এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কাশ্মীরে দাঁড়িয়ে বিরোধীদের উড়িয়ে বজ্রকঠিন কন্ঠে নরেন্দ্র মোদি জানালেন- দেশভাগ হতে দেব না

কাশ্মীরে দাঁড়িয়ে বিরোধীদের উড়িয়ে বজ্রকঠিন কন্ঠে নরেন্দ্র মোদি জানালেন- দেশভাগ হতে দেব না

যতই বাধা আসুক না কেন, জম্মু-কাশ্মীরকে তিনি কখনোই আলাদা হতে দেবেন না বলে প্রথম থেকেই নিজের অবস্থান স্পষ্ট করে এসেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর এবার লোকসভা নির্বাচনের মরসুমে আরও একবার নিজের অবস্থানে অনড় থাকার কথাই শোনালেন তিনি।

সূত্রের খবর, এদিন জিতেন্দ্র সিংয়ের সমর্থনে কাঠগড়ায় সভায় উপস্থিত হয়ে নরেন্দ্র মোদি ওমর আবদুল্লা এবং মেহেবুবা মুফতির উদ্দেশ্যে কড়া ভাষায় আক্রমণ শানান। তিনি বলেন, “ওরা রাজ্যের তিন প্রজন্মকে ধ্বংস করে দিয়েছে। ওদের তাড়ালেই নিশ্চিত হবেই জম্মু-কাশ্মীরের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ। বংশের সবাইকে নামিয়ে ওরা আমাকে অসম্মান করতে পারেন, কিন্তু ভারত ভাগ করতে কখনোই ওরা সফল হবে না।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

অন্যদিকে এদিনের সভা থেকে কংগ্রেসের বিরুদ্ধেও আক্রমণ শানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “কংগ্রেস সমর্থিত জম্মু-কাশ্মীরের পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রাচীরের মতো দাড়িয়ে থাকবে মোদী। গত তিন বছর ধরে ওরা এই ভূখণ্ড জবর দখল করে রয়েছে। কিন্তু মোদী না ভয় পায়, না কারও হুমকিতে মাথা নত করে।”

অন্যদিকে বাবাসাহেব আম্বেদকরের সংবিধানের ক্ষমতার এতটাই জোর যে, সেই কারণেই দেশের একজন চা বিক্রেতাকে আজকে প্রধানমন্ত্রী করেছেন বলেও উল্লেখ করেন নরেন্দ্র মোদি। পাশাপাশি এদিন সেনাবাহিনী প্রসঙ্গেও হাত শিবিরকে খোঁচা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “কংগ্রেসের কাছে অর্থ উপার্জনের একমাত্র উপায় হল সেনা। ওদের নীতির জন্য ভিটেছাড়া হতে হয়েছে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের। কংগ্রেস ভোটব্যাঙ্ক নিয়ে এতটাই ভাবে যে কাশ্মীরি পণ্ডিত ভাইবোনেদের উপর অত্যাচার হচ্ছে জেনেও ওরা না দেখার ভান করে।”

সব মিলিয়ে এবার লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে গিয়ে জম্মু-কাশ্মীরকে তিনি ভারত থেকে কখনোই আলাদা হতে দেবেন না বলে নিজের অবস্থানে অনড় থাকারই কথা শোনালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

Top
error: Content is protected !!