এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কল্যাণ ব্যানার্জীর কল্যাণে কন্যাশ্রী পৌঁছাল সুপ্রিম কোর্ট অব্দি, কি বললেন বিচারপতিরা

কল্যাণ ব্যানার্জীর কল্যাণে কন্যাশ্রী পৌঁছাল সুপ্রিম কোর্ট অব্দি, কি বললেন বিচারপতিরা

দীর্ঘদিন ধরেই রাজ্যে মাদ্রাসার শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে চাপে রয়েছে রাজ্য সরকার। এ নিয়ে মামলাও চলছে সুপ্রিম কোর্টে। এদিন মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন বিচারপতি অরুন কুমার মিশ্র ও বিচারপতি উদয় রমেশ ললিতের বেঞ্চের প্রশ্নের মুখোমুখি হয়ে হিমশিম খেতে শুরু করে। মামলার বিষয়, বাংলার মাদ্রাসাগুলিতে শিক্ষক নিয়োগের অধিকার সরকার না কি পরিচালন কমিটির। সূত্রের খবর, এদিন আদালতে দুঘন্টা ধরে সওয়াল করেন মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের আইনজীবি মোহন পরাশরন।

এদিকে মাদ্রাসাগুলিকে রাজ্য কিভাবে সাহায্য করে তা নিয়ে পাশেই বসে থাকা সাংসদ আইনজীবি কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের “কন্যাশ্রী”, “সবুজসাথীর” মত প্রকল্পের উল্লেখ করেন। আর তারপরই বাংলার জনকল্যানের সব প্রকল্প যে তাঁর নজরে রয়েছে সে কথা উল্লেখ করে বিচারপতি অরুন মিশ্র বলেন, “হ্যাঁ, কন্যাশ্রী একটি ভালো প্রকল্প। কিন্তু সবটাই তো জনগনের টাকা।” তখন

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কল্যান ব্যানার্জী বলেন, “জনগনের টাকাতেই জনগনের কল্যান হচ্ছে। রাষ্ট্রসংঘে তা স্বীকৃতি পেয়েছে। এর ফলেই উচ্চমাধ্যমিকে প্রথম দশে ছয় জনই মেয়ে।” আর একথা শুনেই বিচারপতি হালকা মশকরা করে কল্যান ব্যানার্জীর উদ্দেশ্যে বলেন, “কল্যান, আপনার রাজ্যে কন্যাদের জন্য যে প্রকল্প চালু হয়েছে তা আসলে কন্যা কল্যান।আপনাদের মুখ্যমন্ত্রীও এখজন মহিলা।” আর একথা শুনেই হাসিতে ফেটে পড়ে আদালতকক্ষ।

জানা গেছে, মাদ্রাসা মামলার কন্টাই রহমানিয়া ও হাই মাদ্রাসার আইনজীবি সলমন খুরশিদ ও আবু সোহেল এদের কারোরই কথা না শুনে আদালত বলেছে, “সংবিধানের 30 নং ধারায় সংখ্যালঘু শিক্ষা প্রতিষ্টান নিজেরাই শিক্ষক ও আশিক্ষক নিয়োগ কলবে। এক্ষেত্রে সরকারের যুক্তি গ্রহনযোগ্য নয়।”

রাজ্য সরকার ও মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের উদ্দেশ্যে বিচারপতিরা বলেন, “সেন্ট জেভিয়ার্সের মত শিক্ষাপ্রতিষ্টানে যেমন শিক্ষক নিয়োগের মানদন্ড নির্ধারন করলেও শিক্ষক নিয়োগের অধিকারকে কেউ কেড়ে নিতে পারে না। ঠিক তেমনি এখানেও তাই হওয়া উচিত। জানা গেছে, আগামী 19 জুলাই দুপুর দুটোয় মামলার পরবর্তী শুনানির সময় সব পক্ষের কথা শুনবে শীর্ষ আদালত।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!