এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > লকডাউন সত্ত্বেও রাস্তায় জনতার ভিড়, কবে হুশ ফিরবে?

লকডাউন সত্ত্বেও রাস্তায় জনতার ভিড়, কবে হুশ ফিরবে?

করোনা ভাইরাসকে আটকাতে লকডাউন করা হয়েছে গোটা রাজ্য। অর্থাৎ, ভাইরাস যাতে সংক্রমিত না হয়, তার জন্য মানুষকে গৃহবন্দী রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। যেখানে লকডাউনের সিদ্ধান্ত না মানা হলে কড়া আইন বলবৎ করার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

কিন্তু সোমবার বিকেল পাঁচটা বাজার সঙ্গে সঙ্গে লকডাউন রাজ্যে জারি হলেও, তাকে কেয়ার করলেন না অনেকেই। উল্টে স্বাভাবিক অন্যান্য দিনের মতই রাস্তায় থাকতে দেখা গেল আমজনতাকে। পুলিশকর্মীদের সামনে দিয়েই বাইক নিয়ে দাপাদাপি, চায়ের ঠেকে আড্ডা রীতিমত সেই সমস্ত মানুষদের বিবেক নিয়ে তুলে দিল প্রশ্ন।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

যেখানে বারবার বলা হচ্ছে, বেশি জমায়েত করবেন না। আর তার কারণেই করা হল লকডাউন। সেখানে কিছুদিনের জন্য গৃহবন্দী থাকতে অসুবিধা কোথায়! ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে এই লকডাউন ভাঙলে কি করা হবে, তা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। সোমবার এই ব্যাপারে টুইট করে পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা তাদের মতামত স্পষ্ট করেছেন।

বিভিন্ন জায়গায় প্রশাসনের তরফে অডিও বার্তার মধ্য দিয়ে বলা হচ্ছে সরকারের এই সিদ্ধান্তকে মান্যতা দিতে। কিন্তু কিসের কি কিছু কিছু মানুষ এখনও পর্যন্ত সচেতন নন। কারও কারও ভাবগতি দেখে এমন মনে যাচ্ছে যে, তারা জীবনে তাদের বাড়িতেই থাকেননি।

তবে সাধারণ মানুষের মধ্যে যদি বিন্দুমাত্র সচেতনতা না আসে, তাহলে এত কড়া আইন এনেও কোনো লাভ হবে কি! এখন তা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন বিশেষজ্ঞরা। পুলিশের পক্ষ থেকে অবশ্য দাবি করা হচ্ছে, প্রথম দিন লকডাউনে সামান্য ত্রুটি বিচ্যুতি দেখা গেলেও, মঙ্গলবার থেকে রাস্তা থাকবে শুনশান এবং সাধারণ মানুষকে নিরাপদে রাখতে প্রশাসন প্রয়োজনে কঠোর হতে বাধ্য হবে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!