এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > অবশেষে ‘অসুবিধা’ মিটিয়ে কালীঘাটের নির্বাচনেও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী সকল প্রার্থীই

অবশেষে ‘অসুবিধা’ মিটিয়ে কালীঘাটের নির্বাচনেও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী সকল প্রার্থীই

বিভিন্ন জায়গায় বারবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেতারজন্য বিরোধীদলের বারবারই সন্ত্রাসের অভিযোগ আনছিলো তৃণমূলের বিরুদ্ধে। কালীঘাটের মন্দিরের কাউন্সিলর ভোট নি কিছু অসুবিধা ছিল শাসক দলের। কিন্তু সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে দূরে সরিয়ে রেখে কালীঘাট মন্দিরের কাউন্সিল অব সেবাইতের ভোটে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হলেন ১৮ জন প্রার্থী।

মন্দির ও আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে, মন্দির কমিটির চেয়ারম্যান তথা দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা ও দায়রা জজ রবীন্দ্রনাথ সামন্ত এই ভোটের নির্বাচনী অফিসার তথা বিচারক শান্তনু মিশ্রকে নির্দেশ দিয়েছেন, আজ, রবিবার কাউন্সিলের ভোটে বিজয়ীদের হাতে শংসাপত্র তুলে দিতে।

অন্যদিকে, রবিবারই ছিল এই ভোটপর্ব। তা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করার জন্য জেলা জজ পর্যাপ্ত পুলিসি বন্দোবস্ত করতে কলকাতা পুলিসের ডিসি সাউথকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। পাশাপাশি, এই ভোটদানের কাজের জন্য রাখা হয়েছিল একাধিক বিচারক ছাড়াও কোর্টের বেশ কয়েকজন কর্মীকে। কিন্তু সমস্ত জল্পনায় জল ঢেলে দিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা জয়ী হওয়ায় ওই বন্দেবস্ত বাতিল করার নির্দেশ দেওয়া হয় জেলা আদালতের তরফে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কোর্ট সূত্রে খবর, নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলেও কালীঘাট কাউন্সিল অব সেবাইতের ভোট না হওয়ায় কিছুদিন আগে তীব্র উষ্মা প্রকাশ করেছিলেন স্বয়ং জেলা জজ। তিনি কাউন্সিলের কর্মকর্তাদের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ভোগ করার নির্দেশ দেন। উত্তরে মন্দিরের কর্মকর্তারা জেলা জজকে জানান, কিছু সমস্যার জন্যই এই ভোট নির্দিষ্ট সময়ে করা সম্ভব হয়নি। এরপরই বিচারক আগামী ২৫ নভেম্বরের মধ্যে ওই ভোট সম্পন্ন করার নির্দেশ দিলে তার ভিত্তিতে কাউন্সিলের তরফে ১৮ জনের প্রার্থী তালিকাও জেলা জজের কাছে পেশ করা হয়। তবে শেষে ভোটাভুটির আর দরকার হল না।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!