এখন পড়ছেন
হোম > আন্তর্জাতিক > কলকাতাকে তিলোত্তমা করে তুলতে বিশ্বব্যাঙ্ক দেবে ২১০০ কোটি! দাবি অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রর

কলকাতাকে তিলোত্তমা করে তুলতে বিশ্বব্যাঙ্ক দেবে ২১০০ কোটি! দাবি অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রর

বাংলার জন্য সুখবর। ব্যবসার খাতে এবার বিশ্ব ব্যাংক 2100 কোটি টাকা লগ্নি করতে চলেছে। এদিন অর্থমন্ত্রী দাবি করেন, বিশ্বব্যাংকের তরফ থেকে 2100 কোটি টাকা লগ্নি হতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গে। সূত্রের খবর, মূলত কলকাতাকে সুন্দর আঙ্গিকে গড়ে তোলার জন্যই এই ঋণ দেওয়া হবে। তবে অত্যন্ত কম সুদে এই ঋণ পশ্চিমবঙ্গে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বরাবরই দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় সরকার ইচ্ছামতো ঋণ নিতে পারে, কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সে ক্ষমতা নেই। এবার তাই বিশ্বব্যাংকের ঋণ দেওয়ার কথায় স্বাভাবিকভাবেই খুশি কলকাতার রাজনৈতিক মহল।

ব্যবসা করার সদিচ্ছায় ভারত কতটা এগিয়েছে তা যাচাই করতে এখন থেকে ভারতের সাথে সাথে কলকাতার উপরেও নজর রাখবে বিশ্বব্যাংক। শনিবার রাজ্যের অর্থমন্ত্রী ও শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র জানিয়েছেন, বিশ্বব্যাংকের তরফ থেকে 2100 কোটি টাকা লগ্নি করা হবে, কলকাতা ও সংলগ্ন অঞ্চলের পরিকাঠামো উন্নয়ন এর জন্য। শোনা যাচ্ছে, আগামী সপ্তাহে সম্পূর্ণ পরিকল্পনাটি রূপায়ণ করতে বিশ্বব্যাংক রাজ্য সরকারের সাথে একটি বৈঠকে বসতে চলেছে।

এদিন পশ্চিমবঙ্গের লজিস্টিক পরিকাঠামো নিয়ে একটি আলোচনা সভা থেকে অর্থমন্ত্রী জানান, বিশ্ব ব্যাংক থেকে ঋণের ব্যাপারটি কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে গ্রিন সিগন্যাল পেয়েছে। তবে এই ঋণের ব্যাপারে বলতে গিয়ে অমিত মিত্র দাবি করেছেন, এটি অন্যান্য বাণিজ্যিক ঋণের মতো হবে না। অত্যন্ত কম সুদে ও সুবিধাজনক শর্তে বিশ্ব ব্যাংক পশ্চিমবঙ্গকে 2100 কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে। জানা গেছে, উন্নয়নের তালিকায় থাকবে রাজ্যের সড়ক, পরিবহন, বন্দর ইত্যাদি। এর সাথে রাজ্যের শিল্পতালুক, লজিস্টিক, এসিজেডসহ শিল্প পরিকাঠামোর উন্নয়নেও বিশ্ব ব্যাংক আগ্রহ দেখিয়েছে বলে জানা গেছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এ ব্যাপারে বলতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, হাতে পুঁজি আসার ফলে এবার একাধিক উন্নয়ন করা সম্ভব হবে। তার মধ্যে অন্যতম রাজ্যে কর্মসংস্থান বাড়ানো ও সহজে ব্যবসার মাপকাঠিতে কলকাতাকে উন্নত করতে সাহায্য করা। তিনি আরো বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গ এমন একটি জায়গা যেখানে থেকে খুব সহজেই চারটি দেশ যথাক্রমে নেপাল, ভুটান, শ্রীলংকা ও বাংলাদেশের সাথে যোগাযোগ করা সহজ। ফলে ব্যবসায়িক সাফল্য আনতে পশ্চিমবঙ্গ যে একটা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা গ্রহণ করতেই পারে সে ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই।

তবে এদিন শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র রাজ্যে খরচের খতিয়ান সম্পর্কে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল সরকার আসার পর থেকে রাজ্যের উন্নয়নের খরচ বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। 2011 সালে 1758 কোটি টাকা থেকে বেড়ে 2018 সালে দাঁড়িয়েছে 9553 কোটি টাকায়। এছাড়াও রাজ্য ও বেসরকারি সংস্থা মিলে যে পরিকাঠামো তৈরি হয়েছে তাতে কর্মসংস্থান হয়েছে প্রায় 1.26 লক্ষ জনের।

আপাতত বিশ্বব্যাংকের থেকে আগত ঋণের খবরে রাজ্যের অর্থনৈতিক মহলে যথেষ্ট আলোচনা শুরু হয়েছে। অন্যদিকে, পরিকাঠামো উন্নতিকল্পে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে, সে নিয়ে রাজ্য সরকারের অন্দরেও আলাপ আলোচনা শুরু হয়েছে। তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, পরিকাঠামোর উন্নয়নকল্পে যদি সত্যিই টাকা খরচ হয়, তাহলে তৃণমূল সরকারের প্রতি মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতেও পারে। আপাতত লক্ষ্য বিশ্বব্যাংক ও রাজ্য সরকারের পরবর্তী বৈঠকের দিকে। কারণ এই বৈঠক থেকেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!