এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কর্মসংস্থান নিয়ে বড়সড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর, আসার আলো দেখছে চাকুরীপ্রার্থীরা

কর্মসংস্থান নিয়ে বড়সড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর, আসার আলো দেখছে চাকুরীপ্রার্থীরা

এবার বেকারত্ব থেকে মুক্তি দিয়ে কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধির সন্ধান নিয়ে ময়দানে হাজির তৃণমূল কংগ্রেস। অনেক না পাওয়ার মাঝে বেকারদের মধ্যে একটু হলেও আশার আলো জাগতে চলেছে। 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একের পর এক জনমোহিনী সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। এবার রাজ্যের বেকার যুবক-যুবতীদের কাছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় এক নতুন সুযোগ এনে দিচ্ছেন। বানতলা চর্মনগরীতে এবার মুখ্যমন্ত্রী বিনিয়োগের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে চলেছেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিকল্পনায় ইতিমধ্যে বানতলা চর্মনগরে বিনিয়োগ হয়েছে এবং দু’লক্ষের মতো মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর পরিকল্পনামাফিক আগামী কয়েক বছরে বানতলায় প্রায় 80 হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ হবে। অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র এ সম্পর্কে জানিয়েছেন 80 হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের সাথে সাথে বিপুল পরিমাণ কর্মসংস্থানও হবে।

বানতলা চর্মনগরীর পরিকাঠামো উন্নয়নে রাজ্য সরকার খরচ করেছে 580 কোটি টাকা। এবার কলকাতায় ইন্ডিয়া লেদার এন্ড এক্সেসরিজ ফেয়ার এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসে অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র বলেন, বানতলা চর্মনগরীতে আরো বিনিয়োগ বাড়বে, ফলে পরিকাঠামোর আরো উন্নত হবে।

এদিন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র আরও জানান, বর্তমানে বানতলা ক্যালকাটা লেদার কমপ্লেক্স-এ দু’লক্ষ কুড়ি হাজারের বেশি মানুষ কাজ করছেন। আগামী দিনে পরিকল্পনামাফিক বিনিয়োগের ফলে আরও 5 লক্ষের বেশি কর্মসংস্থান হবে বলে তিনি জানান‌। এদিন অমিত মিত্র জানিয়েছেন, বানতলাকে বিশ্বের এক নম্বর লেদার কমপ্লেক্স হিসেবে প্রতিষ্ঠা করাই হচ্ছে সরকারের লক্ষ্য।

তিনি আরো জানিয়েছেন, বানতলা চর্ম নগরীতে চারটি নতুন সিইটি প্লান্ট তৈরি হচ্ছে। কানপুর থেকে আরো 100 ট্যানারি আসতে আগ্রহ দেখিয়েছে। আর তার জন্য আরো আশি একর জমির প্রয়োজন।

বাংলা থেকে চামড়াজাত দ্রব্য প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি কানপুর এবং চেন্নাই এর মতন উন্নত পরিকাঠামোগত সুযোগ নিতে কলকাতায় কর্ম দিগন্তে আসছেন। কর্ম দিগন্ত নামটি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের দেওয়া। বর্তমানে 385 টি ট্যানারি এবং 80 টি চামড়াজাত পণ্য ইউনিট চালু রয়েছে ভবিষ্যতে আরো 800 কোটি টাকার বিনিয়োগ এ ফুটওয়ার পার্ক তৈরি হচ্ছে এখানে। ফলে এখানে সাতশ কর্মসংস্থানের সম্ভাবনা রয়েছে

সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় কর্মদিগন্ত নিয়ে বেশ কয়েকটি নতুন প্রকল্প ঘোষণা করেছেন। এই প্রকল্প গুলি সঠিকভাবে রূপায়িত হলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে 5 লক্ষ কর্মসংস্থান হবে। সিএলসি তে বর্তমানে টার্নওভার হয়, 13500 কোটি টাকা। রাজ্য সরকারের লক্ষ্য আগামী পাঁচ বছরে টার্নওভার 30 হাজার কোটি টাকায় পৌঁছানোর।

তবে এই শূন্যপদে নিয়োগ পুরোটাই ভোটের ম্যাজিক বলে দাবি করেছে বিরোধী দল। 2021 এর বিধানসভা ভোটের লক্ষ্য রেখেই রাজ্যের শাসক দল নানান পরিকল্পনার কথা বলছেন। আদৌ কতটা সফল হবে সে বিষয়ে সন্দেহ আছে বলে তাঁরা জানিয়েছে। অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, পশ্চিমবঙ্গের বেকারত্ব কমানোর জন্য পরিকল্পনামাফিক চলতে হবে রাজ্য সরকারকে। এবং তার জন্য সঠিক লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করতে হবে। আপাতত রাজ্য সরকার তাদের আগামী পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করার লক্ষ্যে নজর দিচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!