এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > জয় শ্রীরামের অ্যান্টিডোট ‘আবিষ্কার’ তৃণমূলের! তাতেও কি ‘মাত’ দেবে বিজেপি? বাড়ছে জল্পনা

জয় শ্রীরামের অ্যান্টিডোট ‘আবিষ্কার’ তৃণমূলের! তাতেও কি ‘মাত’ দেবে বিজেপি? বাড়ছে জল্পনা

কিছুদিন আগেই চন্দ্রকোনার পর নৈহাটি এবং ভাটপাড়ায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর কনভয় নিয়ে গেলে কিছু যুবক জয় শ্রীরাম স্লোগান দিতে থাকে। যা নিয়ে কার্যত ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন তৃণমূল নেত্রী। বাইরে বেরিয়ে এসে “আমাকে গালাগালি দিচ্ছে, ক্রিমিনাল সব, সাহস থাকলে সামনে আয়” – বলে সেই যুবকদের উদ্দেশ্যে রনংদেহী মেজাজে অবতীর্ণ হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর এই ঘটনার পরই সোশ্যাল মিডিয়ায় “জয় শ্রীরাম” স্লোগান নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর এহেন ক্ষিপ্ত ভাবমূর্তি তীব্র ট্রোলের শিকার হয়। এমনকি পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছয় যে, তৃণমূলের নেতাকর্মীদের দেখলেই বিজেপির পক্ষ থেকে জয় শ্রীরাম স্লোগান দিতে দেখা যায়। আর এরপর থেকেই বিভিন্ন মহলে এই জয় শ্রীরাম স্লোগানকে ঘিরে তীব্র উত্তেজনা ছড়ায়। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিজেপির কাউকে দেখলেই “জয়হিন্দ” এবং “জয়বাংলা” স্লোগান দেওয়ার কথা নিজের দলীয় কর্মীদের শিখিয়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু তারপরও অবস্থার সেইভাবে কোনো পরিবর্তন হয়নি। তবে এবার বিজেপির পক্ষ থেকে জয় শ্রীরাম বলা হলে তাদেরকে, তৃণমূল যুব কংগ্রেস মিষ্টিমুখ করাবে বলে এক অভিনব উদ্যোগ নিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা যুব তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। এদিন জয় শ্রী র্যাম বললেই মিষ্টি খাওয়ানোর কথা বলার পাশাপাশি দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা যুব তৃনমূলের সভাপতি শওকত মোল্লা বলেন, “সাম্প্রদায়িক শক্তিকে আটকাতে সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপাবেন। বাড়ি বাড়ি যাবেন যুব তৃনমূলের সদস্যরা।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

কিন্তু যুব তৃনমূলের পক্ষ থেকে বিজেপির জয় শ্রীরাম স্লোগানের পাল্টা তাদের মিষ্টিমুখ করানোর প্রক্রিয়া নেওয়া হলেও তাতে কি বিজেপির গতি রোধ করা যাবে? গেরুয়া শিবিরের দাবি, ভগবান রাম হলেন সূর্যের প্রতীক। তাই রামের নাম করতে তৃণমূলের আপত্তি থাকলেও, বিজেপি ভগবান রামের বন্দনা করে যাবে। এদিকে এদিন যুব তৃনমূলের পক্ষ থেকে এই অভিনব উদ্যোগ ঘোষণার পাশাপাশি দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা যুব তৃনমূলের সমস্ত কমিটিকে ভেঙে দেওয়া হয়।

কিন্তু রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের প্রশ্ন, জয় শ্রীরাম স্লোগানের পাল্টা তৃণমূল যুবর পক্ষ থেকে, সেই শ্লোগান দেওয়া বিজেপি কর্মীদের মিষ্টিমুখ করানোর প্রক্রিয়া নেওয়া হলেও, তাতে কি খুব একটা কাজ দেবে? কেননা, ‘রামনাম’ করে বিনা পয়সায় মিষ্টি পাওয়া গেলে, লোকে একবারের জায়গায় পাঁচ বার রামনাম নেবেন! তাতে তো ‘জয় শ্রী রামের’ জয়ধ্বনি – বহুগুনে বৃদ্ধি পাবে! যা তৃণমূল নেত্রীকে আরও বেশি করে বিব্রত করতে পারে! আর তাই, বিজেপির রাম বনাম তৃণমূলের মিষ্টির এই যুদ্ধে – শেষ পর্যন্ত কে জয় লাভ করে, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!