এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কাঁথি কান্ড তৃণমূল-বিজেপি গটআপ – দাবি বর্ষীয়ান সিপিএম নেতার

কাঁথি কান্ড তৃণমূল-বিজেপি গটআপ – দাবি বর্ষীয়ান সিপিএম নেতার

সম্প্রতি বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথিতে সভার পরেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সেই এলাকা। শাসক দল তৃণমূল বনাম বিরোধী দল বিজেপি একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে সরগরম করে তোলে গোটা পরিস্থিতি।

কিন্তু এবারে এই কাঁথির ঘটনাকে নিয়ে মুখ খুললেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। সূত্রের খবর, আগামী 3 ফেব্রুয়ারি কলকাতায় বামেদের ডাকা ব্রিগেড সমাবেশের প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে এদিন ব্রিগেডে যান বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু। আর সেখানেই কাঁথির ঘটনা নিয়ে তিনি বলেন, “পুরোটাই কেন্দ্র ও রাজ্যের শাসক দলের মধ্যে বোঝাপড়া। সবটাই গটআপ গেম। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই ধরনের হাঙ্গামা দিয়ে উভয়পক্ষই নিজেদের নাম কেনার চেষ্টা করছে। তবে যে ধরনের গোলমাল কাঁথিতে হয়েছে তাতে একটা বিষয় পরিষ্কার যে এই রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা ও গণতন্ত্র বলে কিছু নেই।”

সম্প্রতি রাজ্যে এসে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা ও গণতন্ত্র নিয়ে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসকে ত্রিপুরার বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব কটাক্ষ করলে এদিন সেই প্রসঙ্গে বিপ্লববাবুর বিরুদ্ধে পাল্টা তোপ দেগে বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু বলেন, “ওই রাজ্যে কেমন গণতন্ত্র আছে সেটা সেখানকার মানুষ হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে। মঙ্গলবারই জনসভা করতে গিয়ে আমাদের সেখানকার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা পলিটব্যুরো সদস্য মানিক সরকার আক্রান্ত হয়েছেন। বাংলার মত ত্রিপুরায় পঞ্চায়েত ভোট কিভাবে প্রহসনে পরিণত হয়েছে তা সবাই জানে।”

[content_block id=3910

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, রাজ্যে দলীয় সংগঠন একেবারে ভেঙে পড়লে এবার ব্রিগেড সমাবেশের মধ্য দিয়েই লোকসভা নির্বাচনের আগে নিজেদের কর্মী সমর্থকদের চাঙ্গা করতে চাইছেন বাম নেতৃত্বরা। আর তাইতো না বিজেপি, না তৃনমূল – মানুষের পাশে থেকে লোকসভা নির্বাচনের আগে নিজেদের সংগঠনকে মজবুত করতে চাইছেন বিমান বসু সূর্যকান্ত মিশ্ররা।

অন্যদিকে এদিন ব্রিগেডের প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে গিয়ে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস কেও বিঁধেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, “তৃণমূলের মতো আমাদের সমাবেশ করার জন্য কোটি কোটি টাকা খরচ করার ক্ষমতা নেই। তাই আমরা বাধ্য হয়ে ব্রিগেডের শেষ প্রান্তে একটা বড় তাবু বানাচ্ছি দলের কর্মীদের থাকার জন্য। তৃণমূল ব্রিগেড সমাবেশ করে এখানে অসংখ্য বড় বড় গর্ত করে রেখেছে। নিরাপত্তার কারণে আমাদের সেই গর্ত বোজাতে হচ্ছে। তিন দিন আগে আমাদের মাঠের অধিকার দেওয়া হয়েছে।”

সব মিলিয়ে এবার রাজ্য এবং কেন্দ্রের উভয় শাসক দলের বিরুদ্ধেই তোপ দাগলেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু।

Top
error: Content is protected !!