এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > স্থানীয় তৃণমূল নেতা গ্রেপ্তার হতেই অনুগামীদের তান্ডব থানায় ঢুকে – উত্তেজনা থেকে লাঠিচার্জ, উত্তপ্ত শিবপুর

স্থানীয় তৃণমূল নেতা গ্রেপ্তার হতেই অনুগামীদের তান্ডব থানায় ঢুকে – উত্তেজনা থেকে লাঠিচার্জ, উত্তপ্ত শিবপুর

ফের উত্তেজনা ছড়ালো হাওড়ার শিবপুরে। তৃণমূল-পুলিশ সংঘর্ষে রীতিমতো রণক্ষেত্রের পরিস্থিতি তৈরি হয় এলাকায়। স্থানীয় তৃণমূল নেতার গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ করতেই তান্ডব চালালো দলীয় সমর্থকরা। প্রায় আধঘন্টা ধরে জিটি রোডে তাঁরা অবরোধ কর্মসূচি চালালো।

অবরোধ তুলতে গেলে পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয় বিক্ষোভকারীদের। শেষ পর্যন্ত লাঠিচার্জ করে অবরোধ তুলতে হয় পুলিশকে। জাতীয় সড়ক অবরোধ কর্মসূচির জেরে যাটজটের মুখে পড়েন নিত্যযাত্রীরা। এখনো থমথমে অবস্থা এলাকায়। নিরাপত্তার প্রয়োজনে মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

পুলিশ সূত্রের খবর থেকে জানা যায়, এদিন রাত সাড়ে বারোটা নাগাদ শিবপুরের ঘিঞ্জি বসতি এলাকায় ৩ নম্বর জিসিআরসি ঘাট রোডে এক ব্যবসায়ীর বাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুষ্কৃতিরা। একনাগাড়ে চলে বোমাবাজিও। জানালার কাঁচ ভেঙে আহত হন ব্যবসায়ী শাহিদ কুরেশি-সহ তাঁর পরিবারের বেশ কয়েকজন সদস্য।

পরিস্থিতির ভয়াবহতা এতোটাই বেশি ছিল যে আতঙ্কে রাস্তায় চলে আসতে হয়েছে এলাকার অন্যান্য বাসিন্দারা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পৌছায় শিবপুর থানার পুলিশ, নামানো হয় র‍্যাফ। গোটা ঘটনাই রাস্তার সিসিটিভি ক্যামারায় রেকর্ড হয়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, আক্রান্ত ব্যবসায়ী শাহিদ কুরেশি প্রোমোটিংয়ের সঙ্গে যুক্ত। তৃণমূল নেতা হিসাবে পরিচিতিও রয়েছে তাঁর এলাকায়। প্রমোটিং নিয়ে ঝামেলার কারণেই শাসকদলের নেতা শামিম আহমেদ এবং তাঁর সঙ্গীরা, এমনটাই অভিযোগে জানান আক্রান্ত ব্যবসায়ী।

এই শামিম আবার সম্পর্কে স্থানীয় কাউন্সিলর শামিম বানোরও স্বামী।এদিনের ঘটনার পর শামিম আহমেদের বিরুদ্ধে শিবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন আক্রান্ত ব্যবসায়ী। অভিযোগ দায়ের করার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ফের চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে শিবপুরে।

ধৃত তৃণমূল নেতাকে অবিলম্বে মুক্ত করার দাবী তুলে থানায় রীতিমতো তান্ডব চালান তাঁর দলবলেরা। জিটি রোড অবরোধ করেও শোরগোল ফেলে দেয় এলাকায়। পরিস্থিতি এতোটাই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় যে বাগে আনতে লাঠিচার্জ করতে হয় পুলিশকে।

অন্যদিকে, এদিন সকালে ব্যাডমিন্টন খেলাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায় কলকাতার মুচিবাজারেও। চত্বরের অলিগলিতে ঢুকে সন্ত্রাস ছড়ায় দুষ্কৃতিরা। এলাকার একাধিক বাড়ি এমনকি বিয়েবাড়িও হামলা চালায় তারা। এই ঘটনায় দুজনকে পাকরাও করেছে পুলিশ।

আপনার মতামত জানান -
Top