এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কাশ্মীর জুড়ে গেরুয়া ঝড় উঠতেই বড় বার্তা বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের

কাশ্মীর জুড়ে গেরুয়া ঝড় উঠতেই বড় বার্তা বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের

ভূ-স্বর্গ কাশ্মীর উপত্যকা ইন্দো-পাক লড়াই-এ উত্তপ্ত থাকে সারাবছরই।আর এই সন্ত্রাস বিধ্বস্ত উপত্যকাতেই পুর নির্বাচনে বড়সড় জয় পেয়েছে গেরুয়া শিবির। এরপরেই উপত্যকায় দলের নেতা-কর্মীদের জয়ের শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে উচ্ছাস প্রকাশ করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ।তিনি বলেন, “এই ফলাফল প্রমাণ করে যে উপত্যকার মানুষ নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে উন্নয়নের ধারায় শামিল হতে চান এবং তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর উপর বিশ্বাস রাখেন।” একইভাবে কাশ্মীরে আবারও ভাল ফল করেছ কংগ্রেস। সেখানে আবার তারাই সংখ্যা গরিষ্ঠ দল হিসাবে উঠে এসেছে।

শনিবার ফলাফল ঘোষণার পরই পরপর দুটি আলাদা টুইটে উপত্যকায় দলের সদস্য-সমর্থকদের শুভেচ্ছা জানান বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। তিনি বলেন, “এই ফলাফলের জন্য রাজ্য বিজেপি সভাপতি রবীন্দ্র রায়না ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের শুভেচ্ছা। জম্মু ও কাশ্মীর উপত্যকায় যথাক্রমে ২১২টি এবং ১০৬টি ওয়ার্ডে জয়লাভ করেছে বিজেপি। মানুষের বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি আমরা।” সন্ত্রাস বিধ্বস্ত উপত্যকায় গেরুয়া শিবিরের এই জয়কে আসন্ন লোকসভার আগে বড় ইস্যু হিসেবেই দেখছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। লোকসভা নির্বাচনের প্রচারপর্বে এই জয়ের ফায়দা ওঠাতে বদ্ধপরিকর পদ্মশিবিরও।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো  করুন এই লিঙ্কেখবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক

শনিবার ব্যালট বাক্স খুলতেই দেখা যায় জম্মুর মোট ৭৫টি আসনের মধ্যে বিজেপি একাই জয়লাভ করেছে ৪৩টি আসনে। এছাড়া নির্দল প্রার্থীরা জিতেছে ১৮টি আসন অন্যদিকে কংগ্রেস জিতেছে মাত্র ১৪টি আসনে। শ্রীনগরে আবার দাপট দেখিয়েছে নির্দলরা। ৭৪টি আসনের মধ্যে তারা পেয়েছে ৪৯টি আসন, কংগ্রেস ১২টি আর সেখানে বিজেপি পেয়েছে মাত্র ৪টি আসন পেয়েছে।যদিও কাশ্মীর উপত্যকায় ভাল ফল করেছে কংগ্রেস। সংবিধানের ৩৫-এ ধারা বজায় রাখার দাবিতে এবং কেন্দ্রের বিভিন্ন কাজের বিরোধিতা করে এইবার পুর নির্বাচন বয়কট করেছে উপত্যকার দুটি বড় আঞ্চলিক শক্তি পিডিপি ও ন্যাশনাল কনফারেন্স। ফলে লড়াইটা সরাসরি হয় কংগ্রেস ও বিজেপির মধ্যে।আর সেখানেই বাজিমাত করে গেরুয়া শিবির। ২০১৯-এর লোকসভার আগে এই ফলাফল মোদি-শাহদের কিছুটা হলেও স্বস্তি দেবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!