়া শিবির। একা রাজ্যসভায় সংখ্যা গরিষ্ঠতা নেই এনডিএ জোটের। সেই কারণে বৃহস্পতিবার নির্বাচনের সাফল্য পেতে মধ্যপন্থা নিয়ে চলা দলগুলির সিদ্ধান্তের উপরে অনেকটাই নির্ভর করে রয়েছে গেরুয়া শিবির। এই অবস্থায় যদি আকালি দলের সমর্থন পাওয়া না যায় তাহলে রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারপার্সন পদ অনায়াসেই হাত ছাড়া হয়ে যাবে বিজেপি দলের।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

উল্লেখ্য গত মাসে লোকসভায় বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে আনা বিরোধীদের অনাস্থা প্রস্তাবের পরিস্থিতিতে আয়োজিত আস্থা ভোটে, এনডিএর শরিক শিবসেনা এবং বিজু জনতা দলের সমর্থন না থাকলেও এনডিএ জোটের পক্ষে জয়লাভ করার জন্যে পর্যাপ্ত সাংসদের সমর্থন ছিলো। কিন্তু রাজ্যসভার নির্বাচনের ক্ষেত্রে চিত্রটা অনেকটাই আলাদা। প্রথমত রাজ্যসভায় এনডিএ তথা বিজেপির হাতে পর্যাপ্ত সাংসদ সংখ্যক নেই। এবং দ্বিতীয়তঃ জোট শরিকদের মধ্যে বিবাদের পরিস্থিতি। এদিন রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারপার্সন নির্বাচনে আকালি দল ভোটদানে বিরত থাকবেন বলে জানিয়েছেন।

অন্যদিকে শিবসেনাও এনডিএ প্রার্থীকে ভোট দেবে না। উল্লেখ্য রাজ্যসভায় এই দুই দলেরই তিনজন করে সাংসদ রয়েছে। আকালি দলের এদিনের ঘোষণার পরে স্বভাবতই বিপাকে পড়েছে বিজেপি দল। রাজ্যসভায় ২৪৫ আসনের মধ্যে জয়ের জন্য ১২৩টি ভোট প্রয়োজন। সেখানে বিজেপি দলের ৬৯ জন সহ এনডিএ জোটে ৯২ জন সাংসদ রয়েছে। এখন ১২৩ টি ভোটের জন্যে বাকি থাকে আর ৩১ জন সাংসদের সমর্থন। এখন এই ৩১ টি ভোট কোন কোন শিবির থেকে বিজেপি পাবে সেই নিয়ে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা।

অন্যদিকে রাজ্যসভায় কংগ্রেসের সদস্য সংখ্যা ৫১। তৃণমূল কংগ্রেসের সদস্য সংখ্যা ১৩ জন। এরপরে অন্যান্য অবিজেপি দলঅগুলি যদি একজোট হয় তাহলে বিরোধী শিবিরের জয় নিশ্চিত। এখন দেখার বিষয় হলো এই যে এনডিএ জোট না অবিজেপি ফ্রন্ট ঐক্যবধতার নিরিখে কে বেশি এগিয়ে রয়েছে। রাজনৈতিক মহলের মতে রাজ্যসভার এই নির্বাচনই আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে সরকার পক্ষ এবং বিরোধী পক্ষ এই দুই শিবিরের প্রকৃত অবস্থানকে দেশবাসীর সম্মুখে তুলে ধরতে সাহায্য করবে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!