এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > লকডাউনে পাওয়া যাবে রেশন? কি বলছে রাজ্য! জেনে নিন!

লকডাউনে পাওয়া যাবে রেশন? কি বলছে রাজ্য! জেনে নিন!


রবিবার জনতা কার্ফুর দিন লকডাউনের বিজ্ঞপ্তি জারি হতে না হতেই রীতিমতো শোরগোল পড়ে যায় রাজ্যজুড়ে। একেই রবিবার বন্ধ। তার ওপর সোমবার বিকেল পাঁচটার মধ্যে প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে নিতে হবে। কিন্তু রেশন থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় জিনিস যদি লকডাউনের মধ্যে না পাওয়া যায়, তাহলে তো চরম সঙ্কটের মুখে পড়বে রাজ্যবাসী! আর এই ভাবনা চিন্তা করতে করতে যখন সকলের মাথায় হাত, ঠিক তখনই বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, কি কি খোলা থাকবে! যার মধ্যে ছিল রেশন দোকান।

কিন্তু রাজ্য লকডাউন হওয়ার পর সেই রোশন দোকান সহ অন্যান্য অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আদৌ পাওয়া যাবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় রয়েছেন প্রত্যেকেই। আর এই পরিস্থিতিতে সোমবার এই ব্যাপারে খাদ্যশ্রী ভবনে দুই দফায় বৈঠক করেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। যেখানে প্রথম দফায় রান্নার গ্যাস, কেরোসিনের ডিলার এবং এজেন্টদের নিয়ে বৈঠক করা হয় এবং দ্বিতীয় দফায় রেশন ডিলার ও ডিস্ট্রিবিউটরদের সংগঠনের সঙ্গে বৈঠক করেন খাদ্যমন্ত্রী। আর এরপরই রেশন নিয়ে সাধারন মানুষের চিন্তা দূর করেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তিনি জানিয়ে দেন, আগামী 31 মার্চ পর্যন্ত সমস্ত রেশন দোকান প্রতিদিন খোলা রাখতে ডিলাররা রাজি হয়েছেন। তবে একটি রেশন দোকানে ব্যাপক পরিমাণে ভিড় যাতে না হয়, তার জন্য গ্রাহকদের এলাকা ভাগ করে রেশন সামগ্রী দেওয়ার ব্যাপারে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বলে খবর।

তবে শুধু রেশন নয়, রাষ্ট্রায়ত্ত পেট্রলপাম ডিলারদের সংগঠনকেও সকাল সাতটা থেকে রাত সাতটা অব্দি পেট্রোল পাম্প চালু রাখার অনুরোধ করা হয়েছে রাজ্য সরকারের তরফে। তবে গ্যাস সিলিন্ডার সরবরাহের ক্ষেত্রে এখন আর গ্যাস সিলিন্ডার দিতে আসা ব্যক্তিরা বাড়ির ভেতরে তা নিয়ে যাবেন না। বাইরে দরজা থেকেই তা নিয়ে যেতে হবে গ্রাহকদের। কিন্তু রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে রেশন দোকান সহ অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবা চালুর জন্য কড়া বার্তা দেওয়া হলেও, অনেক জায়গাতেই গলদ থাকতে পারে এবং এই ব্যাপারে সমস্যায় পড়তে পারেন একাংশ বলে মনে করছেন অনেকে।

তবে কারোর যাতে এই ব্যাপারে কোনো সমস্যা না হয়, তার জন্য লকডাউন চলার সময়েও খাদ্যশ্রী ভবনে উপস্থিত থাকবেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলে জানা গেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাজ্য লকডাউন হয়েছে। কিন্তু অত্যাবশ্যকীয় পণ্য পরিষেবা চালু থাকবে। তবে সেই পরিষেবা চালু থাকতেও, যাতে কেউ অসুবিধেয় না পড়েন, তার জন্যই রাজ্য সরকারের এই পদক্ষেপ বলে মত ওয়াকিবহাল মহলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!