এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নেত্রীর নির্দেশে বাংলায় বাম-কং-এর বনধ রুখে দিলেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরাই

নেত্রীর নির্দেশে বাংলায় বাম-কং-এর বনধ রুখে দিলেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরাই

রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই একদা বনধের ঘেরাটোপে থাকা এই বাংলাকে সচল করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেইমত 2011 সালে পালাবদলের পর বিরোধীদলের ডাকে এই রাজ্যে বনধ হলেও তা সফল হয়নি।

আর অতীতের সেই রেওয়াজকে ধরে রেখে এদিন গতকাল পেট্রোপন্যের মূল্যবৃদ্ধির দাবিতে বাম এবং কংগ্রেসের ডাকা বনধকে ভেস্তে দিতে ময়দানে দেখা গেল শাসকদলের কর্মীদেরও। ইস্যু সমর্থন করলেও এই কর্মনাশা বনধ যে তাঁরা সমর্থন করেন না সেই ব্যাপারে আগেই নিজেদের মতামত স্পষ্ট করেছিল রাজ্যের শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেস।

সূত্রের খবর, এদিনের বাম-কংগ্রেসের ডাকা এই যৌথ বনধে কংগ্রেসকে পথে দেখা গেলেও আলিমুদ্দিন স্ট্রীটের সূর্যকান্ত মিশ্র, বিমান বসুদের খুঁজে পাওয়া গেল না। জানা যায়, বনধ সফল করতে এদিন উলুবেড়িয়া এবং আমতায় বেশ কিছুক্ষন পথ অবরোধ করে কংগ্রেস। তবে পথ অবরোধ হওয়া সত্তেও রাস্তায় যানবাহন চলাচল স্বাভাবিকই ছিল। তবে এই বনধকে ঘিরে কিছু বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবরও পাওয়া গেছে হাওড়ার দাশনগরে। এদিন এইখানে কংগ্রেস এবং বাম কর্মীরা বনধ সফলের জন্য রাস্তায় নামলে সেখান দিয়ে যাওয়া পুরসভার জঞ্জালের গাড়ির কাঁচ তাঁরা ভেঙে দেয়। আর এই ঘটনা শোনার পরই দলবদল নিয়ে সেখানে হাওড়া পুরসভার মেয়র পারিষদ বিভাস হাজরা উপস্থিত হলে দুপক্ষের মধ্যে তীব্র বচসা শুরু হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

অন্যদিকে ভারত জুট মিল এবং আরতি কটন মিলে বনধের পক্ষে থাকা সিপিএমের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের কারখানায় ঢুকতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠলে শাসকদলের কর্মীরা সেই কারখানা সচল করে। তবে শুধু হাওড়া নয়, হুগলীর পান্ডুয়া, সিঙ্গুর, রিষড়া, পাড় ডানকুনিতে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে পথ অবরোধ করলে পুলিশ সেই অবরোধ হঠিয়ে দেয়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে উত্তর 24 পরগনার বসিরহাটের ভ্যাবলায় জেলা কংগ্রেস সভাপতি অমিত মজুমদারের নেতৃত্বে রেল অবরোধ করা হয়। পাশাপাশি বারাসতেও ডিওয়াইএফআই কর্মীরা প্রতীকী রেল অবরোধ করে। অন্যদিকে গাড়ুলিয়ায় কংগ্রেসের ওপর তৃনমূলের হামলার অভিযোগ উঠলে এবং এক কংগ্রেস কাউন্সিলর আক্রান্ত হলে আজ ছেলায় কালা দিবস পালন করা হবে বলে জানান জেলার কংগ্রেস সভাপতি তাপস মজুমদার। তবে দক্ষিন 24 পরগনায় এদিন সমস্ত কিছু স্বাভাবিকই ছিল। সব মিলিয়ে তৃনমূল কর্মীদের সজাগ দৃষ্টিতে কার্যত ফ্লপ শো হিসেবে পরিনত হল বাম- কংগ্রেসের গতকালের বনধ।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!