এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা >  পুরুলিয়ায় বিজেপিকে বড় ধাক্কা দিয়ে দল ছেড়ে তৃণমূলে ফিরলেন হেভিওয়েট নেতা

 পুরুলিয়ায় বিজেপিকে বড় ধাক্কা দিয়ে দল ছেড়ে তৃণমূলে ফিরলেন হেভিওয়েট নেতা

লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল বেরোনোর পর থেকেই বাংলায় বিজেপির উত্থান ঘটলে রাজনৈতিক পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে শুরু করে। বিশেষত জঙ্গলমহল এবং উত্তরবঙ্গের এলাকাগুলিতে তৃণমূলের অনেক হেভিওয়েট নেতা থেকে জনপ্রতিনিধিরা পদ্ম শিবিরে নাম লেখান। কিন্তু হঠাৎই যেন এই ব্যাপারে ছন্দপতন হতে শুরু করল। তৃণমূল থেকে যে সমস্ত জনপ্রতিনিধিরা বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন, তারা ফের তৃণমূলেই ফিরে আসতে শুরু করেছেন।

সূত্রের খবর, শনিবার রাতে তৃণমূলে যোগদান করেন পাড়া পঞ্চায়েত সমিতির এক বিজেপি সদস্য সহ 50 টি পরিবার। আর পাড়া পঞ্চায়েত সমিতির স্থায়ী সমিতি গঠনের ঠিক আগে বিজেপির শক্তিক্ষয় এবং তৃণমূলের শক্তি বৃদ্ধি হওয়ায় রীতিমতো উচ্ছ্বসিত ঘাসফুল শিবির। জানা গেছে, এদিন তৃণমূলে যোগ দেওয়া ব্যক্তিদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন পুরুলিয়া জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুজয় বন্দ্যোপাধ্যায়।

পাশাপাশি এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পাড়ার তৃণমূল বিধায়ক উমাপদ বাউরি, পুরুলিয়া জেলা পরিষদের সদস্য মনোজ সাহাবাবু, পাড়া ব্লক যুব তৃণমূল নেতা সজল দেওঘরিয়া সহ অন্যান্যরা। জানা যায়, পাড়া পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য তথা বিজেপির টিকিটে জয়ী শ্যামল রায় এদিন তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। বস্তুত, 29 আসন বিশিষ্ট এই পাড়া পঞ্চায়েত সমিতির বারোটিই ছিল তৃণমূলের দখলে।

পরবর্তীতে অন্য দল থেকে আরও তিন সদস্য তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর শনিবার রাতে বিজেপি ছেড়ে ফের একজন তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় তৃণমূলের সদস্য সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে 16 টিতে। এদিকে সিপিএমের 1 এবং বিজেপির 12 জন সদস্য রয়েছে। আর বিপুল পরিমাণে সদস্য সংখ্যা পাওয়ায় এই পঞ্চায়েত সমিতিতে স্থায়ী কমিটি গঠনে তৃণমূলের কোনো সমস্যাই আর থাকবে না বলে মনে করছে ঘাসফুল শিবির।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

কিন্তু কেন তিনি হঠাৎ তৃণমূলে যোগ দিলেন! এদিন এই প্রসঙ্গে শ্যামল রায় বলেন, “আমি দীর্ঘদিন তৃণমূল কংগ্রেস করেছি। কিন্তু পরে দলের সঙ্গে কিছু ভুল বোঝাবুঝির জন্য তৃণমূল ছেড়েছিলাম। তবে আবার নিজেদের দলে ফিরে ভাল লাগছে। আশা করছি ভালো করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কাজ করতে পারব। ভোটার ও সমর্থকদের সঙ্গে আলোচনা করেই আমি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

অন্যদিকে শ্যামলবাবুর যোগদানের ফলে এই অঞ্চলে তৃণমূলের শক্তি অনেকটাই বৃদ্ধি পাবে বলে জানান পাড়ার তৃণমূল বিধায়ক উমাপদ বাউরি। কিন্তু তাদের দলের নেতাকর্মীদের কেন তারা নিজেদের দলে আটকে রাখতে পারছেন না! এটা কি তাদের ব্যর্থতা নয়!

এদিন এই প্রসঙ্গে পুরুলিয়া জেলা বিজেপির সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী বলেন, “ওই সদস্য আগে থেকেই তৃণমূলের চর হিসেবে কাজ করছিল। স্থায়ী সমিতি গঠন পর্যন্ত অপেক্ষা করছিলাম। তা না হলে ওকে আমরা নিজেরাই দল থেকে বের করে দিতাম।” তবে যে যাই বলুন না কেন, লোকসভা নির্বাচনের পরবর্তী সময়ে বিজেপিতে যেভাবে জোয়ার আসছিল, তা যে ধীরে ধীরে অনেকটাই কমে আসছে সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশ্লেষকরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!