এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ছাড় নেই মহিলাদেরও! বিরোধী প্রার্থী হওয়ায় রাস্তায় ফেলে মার মহিলা প্রার্থীদের

ছাড় নেই মহিলাদেরও! বিরোধী প্রার্থী হওয়ায় রাস্তায় ফেলে মার মহিলা প্রার্থীদের

আসন্ন ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনের সুবাদে রাজ্যের নানা দিকে অশান্তি উত্তেজনার খবরে রাজ্যবাসী একরকম ভীত সন্ত্রস্ত অবস্থায় দিন গুজরান করেছে। এমত অবস্থায় অভিযোগ উঠলো শনিবার হুগলী জেলার আরামবাগে মহকুমাশাসকের অফিস চত্বরে বিরোধী প্রার্থীদের আক্রমন করে তাঁদের মুখে কালিও লেপে দিলো শাসকদলের মদতপুষ্ট দুষ্কৃতিরা।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এই ঘটনায় বাদ পড়েনি মহিলা প্রার্থীরাও। আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন গোঘাটের প্রাক্তন ফরওয়ার্ড ব্লক বিধায়ক বিশ্বনাথ কারক, তাঁর স্ত্রী মিঠুমায়া-সহ সাত জন। তাদের অভিযোগ অনুযাই রাস্তায় ফেলে আক্রমন করে হেনস্থা করা হয়েছে। যদিও তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) কামনাশিস সেন এ দিন মহকুমাশাসকের অফিস চত্বরে ছিলেন। ঐদিন তিনি কোনো মারধরের ঘটনা প্রত্যক্ষ করেননি জানিয়ে বললেন, ”পুলিশ ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। মারধর হয়নি। কালি মাখানোর ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” এদিন নিরাপত্তার প্রয়োজনে মহকুমা শাসকের অফিসের সামনে পুলিশ, র‌্যাফ এবং সিভিক ভলান্টিয়ার মোতায়েন ছিল। এছাড়াও প্রশাসনিক কর্তাব্যক্তি হিসেবে সেখানে উপস্থিত ছিলেন এসডিপিও (আরামবাগ) কৃশানু রায় এবং আরামবাগের আইসি শান্তনু মিত্রও। বিশ্বনাথবাবু বললেন, ”পুলিশের সামনেই তৃণমূলের ছেলেরা আমাদের কালি মাখিয়ে মারধর করল। মহকুমাশাসক, পুলিশ এবং নির্বাচন কমিশনকে লিখিত ভাবে জানিয়েছি।” এই প্রসঙ্গে গোঘাটের তৃণমূল বিধায়ক মানস মজুমদার বিরোধীদলের সব অভিযোগ কার্যত হেয় প্রতিপন্ন করে বললেন, ”ওই ঘটনার সঙ্গে দলের কারও যোগ নেই।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!