এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > জিওর দেখানো পথেই এবার এয়ারটেল-ভোডাফোন গ্রাহকদের বড়সড় ধাক্কা! জানুন বিস্তারিত

জিওর দেখানো পথেই এবার এয়ারটেল-ভোডাফোন গ্রাহকদের বড়সড় ধাক্কা! জানুন বিস্তারিত

কয়েক দশক আগেই টেলিকম সেক্টরে নবজাগরণ নিয়ে রিলায়েন্স জিও যখন ভারতবর্ষের মানুষের হাতের মধ্যে এসেছিল, তখন থেকেই গ্রাহককুলে হইচই পড়ে গিয়েছিল জিওর কানেকশন নেওয়ার জন্য। কারণ জিও শুরু থেকেই অসাধারণ সব অফার এনেছিল গ্রাহকদের সুবিধার্থে। খুব স্বাভাবিকভাবেই সে সময় অন্য টেলিকম সংস্থাগুলি পিছিয়ে পড়তে থাকে। প্রতিযোগিতায় ফিরে আসতে এবং নিজেদের গ্রাহক ধরে রাখার জন্য নানান রকম সুবিধা যুক্ত অফার নিয়ে আসতে থাকে তাঁরাও। কিন্তু বর্তমানে স্পেকট্রাম চার্জ এবং লাইসেন্স ফি বাড়ার ফলে টেলিকম সংস্থার প্রত্যেককেই তাদের মাসুল বাড়াতে হচ্ছে। মাসুল বাড়ানোর ক্ষেত্রে প্রথম পা বাড়িয়েছিল রিলায়েন্স জিও। এবার তাঁকে অনুসরণ করেই ভোডাফোন এবং এয়ারটেল একই পথে পা বাড়ালো।

এবার থেকে প্রিপেইড গ্রাহকদেরও অন্য নেটওয়ার্কে কথা বলার জন্য খরচ করতে হবে গাঁটের কড়ি। অর্থাৎ এখন জিও, ভোডাফোন, এয়ারটেলসহ কোন টেলিকম সংস্থাই আনলিমিটেড ফ্রি ভয়েস কল পরিষেবা আর দেবে না। আগামী মঙ্গলবার অর্থাৎ 3 ডিসেম্বর থেকেই অতিরিক্ত কল চার্জ চালু হতে চলেছে। ফ্রি মিনিটের মেয়াদ ফুরানোর পর, এবার থেকে প্রতি মিনিটের জন্য পয়সা খরচ করতে হবে। জিও, ভোডাফোন আইডিয়ার পর এবার এয়ারটেলও গ্রাহক পরিষেবার খরচ বাড়াতে চলেছে। রবিবার সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, থার্ড ডিসেম্বর থেকে এই পরিবর্তিত খরচের হার চালু হবে। অর্থাৎ আজ সোমবার মধ্যরাতের পর থেকেই নতুন হারে টেলিকম সংস্থাগুলি গ্রাহক পরিষেবা দেবে।

ভোডাফোনের পথ অনুসরণ করে এয়ারটেলও তাঁদের ট‍্যারিফ খরচ প্রায় 42 শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়েছে। এখন আনলিমিটেড ফোন করতে গ্রাহকগণ যে পরিমাণ খরচ করেন, তার থেকে 42 শতাংশ বেশি খরচা করতে হবে আনলিমিটেড কল করতে গেলে। অর্থাৎ এখন যা খরচ হয় প্রতিদিনের হিসেবে দেখা যাবে 50 পয়সা থেকে 2 টাকা 85 পয়সা পর্যন্ত মাশুল বাড়ছে এয়ারটেল এ। ইতিমধ্যে অনলাইনে আনলিমিটেড কলের জন্য ‘ফেয়ার ইউসেজ পলিসি’ সুবিধা নিয়ে এসেছে এয়ারটেল। অর্থাৎ নির্দিষ্ট কল পর্যন্ত আনলিমিটেড কথা বলা যাবে, তারপর থেকে অতিরিক্ত মাশুল গুনতে হবে। সূত্রের খবর মাসুল 6 পয়সা প্রতি মিনিটও হতে পারে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সমস্ত নেটওয়ার্কের মাসুল বিচার করলে দেখা যাচ্ছে, জিও নেটওয়ার্ক গ্রাহকদের জন্য তুলনামূলক কম খরচে পরিষেবা দিচ্ছে। ইতিমধ্যেই জিওর সাথে প্রতিযোগিতায় অন্যান্য টেলিকম সংস্থাগুলি প্রতিনিয়ত পিছিয়ে পড়ছে। এবার জিওর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, নতুন অল-ইন-ওয়ান পরিষেবা চালু হতে চলেছে আগামী 6 ডিসেম্বর। যেখানে আনলিমিটেড ভয়েস কল ও ইন্টারনেট পরিষেবার মাসুল বৃদ্ধি পেলেও জিওর তরফ থেকে এই প্ল্যানে 30 শতাংশ অতিরিক্ত সুবিধা দেওয়া হবে গ্রাহকদের। অর্থাৎ রিলায়েন্স জিও গ্রাহকদের কথা মাথায় রেখে নতুন প্ল্যান নিয়ে এসেছে বাজারে। যার ফলে খরচ বাড়লেও জিওর গ্রাহকরাই দিনের শেষে লাভবান হতে চলেছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

আপাতত মাসুল বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে ইতিমধ্যে টেলিকম সেক্টরে চাপানউতোর শুরু হয়েছে। কিন্তু তার মধ্যেই প্রতিটি টেলিকম কোম্পানি নতুন হারে মাসুল বাড়াতে শুরু করেছে। তবে এর সাথে একের পর এক অফারও নিয়ে আসছে টেলিকম কোম্পানিগুলি। তবে সুবিধাজনক অফারের তুলনা করলে রিলায়েন্স জিও বেশ কিছুটা এগিয়ে থাকছে বলে মনে করছেন টেলিকম বিশেষজ্ঞরা। তবে টেলিকম সংস্থা সূত্রের খবর, এই মুহূর্তে জিও ছাড়া অন্যান্য টেলিকম সংস্থাগুলি খুব একটা সুবিধাজনক জায়গায় নেই। টেলিকম বিশেষজ্ঞদের মতে, করের বোঝার হাত থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্যই ভোডাফোন, এয়ারটেল এর মতন বড় বড় কোম্পানিগুলি নতুন ভাবে মাসুল বৃদ্ধির পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!