এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বাম ঐক্যে বড়সড় ফাটল? শরিকি দলের “কঠিন” পদক্ষেপে অস্বস্তিতে সিপিএম

বাম ঐক্যে বড়সড় ফাটল? শরিকি দলের “কঠিন” পদক্ষেপে অস্বস্তিতে সিপিএম

একেই তো সংগঠনে ধস অব্যাহত। তার ওপরে এবার বিজেপি বিরোধী আন্দোলন নিয়েও মতানৈক্য বামেদের অন্দরে। সূত্রের খবর, পেট্রোপন্যের মূল্যবৃদ্ধি, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি, কৃষকের ফসলের দাম না পাওয়া, বেকারের কর্মসংস্থান, রাফাল কেলেঙ্কারি সহ বিভিন্ন ইস্যুতে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে আগামী সোমবার দেশজুড়ে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন কংগ্রেস এবং বাম দলগুলি।

একই দিনে ধর্মঘট হলেও ভিন্ন ভিন্ন কর্মসূচী নিয়েছে বাম এবং কংগ্রেস। সকাল 9 টা থেকে বিকেল 3 টে এই ছঘন্টা কংগ্রেসের বনধ এবং অন্যদিকে টানা 12 ঘন্টার বনধের ডাক দিয়েছে বামফ্রন্ট। কিন্তু সারা দেশে এক চিত্র হলেও ব্যাতিক্রম এই বাংলা। বিজেপি বিরোধী হলেও রাজ্যে বনধ যে তিনি বরদাস্ত করবেন না তা স্পষ্ট ভাষাঢ় জানিয়ে দিয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর এই ইস্যুকে হাতিয়ার করে পথে নেমেছে সিপিএম। এ প্রসঙ্গে এদিন সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, “মুখে বিজেপি বিরোধীতা করলেও আসল পরীক্ষার সময় তৃনমূলের চরিত্র বোঝা যায়। যারা কেন্দ্রীয় নীতির বিরোধী তাঁরা রাস্তায় নামবে।” কিন্তু তৃনমূল রাস্তাতে না নামলেও বাম শরিক ফরওয়ার্ড ব্লকও তো এই বনধে সামিল হতে চাইছে না! তাহলে এই ব্যাপারে কি বলবেন সূর্যবাবুরা? দলেরই ভেতরে শরিক সংগঠন যদি এইভাবে বেকে বসে তাহলে অন্যকে দোষ দিয়ে লাভ কি?

এ প্রসঙ্গে সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, “হরতাল ডাকা নিয়ে একটা সমস্যা তৈরি হয়েছিল। তবে ওরা ধর্মঘটের বিরোধীতা করবে এটা শুনিনি।” এদিকে প্রথমে বিরোধীতা করলেও পরে ড্যামেজ কন্ট্রোলে নামে ফরওয়ার্ড ব্লকও। এ প্রসঙ্গে ফরওয়ার্ড ব্লকের রাজ্য সম্পাদক তথা কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা নরেন চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আমরা হতালের বিরুদ্ধে নই। কিন্তু এই কর্মসূচী নিয়ে বাম দলগুলির মধ্যে সমন্বয়ের অভাব দেখা দেওয়ায় আমরা এই প্রতিবাদে অংশ নেব না বলে ঠিক করেছি।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিকে এই কর্মসূচীর ব্যাপারে সিপিএমের সীতারাম ইয়েচুরি বাম শরিক তথা এই ফরওয়ার্ড ব্লকের সাধারন সম্পাদক দেবব্রত বিশ্বাসের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তাঁকে পাওয়া না যাওয়ায় এই মতানৈক্যের সৃষ্টি হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। তবে যে যাই মনে করুক না কেন! বিজেপি বিরোধীতায় তৃনমূল বনধকে সমর্থন না করায় তাঁদেরকে খোঁচা দিলেও এই কর্মসূচীকে ঘিরে বামদের ঐক্যে ফাটল মজবুত করতে এখন প্রবল চিন্তায় আলিমুদ্দিন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!