এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বিরোধীদের দখলে থাকা এই দুটি লোকসভা আসনে জয় কার্যত ‘নিশ্চিত’ তৃণমূল, প্রার্থী নিয়ে হতে পারে বড়সড় সিদ্ধান্ত

বিরোধীদের দখলে থাকা এই দুটি লোকসভা আসনে জয় কার্যত ‘নিশ্চিত’ তৃণমূল, প্রার্থী নিয়ে হতে পারে বড়সড় সিদ্ধান্ত

পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলের নিরিখে মালদহের দুটি লোকসভা আসনেই বিরোধীদের টেক্কা দিয়ে এগিয়ে তৃণমূল। এদের মধ্যে দক্ষিণ মালদা লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের মাটি পোক্ত বেশি। তুলনায় দক্ষিন মালদায় জয় হাসিল করতে হলে কিছুটা লড়াই করতে হতে পারে, এমনটাই পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলের নিরিখে রাজনৈতিকমহলের বিশ্লেষণে উঠে এসেছে।

তৃণমূলের ভোট ম্যানেজারদেরও মতামত এটাই। তবে সব দিক বিচার করে দেখলে উত্তরবঙ্গের এই দুই লোকসভা কেন্দ্রের আসন দখল করতে তেমন বেগ পেতে হবে না, এমনটাই দাবী তৃণমূল জেলা নেতৃত্বের। তবে জয় নিশ্চিত করতে বাড়তি সতর্কতার জন্যে দুটি আসনে প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিশেষ পদ্ধতি অবলম্বনের সম্ভাবনা রয়েছে তৃণমূলের।

জেলার বিরোধী শিবিরের দুই প্রথম সারির নেতা-নেত্রীরা জোড়াফুল শিবিরে চলে এসে তাঁদেরই লোকসভা ভোটের জন্যে প্রার্থী করা হবে। অথবা বাইরে থেকে প্রার্থী আনা হতে পারে, এমনটাই দলীয় সূত্রের খবর থেকে জানা যাচ্ছে। তবে কারা প্রার্থী হবেন এ নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়নি। এ ব্যাপারে সমস্ত সিদ্ধান্ত দলনেত্রী,দলের জেলা পর্যবেক্ষক নেবেন।

তবে কেউ কেউ এটা রটাচ্ছে যে উত্তর মালদায় বিজেপি বেশ শক্তি সঞ্চয় করেছে, কাজেই লড়াইটা সোজা হবে না৷ তবে এটা শাসকদলের কাছে কোনো সমস্যাই নয়। এমনটাই জানালেন তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যকরী জেলা সভাপতি দুলাল সরকার (বাবলা)। এবং মালদহের দুটি লোকসভা আসনেই যে জিতবে তৃণমূল, এব্যাপারে আত্মবিশ্বাস দেখিয়ে তিনি বললেন, ‘এখন শুধু নির্বাচন হওয়ার অপেক্ষা। এ জেলার একটি ভোটব্যাঙ্ক পঞ্চায়েত নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে আমাদের দিকে চলে আসার কথা কার্যত ঘোষণা করে দিয়েছে। সেই নির্ণায়ক ভোটব্যাঙ্ক আরও বেশি করে লোকসভাতে আমাদের পক্ষে আসবে।’

উল্লেখ্য, গত বিধানসভা ভোটে মুখ থুবড়ে পড়ার পর জেলার সংগঠনকে মজবুত করতে চেষ্টার কোনো খামতি রাখেনি তৃণমূল। খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জেলায় এসে জেলা কমিটি গঠন করে দিয়ে গিয়েছিলেন। সেই তালিকায় নতুন মুখ আসার পাশাপাশি বেশি কিছু হেভিওয়েট নেতারা বাদ পড়েছিলেন। তৃণমূল যে ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই শুরু করেছে জেলায়, সে ইঙ্গিত তখনই পেয়ে গিয়েছিলেন বিরোধীরা৷

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তারপর জেলা পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারী এবং সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মসূচিকে হাতিয়ার করেই পঞ্চায়েত নির্বাচনে তিনটি স্তরেই জেলা থেকে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় জয় ছিনিয়ে নেয় তৃণমূল। এই পঞ্চায়েত নির্বাচনেই কংগ্রেসকে টেক্কা দিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসতে দেখা গিয়েছে বিজেপিকে। তবে তৃণমূল বিজেপির মধ্যে আসনের ফারাক অনেকটাই লক্ষ্য করা গিয়েছে।

বিগত এই সব নির্বাচনী পরিসংখ্যানের বিচারে মালদহের এই দুটি লোকসভা কেন্দ্রে যে তৃণমূলের প্রভাব বেশি তাতে কোনো সংশয় নেই রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। বিরোধী শিবিরে থাকা দক্ষিণ মালদহের যে একটি লোকসভা ভোটে বড় ভোটব্যাঙ্ক তৃণমূলের দিকে ঝুকবে সে ইঙ্গিত যেমন পাওয়া গিয়েছে, তেমনি উত্তর মালদহে বিজেপি সঙ্গে লড়াই হলেও তা খুব একটা চ্যালেঞ্জের হবে না, এমনটাই দাবী তৃণমূলের।

তবে তৃনমূলের এ দাবীকে তেমন গুরুত্ব দিলেন না বিজেপি’র জেলা সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র। তাঁর বক্তব্য, মালদহের দুটি আসনেই এবার মানুষ বিজেপিকে সমর্থন করবে, এমনটাই ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে। পঞ্চায়েত নির্বাচনে লড়াই করে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসে বিজেপি তার শক্তির প্রদর্শন করেছে৷ ১৯’এর লোকসভা ভোটে আরো একধাপ এগিয়ে এই দুটি লোকসভা কেন্দ্র থেকে জয় ছিনিয়ে নেবে বিজেপি,এমনটাই আশা তাঁর।

সঞ্জিত মিশ্র বিরোধীদের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে এটাও জানালেন, “কংগ্রেস বা তৃণমূলের স্বপ্ন দেখতে কোনও অন্যায় নেই। কিন্তু বাস্তবে জয় আমাদেরই হবে।” অন্যদিকে,জেলা কংগ্রেস সভাপতি মৌসম বেনজির নুর জানান, পঞ্চায়েত নির্বাচনের নিরিখে কোনো সিদ্ধান্তে আসা সঠিক নয়। লোকসভা ভোটে বাজি পাল্টে যাবে। এজেলার মানুষ লোকসভা নির্বাচনে আমাদের দলীয় প্রার্থীদের উপর ভরসা রেখে এসেছেন। এবারও তাঁরা সেই ভরসা রাখবেন। পঞ্চায়েত পরবর্তী বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে সেই ইঙ্গিতই পেয়েছে কংগ্রেস।

এখন গৌরবঙ্গের এই দুটি গুরুত্বপূর্ণ লোকসভা কেন্দ্র কোন দলের দখলে আসবে, তা নিয়ে দড়ি টানাটানির খেলায় মেতেছে শাসক বনাম বিরোধীরা৷ লোকসভা ভোট পর্যন্ত এরকম পরিস্থিতি অব্যাহত থাকবে বলেই মনে করছে অভিজ্ঞমহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!