এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > খোদ কলকাতার রাজাবাজারের বুকে জালনোট চক্র! তাজ্জব কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দারা

খোদ কলকাতার রাজাবাজারের বুকে জালনোট চক্র! তাজ্জব কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দারা

ফের শহরের বুকে উদ্ধার হল জালনোট। যা উদ্ধার করে ধৃতদের গ্রেফতার করল কলকাতা পুলিশ। সূত্রের খবর, সোমবার সন্ধ্যায় মধ্য কলকাতার রাজাবাজার থেকে দুজনকে গ্রেপ্তার করে এসটিএফ। জানা গেছে, ধৃত গোলাম রব্বানী এবং আলামিন শেখ এই দুইজনেরই বাড়ি মালদহের বৈষ্নবনগরে।

তাদের কাছ থেকে মোট 5 লক্ষ টাকার জাল নোট উদ্ধার হয়েছে। তবে এই নোটগুলি যে জাল, তা প্রথমে বুঝতেই পারেনি গোয়েন্দারা। অত্যন্ত নিখুঁতভাবে উদ্ধার হওয়া এই দুই হাজার টাকার নোটগুলি তৈরি হয়েছে বলে মত একাংশের। কিন্তু ঠিক কীভাবে এই নোটগুলি তৈরি করা হচ্ছে এখন সেটাই তদন্তের মূল প্রাধান্য বিষয় বলে মত গোয়েন্দাদের।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, চলতি মাসেই আমহার্স্ট স্ট্রিটের শ্রদ্ধানন্দ পার্কের কাছে মালদহের বৈষ্ণবনগরের বাসিন্দা ফেরাজুল শেখকে গ্রেপ্তার করে তার কাছ থেকে প্রায় 5 লক্ষ টাকার জাল নোট উদ্ধার করে এসটিএফ। আর এই ফেরাজুলকে জেরা করেই গোলাম রব্বানী এবং আলামিন শেখের নাম জানতে পারেন গোয়েন্দারা। আর এরপরই গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গোয়েন্দারা সেই দুজনকে গ্রেপ্তার করে।

গোয়েন্দাদের ধারণা, এই জাল নোটের কারবারিরা বর্তমানে বড় নোটগুলিকেই জাল করে তা ইন্দো-বাংলা সীমান্ত দিয়ে ছড়িয়ে দিচ্ছে রাজ্যের বাজারগুলিতে। কিন্তু ঠিক কিভাবে এই উন্নত মানের জালনোট তারা তৈরি করছে, এমনকি এই জাল নোট তৈরি করে অস্ত্রের কেনাবেচা, সীমান্তের চোড়া পথ দিয়ে তা পাচার এবং এর পেছনে ঠিক কারা কারা রয়েছে এখন সেই রহস্য উন্মোচনই করতে চায় গোয়েন্দারা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

জানা গেছে, বর্তমানে মালদা মুর্শিদাবাদের সীমান্তকে রীতিমতো জাল নোটের করিডোর বানিয়ে ফেলা হয়েছে। ফলে সেই জায়গাগুলিতে ঠিক কি করে এই জাল নোট পাচার আটকানো সম্ভব তা নিয়েও চিন্তায় প্রশাসন। সব মিলিয়ে রাজ্যে জাল নোটের বাড়বাড়ন্তে প্রবল চিন্তা প্রশাসনিক মহলে

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!