এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কাটমানি নিয়ে বিক্ষোভের আঁচ এবার কলকাতাতে, মন্ত্রী – কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে অভিযোগ

কাটমানি নিয়ে বিক্ষোভের আঁচ এবার কলকাতাতে, মন্ত্রী – কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে অভিযোগ

দুর্নীতি যে দলের অন্দরে জাঁকিয়ে বসেছে তা অনেকদিন আগেই ধরতে পেরেছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু সেই ব্যাপারে তিনি কোনো কড়া বার্তা না দেওয়ায় সেই দুর্নীতির পরিমান আরও দিনকে দিন বৃদ্ধি পেয়েছিল।

অবশেষে গত 18 ই জুন নজরুল মঞ্চে দলের কাউন্সিলরদের নিয়ে বৈঠকে যাতে কেউ কাটমানি না নেন, তার জন্য কড়া বার্তা দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারপরই দিকে দিকে দুর্নীতিগ্রস্ত তৃণমূল নেতাদের বাড়ি ঘেরাও করে টাকা ফেরতের দাবিতে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন সাধারণ মানুষ। যার জেরে প্রবল অস্বস্তিতে পড়ে শাসক দলও।

কিছুদিন আগেই তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেনের বিরুদ্ধে কাটমানি খাওয়ার অভিযোগ তুলেছিলেন এক প্রোমোটার। অভিযোগ, কলকাতা পৌরসভার কাউন্সিলর থাকাকালীন সুমন্ত চৌধুরী নামে এক প্রোমোটারের কাছ থেকে 40 লক্ষ টাকার বেশি কাটমানি নিয়েছিলেন এই তৃণমূল সাংসদ। আর এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল পড়ে যায়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার উত্তর কলকাতার উল্টোডাঙ্গা মুরারিপুকুর এলাকায় তৃণমূল কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে বেশ কয়েকটি পোস্টার পড়তে দেখা যায়। যেখানে লেখা ছিল “14 নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার অমল চক্রবর্তী বেআইনি কনস্ট্রাকশন দিয়ে কলের লাইন ও রেল লাইনের জন্য যত টাকা কাটমানি খেয়েছেন, তা ফেরত দিন।” এমনকি এই ঘটনার পেছনে মানিকতলা বিধানসভার বিধায়ক তথা রাজ্যের ক্রেতা সুরক্ষা মন্ত্রী সাধন পান্ডের মদত রয়েছে বলেও সেই পোস্টারে উল্লেখ রয়েছে।

কিন্তু কে বা কারা লাগালো এই পোস্টার! তৃণমূলের দাবি, পোস্টারের উপরে জয় শ্রীরাম, নিচে মুকুল রায় জিন্দাবাদ, দিলীপ ঘোষ জিন্দাবাদ এবং ভারতীয় জনতা পার্টি জিন্দাবাদ লেখা ছিল। তাই এই গোটা ঘটনার পিছনে বিজেপিরই হাত রয়েছে। তবে তৃণমূলের তরফে এই ব্যাপারে বিজেপিকে কাঠগড়ায় তোলা হলেও সেইভাবে গেরুয়া শিবিরের অভিযোগ খন্ডন করতে দেখা যায়নি। তাহলে কি সত্যিই এবার কলকাতার আরেক কাউন্সিলর এবং মন্ত্রী সাধন পান্ডের বিরুদ্ধে কাটমানি খাবার অভিযোগের সত্যতা রয়েছে! এখন তা নিয়েই সন্দিহান রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!