এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপে জঙ্গলমহলে বড় স্বস্তি শাসকদলের, মাথাব্যথা বাড়লো বিজেপির

শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপে জঙ্গলমহলে বড় স্বস্তি শাসকদলের, মাথাব্যথা বাড়লো বিজেপির

আগামী 9 আগষ্ট জঙ্গলমহলে ঝাড়গ্রাম স্টেডিয়ামে আদিবাসী দিবস উপলক্ষে একটি সভা করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর মুখ্যমন্ত্রীর সেই সভার দিনেই ঝাড়গ্রাম স্টেডিয়াম থেকে  দু কিলোমিটার দূরে ঝাড়গ্রামের সার্কাস ময়দানে আদিবাসী সাঁওতালদের সবচেয়ে বড় সংগঠন “ভারত ডাকাত মাঝি পারগানা মহল” এর ডাকে পঞ্চম তফসিলীদের বাস্তবায়ন সহ একাধিক দাবিতে একটি সভা ডাকা হয়। যার জেরে প্রবল সমস্যায় পড়ে প্রশাসনও।

কেননা, বিগত পঞ্চায়েত ভোট থেকেই এই আদিবাসী সংগঠনের সাথে প্রশাসনের খন্ডযুদ্ধ শুরু হয়। আর কিছুদিন আগে এই দুপক্ষের মতবিরোধ আরও তীব্র হয় যখন এই আদিবাসী সংগঠন পারগানা মহলের অন্যতম নেতা পেশায় শিক্ষক রবিন টুডুকে  চন্দ্রকোনা ব্লকের টেনপুর হাইস্কুল থেকে পূর্ব মেদিনীপুরের ময়নার একটি স্কুলে বদলি করা হলে গত 23 জুলাই থেকে 27 জুলাই পর্যন্ত বিদ্যালয়ের পরিদর্শকের দপ্তরের সামনে ধরনা দেয় এই সংগঠনের সদস্যরা। এমনকী সেই স্কুলেও লাগিয়ে দেওয়া হয়। আর এরপরেই মুখ্যমন্ত্রীর সভার দিনেই এই আদিবাসী সংগঠন সেই ঝাড়গ্রামেই একটি সমাবেশের ডাক দেয়।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

এদিকে এরই মাঝে গত বৃহস্পতিবারই লোধাশুলিতে জেলা তৃনমূলের কোর কমিটির বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় আসলে সেইখানে প্রশাসনের উদ্যোগে সেই পারগানা মহলের সর্বোচ্চ নেতা দিশম পারগানা. নিত্যানন্দ হেমব্রম, সেই বদলি হওয়া শিক্ষক রবিন টুডুকে নিয়ে যাওয়া হলে সেই রবিন টুডুর বদলি বাতিল করার আশ্বাস দেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। আর এতেই বরফ গলতে শুরু করে। 9 আগষ্টের সমাবেশ থেকেও পিছু হটে তাঁরা।

এদিন এই প্রসঙ্গে এই সংগঠনের নেতারা বলেন, “পার্থবাবুকে জানিয়েছি, 9 তারিখের সভা অন্যত্র সরানোর ব্যাপারে আমরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব।” তবে মুখ্যমন্ত্রীর সভায় কেউ চাইলে ব্যাক্তিগতভাবে যেতেই পারেন বলে মত এই নেতাদের। এদিকে যাঁকে নিয়ে এত কিছু সেই বদলি হওয়ি শিক্ষক রবীন টুডু বলেন, ” বদলির সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে না বলে শিক্ষামন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন।” এদিকে পারগানা মহলের নেতারা এই আন্দোলন থেকে সরে আসায় তাঁদের কটাক্ষ করেছেন আদিবাসী সামাজিক সংগঠনের নেতা প্রবীর মুর্মু। সব মিলিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপে মুখ্যমন্ত্রীর সভার দিন কোনো কর্মসূচী নেওয়া থেকে বিরত থাকল জঙ্গলমহলের সর্বোচ্চ আদিবাসী সংগঠন।

এদিকে এই নিয়ে বিজেপির মাথাব্যথা বাড়লো বলেই মত রাজনৈতিকমহলের। কেননা যত জঙ্গলমহলে শাসকদলের উপর মানুষের অসন্তোষ বাড়বে ততোই সুবিধা হবে বিজেপির.আর এদিকে যদি সব মিটমাট হয়ে যায় তবে ভোটে তার প্রভাব পড়বে। ফলে এবার বিজেপিকে মরিয়া হয়ে ঝাঁপাতে হবে।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!