এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > জঙ্গলমহলের খাবার কম হবার কারণ জানালেন দিলীপ ঘোষ, জেনে নিন কি?

জঙ্গলমহলের খাবার কম হবার কারণ জানালেন দিলীপ ঘোষ, জেনে নিন কি?

একসময় অনাহারে প্রায়শই মৃত্যু হত রাজ্যের জঙ্গলমহলের জেলাগুলির মানুষের। কিন্তু 2011 সালে রাজ্যে পালাবদলের পর শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে সেই জঙ্গলমহল যেমন শান্ত হয়েছে, তেমনি অসহায় মানুষগুলির মুখে ভাত তুলে দিতেও সক্ষম হয়েছে রাজ্য।

বিগত বেশ ক’বছর ধরে আর তেমন কোনো দুর্ঘটনা বা অনাহারে মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি এই জঙ্গলমহল থেকে। কিন্তু সম্প্রতি সেই জঙ্গলমহলের লালগড়ে 7 শবরের মৃত্যু নিয়ে উত্তাল হয়ে উঠেছে রাজ্য রাজনীতি। অনাহারেই মৃত্যু হয়েছে এই অসহায় মানুষগুলোর বলে বিরোধীদের তরফে দাবি করা হলেও রাজ্যের প্রশাসন প্রথম থেকেই বলে আসছে যে অতিরিক্ত মদ্যপানের জেরে মৃত্যু হয়েছে এখানকার বাসিন্দাদের।

কিন্তু সরকারের এই দাবি মানতে নারাজ বিরোধীরা। আর তাইতো এবার সেই লালগড়ের সাত শবরের মৃত্যু প্রসঙ্গে এক নতুন তত্ত্ব খাড়া করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সূত্রের খবর, আজ হাওড়ার শরৎ সদনে বিজেপির সংযুক্ত মোর্চা রাজ্য কার্যকারিনীর এক সভায় উপস্থিত হয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, “এতদিন রাজ্য সরকার বলত জঙ্গলমহল হাসছে। এখন বোঝাই যাচ্ছে কেমন করে জঙ্গলমহল হাসছে। আসলে বাংলাদেশি মুসলিম অনুপ্রবেশকারীরা খাবারে ভাগ বসাচ্ছে বলেই জঙ্গলমহলের মানুষের আজকে খাবার জুটছে না।”

শুধু তাই নয়, এদিন ক্ষমতায় এলে এই পশ্চিমবঙ্গ থেকে বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারীদের ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেওয়ারও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি। এদিন তিনি বলেন, “এই অনুপ্রবেশকারীরা আমাদের বোঝা হয়ে যাচ্ছে। তাই প্রথমে এই বাংলায় এনআরসি হবে। আর তারপর গোটা দেশে তা লাগু হবে।”

অন্যদিকে রাজ্যে মৃত্যু-মিছিল চললেও নীল সাদা আলোর বন্যা বইয়ে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কলকাতাকে লন্ডন বানানোর স্বপ্নকেও কটাক্ষ করেন দীলিপবাবু। পাশাপাশি শাসকদল তৃণমূল, কংগ্রেস ও সিপিএমকেও এদিনের সভা থেকে তুলোধোনা করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

জানা গেছে, বাংলাদেশ থেকে আগত সংখ্যালঘু হিন্দু উদ্বাস্তুকে নাগরিকত্ব দিয়ে একটি বিল আনতে চলেছে কেন্দ্রের মোদি সরকার। এদিনের সভা থেকে সেই কেন্দ্রের আনা বিল সকল বিরোধী দলকে সমর্থন করার কথা বলে নিজেদের বাঙালি দরদী হিসেবেই ফের প্রমাণ করার চেষ্টা করলেন রাজ্য বিজেপির এই সেনাপতি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!