এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > গনি-মিথ ও বাম ভোটের স্যুইংয়ের অংকে মালদা দক্ষিণের সব সমীকরণ নির্ভর করছে, আশায় সব পক্ষই

গনি-মিথ ও বাম ভোটের স্যুইংয়ের অংকে মালদা দক্ষিণের সব সমীকরণ নির্ভর করছে, আশায় সব পক্ষই

প্রয়াত কংগ্রেস নেতা বরকত গনি খান চৌধুরীর গড় বলেই পরিচিত মালদা জেলা। কিন্তু এবারের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের দখলে থাকা এই মালদহের দুটি লোকসভা কেন্দ্র আদৌ হাত শিবির ধরে রাখতে পারে কি না তা নিয়ে বিভিন্ন মহলেই শুরু হয়েছে জোর বিশ্লেষণ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

কেননা গত 2014 সালের লোকসভায় এই মালদহ জেলার দুটি লোকসভা কেন্দ্র কংগ্রেস নিজেদের দখলে রাখলেও তারপর থেকেই এই জেলার বিভিন্ন জায়গায় নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক শক্ত করতে শুরু করে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। অন্যদিকে প্রয়াত কংগ্রেস নেতা বরকত গনি খান চৌধুরীর স্মৃতিকে জিইয়ে রেখে ভোটে লড়ছে কংগ্রেস। পাশাপাশি কংগ্রেসের কিছুটা সুবিধা করে দিতে বকলমে এখানে প্রার্থী না দিয়ে কংগ্রেসকেই সমর্থন করছে বামেরা। ফলে বামেদের দখলে যে ভোটব্যাঙ্ক রয়েছে, তা ঠিক কোন দিকে যায় সেদিকেই এখন নজর গোটা রাজনৈতিক মহলের।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের অনেকেই বলছেন, মালদহে দীর্ঘদিন ধরেই প্রয়াত কংগ্রেস নেতা গনি খান চৌধুরীর নামে কংগ্রেস সেখানে ভোট চেয়ে আশায় সাধারণ মানুষ মন প্রাণ উজাড় করে কংগ্রেসকে সমর্থন দিয়েছে। কিন্তু সেই গনি ম্যাজিক আর কতদিনই বা টিকে থাকবে! কেননা সব কিছুরই একটা সময় সীমা থাকে। আর দিনকে দিন কংগ্রেসের সংগঠন তাই এখানে ধ্বসে যেতে বসেছে। কিন্তু এই দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রে বামেরা কার্যত নিষ্ক্রিয় থাকায় সেই বামেদের ভোটব্যাঙ্ক কংগ্রেসের দিকে আসলে হাত শিবির এখানে জয় পাবে বলে অংক কষতে শুরু করেছে প্রদেশ কংগ্রেসের নেতারা।

কিন্তু সেই সম্ভাবনা কতটা উজ্জ্বল হবে তা নিয়ে সংশয়েও রয়েছেন অনেকে। অন্যদিকে এই দক্ষিণ মালদহে দিনকে দিন শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের জনসমর্থন বৃদ্ধির ঘটনাও চিন্তা বাড়াচ্ছে বিরোধীদের। তবে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী সব পক্ষই। এদিন এই প্রসঙ্গে মালদহ জেলা কংগ্রেসের সভাপতি মোস্তাক আলম বলেন, “প্রয়াত গনি খান চৌধুরীর হাতে গড়া এই কেন্দ্রের মানুষ কংগ্রেসকে কখনো ফেরায়নি। তাই আমাদের প্রার্থী আবু হাসেম খান চৌধুরীর জয় নিয়ে এবার কোনো প্রশ্ন নেই।”

অন্যদিকে এই প্রসঙ্গে দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী তথা মালদহ জেলা তৃণমূল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, “বরকতদার একাংশ কাজও কংগ্রেস এখানে করেনি। তিনি যে উন্নয়নের করেছিলেন সেই পথে হেটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্য তথা মালদহে উন্নয়নের জোয়ার নিয়ে এসেছেন। ফলে মানুষ এখানে তৃণমূলের পাশেই থাকবে।”

এদিকে গোটা দেশজুড়ে মোদিজীর নেতৃত্বে যেভাবে উন্নয়ন হচ্ছে, এবার মালদাতেও তৃণমূলের ভোট লুট ও কংগ্রেসের কাজ না করার রাজনীতির বিরুদ্ধে মানুষ বিজেপিকে ভোট দেবে বলে জানান বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী। এদিকে দক্ষিণ মালদহে তাদের কোনো প্রার্থী না থাকলেও তৃণমূল ও বিজেপি বিরোধী ধর্মনিরপেক্ষ শক্তিকে ভোট দেওয়ার কথা তারা জানিয়েছেন বলে জানান মালদহ জেলার সিপিএমের সম্পাদক অম্বর মিত্র।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, মালদহ জেলা এতদিন কংগ্রেসের দখলে থাকলেও এবার সেখানে তৃণমূলের অনেকটাই বাড়বাড়ন্ত দেখা গেছে। তবে তৃণমূল ও বিজেপির বিরুদ্ধে কংগ্রেসকে সুবিধা করে দিতে পারে বামেদের তরফে কোনো প্রার্থী না দেওয়ায় সেই বাম ভোট কংগ্রেসের দিকে যায় কিনা, এবং শেষ হাসি কে হাসে এখন তা দেখবার জন্য অপেক্ষা করতেই হবে আগামী 23 মে পর্যন্ত।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!