এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > করিমপুরে বিজেপির প্রার্থী হতে তীব্র উৎসাহ! জমা পড়ল 17 আবেদন? কার ভাগ্যে ছিঁড়ছে শিকে?

করিমপুরে বিজেপির প্রার্থী হতে তীব্র উৎসাহ! জমা পড়ল 17 আবেদন? কার ভাগ্যে ছিঁড়ছে শিকে?



 

আগামী 25 শে নভেম্বর রাজ্যের বিধানসভা কেন্দ্রের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। যার মধ্যে অন্যতম করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্র। এতদিন এই কেন্দ্র তৃণমূলের দখলে থাকলেও এবার এখানে বিধানসভা উপনির্বাচন হওয়ায় তা নিজেদের দখলে আনার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে গেরুয়া শিবির।

বস্তুত, সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি সারা রাজ্যে 18 টি আসন পেলেও এবং অনেক বিধানসভায় এগিয়ে থাকলেও এই করিমপুর বিধানসভায় তারা তৃণমূলের থেকে পিছিয়ে ছিল। আর তাই পরাজয়ের গ্লানি ভুলে এবার নতুন করেই করিমপুর বিধানসভা দখল করতে ইতিমধ্যেই জোর প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে পদ্ম শিবির। আর আশ্চর্যজনকভাবে এই করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী হতে চেয়ে ভুরি ভুরি আবেদনপত্র জমা পড়তে শুরু করল‌।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই এই কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী হওয়ার জন্য 17 টির বেশি আবেদনপত্র জমা পড়েছে। তবে এখানে তৃণমূলের কাছ থেকে কেন্দ্রটি নিজেদের দখলে আনতে রাজ্য থেকে কোনো নেতাকে প্রার্থী করা হতে পারে বলে মনে করছে একাংশ। যে ক্ষেত্রে জয়প্রকাশ মজুমদার এবং রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম ঘোরাফেরা করতে শুরু করেছে। কিন্তু যে 17 জন এই করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী হতে চেয়ে আবেদন করেছেন, তাদের মধ্যে ঠিক কাদের কাদের নাম রয়েছে!


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, এর মধ্যে রয়েছেন জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিলয় সাহা, প্রাক্তন মন্ডল সভাপতি বুদ্ধদেব শীল, বিজেপি নেত্রী আরাধনা বিশ্বাস, শুভাশিস ভট্টাচার্য, বিজেপি মহিলা নেত্রী অজিতা রায় এবং প্রাক্তন সিপিএম বিধায়ক সমরেন্দ্রনাথ ঘোষ। বিজেপির একাংশ বলছেন, যদি জেলা থেকে প্রার্থী করা হয়, তাহলে নিলয়বাবুই এখনও পর্যন্ত এগিয়ে রয়েছেন। তবে বিজেপি সাংগঠনিক দল হওয়ায় শেষ পর্যন্ত কে প্রার্থী হবেন, তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেউই।

এদিন এই প্রসঙ্গে নদীয়া উত্তরের বিজেপির সভাপতি মহাদেব সরকারকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “17 র বেশি আবেদন এসেছে, এটা ঠিক। এর বেশি কিছু সংবাদমাধ্যমে বলা যাবে না। প্রার্থীর নাম সময়মতো জানানো হবে। করিমপুরে আমরা সংগঠন বিস্তারে বহুদিন ধরেই কাজ করছি। আশা করছি, ভোটে আমরা তার ফল পাব। মানুষ আমাদের সাথেই রয়েছে।”

এদিকে বিজেপির পাশাপাশি এখনও পর্যন্ত তৃণমূলেও তাদের প্রার্থী ঘোষণা করেনি। ফলে দুই হেভিওয়েট রাজনৈতিক দল এই করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রের জন্য কাকে প্রার্থী হিসেবে বাছাই করে, তার জন্য নজড় রয়েছে প্রত্যেকেরই।

তবে বিশ্লেষকদের একাংশ বলছেন, বিজেপির প্রতি সাধারণ মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। আর তাইতো করিমপুর বিধানসভা নির্বাচনে প্রার্থী হতে চেয়ে বিজেপিতে সতেরোটির মত আবেদনপত্র জমা পড়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কাকে এখানে প্রার্থী করে তৃণমূলকে টেক্কা দেয় গেরুয়া শিবির, এখন সেদিকেই নজর গোটা রাজনৈতিক মহলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!