এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > ‘জাল ডিগ্রী’ নিয়ে যিনি ঘুরে বেড়াচ্ছেন দিলীপ ঘোষ, রাজ্য বিজেপি সভাপতিকে তীব্র আক্রমণ হেভিওয়েট নেতার

‘জাল ডিগ্রী’ নিয়ে যিনি ঘুরে বেড়াচ্ছেন দিলীপ ঘোষ, রাজ্য বিজেপি সভাপতিকে তীব্র আক্রমণ হেভিওয়েট নেতার

Priyo Bandhu Media


রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষকে তৃণমূলের পক্ষ থেকে বিভিন্ন রকম কটাক্ষ করা হয়েছে এতদিন। কিন্তু এবার সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন। রাজ্যজুড়ে এনআরসি, সিএএ, এনপিআর সহ লাগাতার মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে বিজেপি বিরোধী আন্দোলন ক্রমশ স্ফুলিঙ্গের আকার ধারণ করছে। এবার বাম বিরোধী নিশানায় রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন বামেদের পক্ষ থেকে বিজেপির স্বৈরাচারী মনোভাবেরও সমালোচনা করা হয়েছে।

সোমবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন সিপিএম কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজন চক্রবর্তী। আর সেখানেই তিনি রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন। এদিন সুজন চক্রবর্তী দিলীপ ঘোষের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে আবারও প্রশ্ন তুললেন। তিনি দিলীপ ঘোষের শিক্ষাগত যোগ্যতার মানপত্রগুলিকে ‘জাল ডিগ্রী’ বলে অভিহিত করলেন। প্রশ্ন তুললেন, কিভাবে কোন জ্ঞান না থাকা সত্ত্বেও ছাত্র-ছাত্রীদের দিলীপ ঘোষ জ্ঞান দিয়ে যাচ্ছেন। এদিন সুজন চক্রবর্তী দিলীপ ঘোষকে আকাট বলেও উল্লেখ করেছেন। সুজন চক্রবর্তী এদিন বিজেপি সারাদেশে যে স্বৈরাচারী মনোভাব চালাচ্ছে তা নিয়ে চূড়ান্ত সমালোচনা চালিয়েছেন।

এদিন সুজন চক্রবর্তী জেএনইউতে সভাপতি ঐশী ঘোষের ওপর ভয়ানক আক্রমণের তীব্র নিন্দা করেন। তিনি জেএনইউ তে পড়ুয়াদের ওপর হামলার ঘটনাকে সন্ত্রাসবাদি হামলার সাথে তুলনা করেছেন। শুধু তাই নয়, ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে এদিন অপদার্থ আখ্যা দিয়ে তাঁর অপসারণ চেয়েছেন সুজন চক্রবর্তী। একই সঙ্গে তিনি আগামী 8 ই জানুয়ারি সারাদেশে যে বন্‌ধ ডেকেছে বাম সমর্থকরা, তা সর্বতোভাবে পালিত হবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সুজন চক্রবর্তী বিজেপি সম্পর্কে আরও বলেন, বামপন্থীদের রাজ্য থেকে সরাতে বিজেপি রীতিমতো প্রশ্রয় দিয়ে তৃণমূল সরকারকে এ রাজ্যে এনেছে। যদিও এখন বিজেপি দাবি করে তৃণমূল তাদের ধরে মারছে। সুজন চক্রবর্তী এ প্রসঙ্গে বলেন, বামপন্থীরা কোন মারামারির রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয়, সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণ রাজনীতির পক্ষপাতী। বিজেপি নেতা মুকুল রায় সম্প্রতি বাঁকুড়া এসে দাবি জানান, সিপিএম ও কংগ্রেস পরকীয়া চালাচ্ছে। মুকুল রায়ের বক্তব্য প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সুজন চক্রবর্তী এদিন বলেন, মুকুল রায় তৃণমূলে যা যা করতেন, বিজেপিতে গিয়েও তিনি সেই একই কাজ করছেন। তবে দেখা যাচ্ছে, তৃণমূল থেকে লোকেরা গিয়ে বিজেপির ঝান্ডা হাতে তুলে নিচ্ছে। তাই এই ঘটনায় প্রমাণিত তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে সামান্যতম পার্থক্য নেই।

রাজ্যে ইতিমধ্যেই এনআরসি প্রসঙ্গে বিজেপি চাপে পড়েছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। তৃণমূল সহ রাজ্যের অন্যান্য বিরোধী দল যেভাবে বিজেপির বিরুদ্ধে এককাট্টা হয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছে, তাতে এই মুহূর্তে বাংলায় বিজেপি মহলে চিন্তার ভাঁজ স্পষ্ট। অন্যদিকে, সামনেই 2021 এর বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে এনআরসি নিয়ে রাজ্যে বিজেপি যাতে পিছিয়ে না পড়ে, তার জন্য তাঁরা এনআরসির পক্ষে বিভিন্ন জায়গায় মিছিল, পদযাত্রা করা শুরু করেছে। আপাতত পরিস্থিতির ওপর কড়া নজর রাখছে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!