এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বনধকে ঘিরে বিক্ষিপ্ত উত্তেজনা কর্নাটকে -জেনে নিন বিস্তারিত

বনধকে ঘিরে বিক্ষিপ্ত উত্তেজনা কর্নাটকে -জেনে নিন বিস্তারিত

পি চিদম্বরমের পর এবার ডি কে শিবকুমার। একের পর এক কংগ্রেস হেভিওয়েট নেতারা সি বি আই ও ইডির হাতে ধরা পড়ায় কংগ্রেস দলে তীব্র চাঞ্চল‍্য দেখা দিয়েছে। সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশের জন‍্য তারা হাতিয়ার করেছে বনধকে। বুধবার কর্ণাটকে বনধ জারি করেছে কংগ্রেস।

এবার ইডির হাতে ধরা পড়লেন কংগ্রেস হেভিওয়েট নেতা ডি কে শিবকুমার। দিল্লিতে তাঁকে এই ঘটনায় বুধবার আদালতে তোলা হবে বলে জানা যায়। এই ঘটনাকে ঘিরে কর্নাটক রাজ্য জুড়ে চলছে কংগ্রেসের ডাকা বনধ। যা নিয়ে এদিন কর্নাটকে বিক্ষিপ্ত কিছু জায়গায় উত্তেজনা ছড়ায়। সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিহিংসার রাজনীতির অভিযোগ তুলে কংগ্রেসীরা নিজেরাও সেই একই পথ অনুসরণ করলেন। কংগ্রেসীরা বনধ সফল করতে এদিন কর্ণাটক রোড ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশন এর একাধিক বাস ভাঙচুর করে এবং তাতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

চারদিন ধরে ইডি দপ্তরে কংগ্রেসের প্রাক্তন মন্ত্রী ডিকে শিব কুমারকে জেরা করা হয় দুর্নীতির অভিযোগে। এরপর মঙ্গলবার এই অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে গ্রেফতার করে ইডি এবং তারপর থেকেই প্রতিবাদ জানাতে কংগ্রেসের বিভিন্ন কর্মীরা কর্ণাটকের পথে নামে। বুধবার কর্ণাটক জুড়ে চলতে থাকে কংগ্রেসের ডাকা বন্ধ এবং এই বনধ সফল করতে পথে নামেন তারা। চলে বিভিন্ন রাস্তায় অবরোধ ও বাস ভাঙচুর। এ নিয়ে কেএসআরটিসি জনসংযোগ আধিকারিক বলেন, “আমরা পরিস্থিতির উপর নজর রাখছি। সমস্ত ডিভিশনাল অফিসারদের বলা হয়েছে, পরিস্থিতি বুঝে বাস চালাতে। খোলা হয়েছে আলাদা কন্ট্রোল রুম।”  তবে খোলা আছে অফিসে থেকে স্কুল কলেজও।

ডিকে শিব কুমারের গ্রেপ্তার পরেই মুখ খুলেছেন বর্ষীয়ান নেতা মল্লিকার্জুন খারগে। তিনি টুইটারে টুইট করেছেন এই বলে, “ওঁরা (বিজেপি) ওঁর (শিব কুমার) এবং দলের কর্মীদের মনোবল ভেঙে দিতে চাইছে। আইন মেনে আয়কর দপ্তর হোক ইডি, যতবার ডেকেছে, উনি সাড়া দিয়েছেন‌। সহযোগিতা করেছেন। উনি কি পালিয়ে ফেরার ? তাহলে কেন এটা করা হচ্ছে ? শুধুমাত্র হেনস্থা এবং মানসিক নির্যাতনের জন্য। এর নিন্দা করি।”

ডিকে শিবকুমার এর গ্রেপ্তারের ঘটনায় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে প্রতিহিংসার তোপ দাগলেন বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা কেসি বেনুগোপালও। এই ঘটনায় কর্ণাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া এবং কর্ণাটক প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি দিনেশ গুন্ডু রাও এর মত নেতারাও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

কর্নাটকে জেডিএস – কংগ্রেস জোট নিয়ে টানাপোড়েন চললেও শেষ পর্যন্ত জেডিএস শিবকুমার এর পাশে এসে দাঁড়ালেন। এই নিয়ে রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী তার টুইটারে জানালেন, ‘বর্তমানে প্রতিহিংসার রাজনীতি প্রবণতা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ক্ষমতার অপব্যবহার করতে বিরোধী দলের নেতারা হয়ে উঠছেন সহজলক্ষ‍্য। ভিত্তিহীন অভিযোগের বিরুদ্ধে আমাদের আরও কঠিন অবস্থান নেওয়া দরকার। আমি নিশ্চিত ওঁর বিরুদ্ধে প্রতিহিংসামূলক অভিযোগের মোকাবিলায় শিবকুমার যথেষ্ট শক্তিশালী।’

তবে একের পর এক বিরোধী নেতারা সিবিআই ও ইডির জালে ধরা পড়ায় বিরোধীদলের ভিত যে নড়বড়ে হয়ে উঠছে তা মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশ। তবে বিজেপি সরকারের কর্নাটকে তেমন সারা ফেললো না কংগ্রেসের ডাকা বনধ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!