এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বাম ও কংগ্রেসের বিরোধী ভোট “স্যুইং” করছে বিজেপির বাক্সে, চিন্তা আরও বাড়ছে তৃণমূলের?

বাম ও কংগ্রেসের বিরোধী ভোট “স্যুইং” করছে বিজেপির বাক্সে, চিন্তা আরও বাড়ছে তৃণমূলের?

লোকসভা নির্বাচনের অনেক আগে থেকেই রাজ্যে বাম এবং কংগ্রেসকে সরিয়ে প্রধান বিরোধী দলের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে দেখা গেছে বিজেপিকে। আর তাই এবার নির্বাচনের দামামা বাজার সাথে সাথেই রাজ্যে সেই বাম এবং কংগ্রেসের বিরোধী ভোটব্যাঙ্ক অনেকটাই বিজেপির দিকে চলে যেতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করতে শুরু করল রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

আর রাজনৈতিক মহলের এহেন আশঙ্কাতেই সীলমোহর দিয়ে এবার কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়তে শুরু করেছে শাসক দলের নেতাদের। ইতিমধ্যেই বাম এবং রামের মধ্যে গোপন সমঝোতার অভিযোগ তুলে বাম ও কংগ্রেসের সমস্ত ভোট যাতে বিজেপিতে যেতে না পারে তার জন্য সকলের কাছে আবেদন জানাতেও দেখা গেছে তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। কারণ এই বিরোধী ভোট যদি বিজেপির দিকে চলে যায় তাহলে অনেকটাই বিপাকে পড়তে হতে পারে তৃণমূলকে।

প্রসঙ্গত, বিগত তিন বছর আগে গত 2014 সালে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন হয়ে গেছে। আর সেখানে তৃণমূলের প্রাপ্ত ভোট ছিল 45 শতাংশ, প্রথমে রাজ্য বিধানসভার তিন বিধায়ক পেলেও বিজেপির ঝুলিতে পড়েছিল 10.7 শতাংশ ভোট এবং বাম ও কংগ্রেস সমঝোতা করে সেখানে তৃণমূলের ভোটের শতাংশের খুব কাছাকাছি চলে গিয়েছিল। তবে তারপর রাজ্যে বেশ কয়েকটি উপনির্বাচন এবং পঞ্চায়েত ভোটে বিজেপির ভোটের শতাংশের হার অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে।

আর যদি বিজেপি নিজের ভোট দখলে রাখার পাশাপাশি এবং বাম এবং কংগ্রেসের ভোট নিজেদের দখলে আনতে পারে তাহলে এই রাজ্যের অনেক আসনেই এবার শেষ হাসি হাসবে গেরুয়া শিবির বলে মনে করতে শুরু করেছে পর্যবেক্ষকেরা। তাহলে কি তাদের কর্মী সমর্থকরা এবার বিজেপিকে ভোট দেবেন?

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এদিন এই প্রসঙ্গে কিছুটা হলেও আশঙ্কার কথা শুনিয়েছেন দমদম লোকসভা কেন্দ্রের সিপিএমের এক বর্ষীয়ান নেতা। এদিন তিনি বলেন, “গত বিধানসভা ভোটে যেটুকু ভোট পেয়েছিলাম তা আমাদের ধরে রাখতেই হবে। আগে কখনও আমাদের এই রকম সংকটে পড়তে হয়নি। তবে দলের কর্মীরা যাতে নিজেদের প্রার্থীকে সমর্থন করেন সেদিকে আমরা নজর রাখছি।”

অন্যদিকে রাজ্যের সংগঠন অনেকটাই ভেঙে পড়া কংগ্রেসের সাথে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের অহিনুকূল সম্পর্ক। ফলে সেই কংগ্রেসের অনেক কর্মী বিরোধী ভোটব্যাংককে শক্তিশালী করতে বিজেপির দিকে ঝুঁকে যেতে পারেন বলে মনে করছে বিধান ভবনের একাংশ।

আর বিরোধীদের এই গোপন সমঝোতাকে এবার প্রকাশ্যে সকলের সামনে তুলে ধরে সেই বিরোধী নেতাদের উদ্দেশ্যেও যাতে তারা বিজেপিকে ভোট না দিয়ে তৃণমূলকে ভোট দেয় তার জন্য আবেদন করতে দেখা যাচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই আবেদনে আদৌ বাম এবং কংগ্রেসের নেতারা সাড়া দেন কিনা! নাকি তাদের ভোট বিজেপির দিকেই “স্যুইং” করে, এখন তা দেখবার জন্য অপেক্ষা করতেই হবে আগামী 23 মে পর্যন্ত।

Top
error: Content is protected !!