এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বাম-তৃণমূল যুদ্ধের মাঝেই কুপোকাত বিজেপি, স্বস্তি তৃণমূলের!

বাম-তৃণমূল যুদ্ধের মাঝেই কুপোকাত বিজেপি, স্বস্তি তৃণমূলের!

Priyo Bandhu Media


গত লোকসভায় উত্তরবঙ্গে বিজেপির ফলাফল দেখে অনেকে মনে করেছিল, সামনে যেদিন আসছে, সেদিন উত্তরবঙ্গে পদ্মফুলের আরও বাড়বাড়ন্ত দেখা যাবে।তবে পদ্মের বোঁটা যদি শক্তিশালী না হয়, তাহলে সে পদ্ম যে দীর্ঘস্থায়ী হয় না, তা প্রমাণ করে দিল তৃণমূল কংগ্রেস। সামনেই পৌরসভা নির্বাচন। দীর্ঘদিন ধরেই শিলিগুড়ি পৌরসভা বামেদের দখলে রয়েছে। এবার সেই পৌরসভা দখলের জন্য একদিকে যেমন চেষ্টা শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস, অন্যদিকে উত্তরবঙ্গে গত লোকসভায় ভালো ফল করে বিজেপিও এই পৌরসভা দখলের ব্যাপারে প্রবলভাবে আশাবাদী। তবে কে পৌরসভা দখল করবে, তা ভোটবাক্স খোলার পরেই বোঝা যাবে। কিন্তু রাজনৈতিক পরিস্থিতি বা গতিপ্রকৃতি যে দিকে এগোচ্ছে, তাতে শিলিগুড়িতে এবার তৃণমূল যে বিজেপিকে পেছনে ফেলে অনেকটাই শক্তিশালী হল, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা।

বার্ধক্যভাতা দেওয়ার ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বাম পরিচালিত পৌরসভার অস্থিরতা ইতিমধ্যেই বাড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর এবার বিজেপির ঘর ভাঙতে সক্ষম হল তারা। সূত্রের খবর, শুক্রবার শিলিগুড়ির গেট বাজার এলাকায় বিজেপির যুব মোর্চার দুই নেতা সহ 75 জন নেতা-কর্মী বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেন। এদিন তাদের হাতে তৃণমূলের পতাকা তুলে দেন দার্জিলিং জেলা যুব তৃনমূলের সভাপতি বিকাশ সরকার। আর পৌরসভা নির্বাচনের আগে বিজেপির যুব মোর্চার 6 নম্বর মণ্ডলের নেতা সৌরভ নিয়োগী ও অনিকেত দাসের নেতৃত্বে ব্যাপক বিজেপি নেতা কর্মীর তৃণমূলে যোগদান বিজেপিকে চাপে ফেলে দিল বলে দাবি রাজনৈতিক মহলের।

এদিন বিজেপির এই ব্যাপক সংখ্যক নেতা কর্মীদের নিজেদের দলে যোগদান করিয়ে রীতিমত আত্মপ্রত্যয়ী হতে দেখা গেছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বকে। এই প্রসঙ্গে জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি বিকাশ সরকার বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়ন এবং বিভেদের রাজনীতির প্রতিবাদে সৌরভ এবং অনিকেতরা তৃণমূল যুব কংগ্রেসে সামিল হয়েছেন। তাদের মত আরও অনেকে আমাদের সংগঠনে আসবেন। ইতিমধ্যেই কয়েকজনের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে।” তবে তৃণমূল এই ব্যাপারে উজ্জীবিত হলেও, তাতে গুরুত্ব দিতে নারাজ ভারতীয় জনতা পার্টি।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলা বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতি কাঞ্চন দেবনাথ বলেন, “গত লোকসভা ভোটের আগেই সৌরভ এবং অনিকেত নিষ্ক্রিয় হয়ে পরেছিল। বেশ কিছুদিন আগে সৌরভকে মণ্ডল কমিটির সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। সংগঠনের সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক ছিল না। কাজেই তিনি এবং অনিকেত তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় আমাদের কোনো ক্ষতি হবে না।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ড্যামেজ কন্ট্রোল করতেই বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি এহেন কথা বলছেন। কেননা নির্বাচনের মুখে যদি এই দলবদল নিয়ে তার কপালে চিন্তার ভাঁজ দেখা যায়, তাহলে তাদের অন্যান্য কর্মীরা অত্যন্ত ভীত, সন্ত্রস্ত হয়ে পড়বেন। সেদিক থেকে এই দলবদলের ব্যাপারটিকে গুরুত্ব দিতে বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতি নারাজ থাকলেও, গোটা ব্যাপারে যে তারা অত্যন্ত চাপে রয়েছে, তা পরিষ্কার হয়ে গেছে পর্যবেক্ষকদের কাছে। সব মিলিয়ে লোকসভার সময় উত্তরবঙ্গে বিজেপির অবস্থান ভালো থাকলেও, পৌরসভা নির্বাচনের আগে দলের নেতাকর্মীদের তৃণমূলে যোগদান কতটা অস্বস্তিতে ফেলে গেরুয়া শিবিরকে, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!