এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > রাজ্যে বিজেপিকে আটকানোর ‘ফর্মুলা’ নেতা-কর্মীদের দিয়ে দিলেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক

রাজ্যে বিজেপিকে আটকানোর ‘ফর্মুলা’ নেতা-কর্মীদের দিয়ে দিলেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক

রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে পাশে নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সভাপতি তথা রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক গাইঘাটার এক বিশাল জনসভা করেন। সেই সভা থেকে নাম না করে মুকুল রায়কে তীব্র আক্রমন থেকে রাজ্যে বিজেপিকে আটকানোর পরিকল্পনা সব নিয়েই বার্তা দেন দলীয় কর্মীদের। তিনি নাম না করে মুকুল রায়কে কটাক্ষ করে বলেন, দলের খেয়ে বড় হল, এখন জার্সি বদল করে সেই দলকেই বদনাম করছে। এরকম নেতাকে চিহ্নিত করে রাখুন, সময় হলে তাদের যোগ্য জবাব দেবেন। এরপর তিনি বিজেপিকে আটকাতে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, বিজেপি কুৎসা করে বেড়ায়, তাই বিজেপি যেখানে সভা করবে ২৪-২৮ ঘন্টার মধ্যে সেখানে আমাদের দলের পক্ষ থেকে পাল্টা সভা করা হবে। ওদের দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে আমরা বড় নেতা বলে মনে করিনা, তাই ওই নেতা কোথাও জনসভা করলে সেখানে পাল্টা আমাদের দলের পক্ষ থেকে সভা করা হবে। তবে,বুথ স্তরের কোনও নেতা সেই সভা করবে, সেখানে স্থানীয় প্রধান যাবেন না। আমাদের গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের সমকক্ষ নেতাও তিনি নন।
এদিনের সভা প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতৃত্বের দাবি, বিজেপির সভায় গাইঘাটা সহ কাঁচড়াপাড়া,নদীয়া জেলা থেকেও লোকজন এসেছিল। তাতেও মাত্র ৩ হাজার কর্মী সমর্থক উপস্থিত ছিল। আর তৃণমূলের পক্ষ থেকে শুধুমাত্র গাইঘাটা-গোবরডাঙার কর্মী সমর্থকদের আসার জন্য বলা হয়েছিল। তার বাইরে কোনও কর্মী সমর্থক এদিনের সভায় আসেনি। তাতেই দলীয় নেতৃত্বের দাবি, এদিন সভায় প্রায় ৩০ হাজার কর্মী সমর্থক হাজির ছিলেন। এমনকি সভা শুরু হওয়ার আগে থেকেই কর্মী সমর্থকদের ভিড় উপচে পড়ে। স্বভাবতই, রাজ্যের শাসক দল যে কোন ভাবেই বিরোধীদের ভয় পাচ্ছেন না তা স্পষ্ট তৃনমূলের শীর্ষ স্থানীয় নেতা দের বক্তব্য এবং যেভাবে বিজেপি প্রচার শুরু করেছে ঠিক একই ভাবে শাসক দল নিজেদের কায়দায় কোমর বেঁধে নেমেছে ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে উচ্ছেদ করতে বলেই রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!