এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কোলকাতা পুলিশের অন্দরেও গেরুয়া জুজু দেখছে রাজ্য সরকার,বদলি ২- নজরে শতাধিক

কোলকাতা পুলিশের অন্দরেও গেরুয়া জুজু দেখছে রাজ্য সরকার,বদলি ২- নজরে শতাধিক

লোকসভা ভোটকে টার্গেট করে শাসকদল কোমরবেঁধে প্রস্তুতি সারছে। বিরোধী হটাও মন্ত্রে দিক্ষিত হয়ে গোটা রাজ্যেই নিজেদের মাটি শক্ত করতে চাইছে এবং কোথাও সন্দেহভাজন কাউকে দেখলেই তাকে পদ থেকে অপসারণ করতে দ্বিধা করছে না রাজ্যসরকার মমতা সারকারের বিরুদ্ধে বার বার এমনটাই অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা। এদিন লালবাজার পুলিশ সূত্রে জানা গেলো বিজেপি ঘনিষ্ঠতার অভিযোগে দুই কনস্টেবলকে পাহাড়ে বদলি করে দেওয়া হয়েছে ফলে ফের একবার বিরোধীরা কথা বলার সুযোগ পেলো বলেই মনে করছে রাজনৈতিকমহল। ।জানা গেছে যে সন্দেহের তালিকায় রয়েছেন ১১২ জনের নাম যারা সম্প্রতি পুলিশের কনস্টেবল থেকে ইন্সপেক্টরের পদ পেয়েছেন। কড়া নজরদারি চলছে তাঁদের উপর। সন্দেহ চরমে উঠলে উপযুক্ত প্রমাণ দেখেই তাঁদের বদলি করা হবে জেলার বিভিন্ন জায়গায়, এমনটাই জানানো হয়েছে এদিন নবান্নের তরফ থেকে।
রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে জানা গেছে, ডিআইজি প্রণব কুনার দাস কোলকাতা লেদার কমপ্লেক্স থানার কনস্টেবল রামকৃষ্ণ দাস ও কাঁটাপুকুর মর্গ পুলিশ ফাঁড়ির কনস্টেবল তপন কুমার চক্রবর্তীকে বদলি করলেন কালিম্পং এর পেডক চেকপোস্টে। প্রসঙ্গত, এরকম বদলি আদেশ এসেছিলো ২০১৬ সালে বিধানসভা ভোটের পরেও। সেসময় কোলকাতা পুলিশের ৮১ জনকে বদলি করা হয়েছিলো উওরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায়।
এই হঠাৎ বদলি নিয়ে রামকৃষ্ণের সহকর্মীরাই অভিযোগ এনেছেন তাঁর বিরুদ্ধে। তাঁরা জানিয়েছন যে, রামকৃষ্ণবাবু নাকি থানায় বসেই সকলের সামনেই বিজেপি সমর্থনের কথা বলতেন। এমনকি নিয়ম করে এলাকার বিজেপি দফতরেও যেতেন তিনি । তাঁদের অভিযোগের ভিত্তিতে একটা রিপোর্টও যায় রামকৃষ্ণবাবুর বিরুদ্ধে লালবাজার থানায়। অন্যদিকে বদলির ফতোয়া জারির খবর শুনে রীতিমতো অসন্তুষ্ট রামকৃষ্ণবাবু। তিনি এসব অভিযোগকে মিথ্যা বলেই দাবী করেন। এবং এটাও জানান, ” শৃঙ্খলাপরায়ণ বাহিনীর সদস্য হিসাবে আমার প্রতিক্রিয়া জানানো উচিত নয়।” অন্যদিকে তাঁর সম্পর্কে লালবাজার থানার সূত্রে জানা গেছে যে বীরভূমের ময়ূরেশ্বরের বাসিন্দা রামকৃষ্ণ ময়দান থানার আন্ডারে কাজ করার সময় গত জানুয়ারি মাসে দেড় কিমি ছুটে একটি চোরকে পাকরাও করেছিলেন। পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার কনস্টেবলকে পুরস্কৃতও করেছিলেন। তবে দুর্ঘটনাজনিত কারণে তিনি বর্তমানে ছুটি কাটাচ্ছেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

অন্যদিকে,কনস্টেবল তপন চক্রবর্তীর পাহাড়ে বদলির ব্যাপারে তাঁর সহকর্মীরা জানান যে গতবছর এপ্রিল মাসে নাকি তপনবাবু তাঁরা কাঁথির বাড়িতে অন্নপূর্না পুজো উপলক্ষে ছুটিতে গেছিলেন। সেইসময় কাঁথিতে বিধানসভার উপনির্বাচন ছিল। পুজোর দিন সকালে বাজার করে ফেরার সময় বিজেপি মিছিল যাচ্ছিলো তাঁর পাশ থেকে। সেই মিছিলের পেছেন অসচেতনতা বশে হেঁটেছিলেন তিনি। ওই ছবি লালবাজার থানায় কোনো এক অজ্ঞাত ব্যক্তি জমা দিলে তপনকে সাসপেন্ড করা হয়। এখনো তিনি সাসপেন্সনে রয়েছেন। আরো জানা যাচ্ছে যে, বিজেপিঘেষা হওয়ার সন্দেহ নিয়ে সেই যে তপনের বিরুদ্ধে পুলিশি তদন্ত শুরু হয়েছে মে মাসে সেটা এখনো শেষ হয়নি। ওদিকে মৃগী রোগ থাকায় ১০ বছর ধরে চিকিৎসা চলছে তাঁরমা ও মৃত্যুশয্যায়। এদিকে আর মাত্র ১ বছস ২ মাস চাকরি রয়েছে তাঁর। তাই এরকম কঠিন পরিস্থিতিতে বদলি নিয়ে তপনবাবু জানান যে, তিনি উপরমহলের কর্তাদের কাছে আর্জি জানাবেন যাতে তদন্ত যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শেষ করে তাঁর চাকরি তাকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। তিনি আরো বলেন যে জীবনে কোনোদিনই কোনো রাজনীতি করেননি তিনি। তাঁকে অন্যায়ভাবে নাকি ফাঁসানো হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি । ওদিকে, বদলির ব্যাপারে লালবাজারের পুলিশকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি সাফ জানিয়ে দেন যে এগুলো সব নাকি ভেতরের ব্যাপার। তা এ নিয়ে প্রকাশ্য মন্তব্য তিনি করবেন না।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!