এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিধানসভায় ঘুরে দাঁড়াতে হুগলি নিয়ে বিশেষ পরিকল্পনা ফিরহাদের, “কাটমানি” নিয়ে উত্তাল গোটা জেলাই

বিধানসভায় ঘুরে দাঁড়াতে হুগলি নিয়ে বিশেষ পরিকল্পনা ফিরহাদের, “কাটমানি” নিয়ে উত্তাল গোটা জেলাই

লোকসভা ভোটের ফলাফল প্রকাশের পর তৃণমূলের ভরাডুবি এবং বিজেপির প্রবল উত্থানে কিভাবে ঘুরে দাঁড়ানো যাবে তা নিয়ে বিশ্লেষণ শুরু করেছে তৃণমূল। ইতিমধ্যেই তৃণমূল ভবনে জেলাওয়ারি বৈঠক শুরু করে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিছুদিন আগেই হুগলি জেলাকে নিয়ে বৈঠক করে দলকে ঘুরে দাঁড় করানোর জন্য কড়া নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। আর এবার বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে হুগলি জেলার সমস্ত নেতৃত্বদের দিয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চেতলার নিজের অফিসে বৈঠক করলেন হুগলি জেলার তৃণমূলের পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

জানা যায়, এদিনের বৈঠকে হুগলির প্রতিটি বিধানসভায় দলীয় বিধায়কদেরই বেশি করে সংগঠনের হাল ধরবার নির্দেশ দেন তিনি। বৈঠকে ফিরহাদ হাকিম স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন, “দলীয় বিধায়কদের চোখ দিয়েই বিধানসভা দেখবে রাজ্য নেতৃত্ব। আর বিধায়কদের ব্লক সভাপতি থেকে শুরু করে নেতৃত্বরা সাহায্য করবেন। তবে এর মধ্যে শাখা সংগঠনের কোনো ভূমিকা থাকবে না।” তবে এদিন ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে হুগলি জেলা তৃণমূলের নেতাদের বৈঠকে আরামবাগ মহকুমার গোষ্ঠী কোন্দল এবং তোলাবাজির বিষয়টি জোরদার হিসেবে উঠে আসে।

বারাসাতের তৃণমূল সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে আরামবাগের তৃণমূল বিধায়ক কৃষ্ণচন্দ্র সাঁতরা বলেন, “নির্বাচনের পর দলীয় কর্মসূচিতে গিয়ে যে মহিলার জন্য সাংসদ আমায় সবার সামনে অপমান করেছেন, খোঁজ নিয়ে দেখুন ওই মহিলা ও তার স্বামীর কারণে দলের মুখ পুড়েছে।” এদিকে দলীয় বিধায়কের এই কথা শোনার পরই তাকে আশ্বস্ত করে ফিরহাদ হাকিম বলেন, “আপনারা নিজেদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি বাদ দিয়ে মানুষের সঙ্গে গিয়ে এখন থেকে যোগাযোগ বাড়াতে শুরু করুন।”

এদিকে এদিনের আলোচনায় হুগলি লোকসভা কেন্দ্রে রত্না দে নাগ কেন পরাজিত হলেন, তা নিয়ে গতবারের পান্ডুয়ার প্রার্থী রহিম নবিকে তার মতামত জানাতে বলেন ফিরহাদ হাকিম। আর সেখানেই রহিম নবি পান্ডুয়ার ব্লক সভাপতি আনিসুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান। অন্যদিকে বলাগড়ের বিধায়ক অসীম মাঝি তৃণমূল যুব নেতা শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে দলীয় প্রার্থীকে না জেতানোর অভিযোগ জানান।

অন্যদিকে সিঙ্গুরে বেচারাম মান্না এবং রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের লড়াই নিয়েও এদিন মুখ খোলেন ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন, “সিঙ্গুর আমাদের কাছে আত্মমর্যাদার লড়াই। নিজেদের গন্ডগোল ছেড়ে আপনারা সেই মর্যাদা রক্ষা করুন।” এদিকে হুগলি জেলা তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি গোপাল রায় আরামবাগের দায়িত্ব দিলীপ যাদবকে দিলেও তিনি ঠিকমত ফোন ধরেন না বলে অভিযোগ করেন। আর এরপরই দিলীপ যাদব বক্তব্য রাখতে উঠলে চুঁচুড়ার তৃণমূল বিধায়ক অসিত মজুমদার সেই বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যান বলে জানা গেছে।

যদিও বা বৈঠকে কী হয়েছে, এই ব্যাপারে হুগলি জেলা তৃণমূল সভাপতি তপন দাশগুপ্তর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, “দলকে শক্তিশালী করার জন্য বর্ধিত সভা হয়েছে। আগামী 21 জুন চন্দ্রকোনা থেকে জনসংযোগ যাত্রা শুরু হবে। সেই ব্যাপারেই আলোচনা হয়েছে।” পর্যবেক্ষকদের মতে, তৃণমূলের এবারের লোকসভা নির্বাচনে ভরাডুবি একদিকে দলের গোষ্ঠী কোন্দল আর অন্যদিকে তোলাবাজিই যে প্রধান কারণ – তা বুঝতে বাকি নেই কারোরই। আর তাইতো এবার পরিস্থিতি মোকাবিলায় হুগলি জেলার গোষ্ঠী কোন্দল এবং তোলাবাজি রুখতে একাধিক নির্দেশ দিলেন ফিরহাদ হাকিম।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!