এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > জমে আছে অনেক ‘গাঁজা কেসের’ রাগ, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সামাল দেওয়াই বড় চ্যালেঞ্জ কাল প্রশাসনের

জমে আছে অনেক ‘গাঁজা কেসের’ রাগ, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সামাল দেওয়াই বড় চ্যালেঞ্জ কাল প্রশাসনের

নির্বাচনী প্রচারের সময় তো বটেই, নির্বাচনের আগে থেকেই মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষের মত গেরুয়া শিবিরের শীর্ষ নেতারা বারবার করে দাবি করে এসেছেন, পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ নাকি দলদাসে পরিণত হয়েছে। আর তাই রাজ্য জুড়ে বিজেপির উত্থান ঠেকাতে তৃণমূলী নেতাদের নির্দেশে বিজেপি কর্মীদের মিথ্যা ‘গাঁজা কেসে’ ফাঁসিয়ে জেলে পোড়া হচ্ছে। গেরুয়া শিবিরের শীর্ষ নেতাদের এই কথার সমর্থন মিলছে নিচুতলার কর্মীদের কথাতেও। আর তাই, কার্যত গেরুয়া শিবিরের কর্মী-সমর্থকরা ফুঁসছেন।

তাঁরা এতদিন অপেক্ষায় ছিলেন ‘সঠিক সময়ের’, বারেবারেই নিজেদের বক্তব্য রাখতে গিয়ে গেরুয়া শিবিরের নেতারা পুলিশ আধিকারিকদের দিকে হুঁশিয়ারি ছুঁড়ে দিয়ে জানিয়েছেন, সরকার আসে, সরকার যায় – কিন্তু পুলিশ কর্তাদের সরকারি চাকরি করে যেতেই হয়। তাই এইভাবে ‘দলদাস’ না হয়ে, নিজেদের কাজটি সঠিকভাবে করেন। কিন্তু, গেরুয়া শিবিরের অন্দরে কান পাতলে শোনা যাচ্ছে, সেই সাবধানবানীর পরেও, অবস্থার বিশেষ পরিবর্তন হয় নি। বাংলা জুড়ে ‘গাঁজা কেসের’ ধারা নাকি অব্যাহত!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

এদিকে, গত ১৯ তারিখ ভোটগ্রহণ পর্ব মিটতেই বিভিন্ন সংস্থার করা এক্সিট পোল অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে, তৃণমূল নেত্রীর ৪২ এ ৪২ বা প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্নকে দুরমুশ করে বাংলায় দুরন্ত ফলাফল করতে চলেছে গেরুয়া শিবির। যদিও, এর মান্যতা পাওয়া যাবে আগামীকাল ইভিএম বাক্স খুললে তবেই। কিন্তু, এক্সিট পোলের ভিত্তিতেই রীতিমত চাঙ্গা গেরুয়া শিবির। পদ্ম শিবিরের অন্দরে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে একসুরের রিংটোন, সঠিক সময় আসিয়া গিয়াছে! আর তাই, ‘গাঁজা কেস’ খাওয়া বিজেপি নেতা-কর্মীরা রীতিমত ফুঁসছেন।

তাঁদের মনের কথা যেন, একবার শুধু ফলাফলটা মিলতে দিন, অনেক দিনের অনেক বঞ্চনার জবাব হতে চলেছে এই ফলাফল! আর তাই, রীতিমত চিন্তার ভাঁজ পড়তে চলেছে প্রশাসনিক কর্তাদের কপালে। কেননা, আগামীকালের ফলাফলের পর কোথাও কোথাও আনন্দ বা হতাশার বহিঃপ্রকাশ মাত্রা ছাড়াতে পারে। ফলে, গণনা পরবর্তী আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সুষ্ঠু রাখাই প্রশাসনের কাছে বড়সড় চ্যালেঞ্জ হতে চলেছে। দিকে দিকে তাই একটাই আবেদন, ফলাফল যাই হোক আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না। গণতান্ত্রিক দেশে গণতন্ত্রের উপরেই আস্থা রাখুন।

Top
error: Content is protected !!